ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯

রণবীর-জ্যোতি দম্পতির ঘরে নতুন অতিথি

প্রকাশিত: ০৫:৩০, ২৬ জানুয়ারি ২০১৬

রণবীর-জ্যোতি দম্পতির ঘরে নতুন অতিথি

আরাফাত মুন্না ॥ ঢাকা চিড়িয়াখানায় রণবীর এবং জ্যোতি ব্যাঘ্র দম্পতির ঘরে আবারও এসেছে নতুন অতিথি। জ্যোতি গত ১ জানুয়ারি একটি শাবকের জন্ম দিয়েছে। এর আগে গত বছরের সেপ্টেম্বরে এই দম্পতি টোকিও নামের আরেকটি বাচ্চার জন্ম দিয়েছিল। তবে এখনও নতুন এই ব্যাঘ্র শাবকটির নাম ঠিক করা হয়নি। চিড়িয়াখানার কিউরেটর ডাঃ এসএম নজরুল ইসলাম সোমবার জনকণ্ঠকে জানান, গত ১ জানুয়ারি নতুন শাবকটি জন্ম নিয়েছে। বর্তমানে এই ব্যাঘ্র শাবকটির ওজন দুই কেজি ৬০ গ্রাম। ৫৫ মিলিলিটার করে দৈনিক ছয়বার খেতে দেয়া হচ্ছে তাকে। কিউরেটর জানান, এই শাবকটি জন্মের পর তিন দিন মায়ের দুধ খেতে পেরেছিল। এরপর ওর মা জ্যোতি দুধ দেয়া বন্ধ করে দিয়েছে। এরপর থেকে থাইল্যান্ড থেকে আনা বিশেষ দুধ খাওয়ানো হচ্ছে চিড়িয়াখানার নতুন এই অতিথিকে। নরম বিছানা ছাড়াও ওর জন্য রুমহিটার দিয়ে আরামদায়ক তাপমাত্রারও ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান কিউরেটর। তিনি আরও জানান, এর আগের শাবক ‘টোকিও’-কে দেড় মাস বয়স থেকে অল্প অল্প মাংস দেয়া শুরু হয়েছিল। সব ঠিক থাকলে এই শাবকের ক্ষেত্রেও তেমনই হওয়ার কথা। তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত কোন নাম রাখা হয়নি ব্যাঘ্র শাবকটির। এই দম্পতির আগের শাবকের নাম রেখেছিলেন প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন সচিব সেলিনা আফরোজা। এবারও কোন উচ্চপদস্থ ব্যক্তিই নামকরণ করবেন বলে আশা করেন তিনি। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের দেয়া তথ্যমতে, সদ্য জš§ নেয়া ব্যাঘ্র শাবকটির বাবা রণবীর এই চিড়িয়াখানারই বাসিন্দা। মা জ্যোতিকে আনা হয়েছিল কক্সবাজারের ডুলাহাজরা সাফারি পার্ক থেকে। রাষ্ট্রীয় বন্ধুত্বের নিদর্শন হয়ে তাদের যাওয়ার কথা ছিল জাপানে। ২০১২ সালে রাজধানীর শ্যামলী থেকে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) তিনটি চোরাই ব্যাঘ্র শাবক উদ্ধার করে। পরে সেগুলোকে বন বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হলে তিন শাবকের বাসস্থান হয় কক্সবাজারের ডুলাহাজরার বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে। ওই তিন শাবকের একটি হচ্ছে জ্যোতি। এদিকে গত বছরের ১২ ডিসেম্বর একটি বাচ্চা দিয়েছে হাড়গিলা। বর্তমানে বাবা-মায়ের সঙ্গে পরিচর্যায় রাখা হয়েছে নতুন এই অতিথিকে। চিড়িয়াখানার পাখি শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমএ জলিল জানান, অতিরিক্ত পরিচর্যার অংশ হিসেবে পাখির বাচ্চাটিকে দৈনিক একটি করে সিদ্ধ ডিম দেয়া হচ্ছে। সিদ্ধ ডিম দেয়া হচ্ছে তার বাবা-মাকেও। এছাড়া এই পাখিদের খাদ্য তালিকায় থাকা ছোট শিং মাছের পরিমাণও বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। শীতের ঠা-া বাতাস থেকে রক্ষা করতে পর্দা এবং বসার স্থানে চিকন খড় বিছিয়ে দেয়া হয়েছে। চিড়িয়াখানার তথ্যকেন্দ্রের তথ্যমতে, গত কয়েক মাসে বাচ্চা দিয়েছে কমন ইল্যান্ড, জলহস্তি, ওয়াইল্ড বিস্টসহ কিছু প্রাণী। এছাড়া কাছাকাছি সময়ে বাচ্চা প্রসব করতে পারে জিরাফ পরিবারের সদস্য ‘ছোট রানী’।