মঙ্গলবার ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৪ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা

জঙ্গীবিরোধী ফতোয়া ॥ আসছে লক্ষাধিক আলেমের ঐক্যবদ্ধ আহ্বান

জঙ্গীবিরোধী ফতোয়া ॥ আসছে লক্ষাধিক আলেমের ঐক্যবদ্ধ আহ্বান
  • ধর্মের অপব্যাখ্যা রোধে ওলেমা ও ইসলামী চিন্তাবিদরা এগিয়ে আসছেন ;###;ইতোমধ্যেই অবস্থান নিয়েছেন দেওবন্দ ও হাটহাজারী মাদ্রাসার অসংখ্য মুফতি

বিভাষ বাড়ৈ ॥ ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে চলা জঙ্গী ও জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে এবার ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে নেমেছেন দেশের বিশিষ্ট মুফতি আলেম ওলামাসহ ইসলামী চিন্তাবিদরা। সর্বাত্মক কর্মসূচীতে যাচ্ছেন তারা। এ লক্ষ্যে জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে ফেব্রুয়ারিতেই লক্ষাধিক আলেমের ফতোয়া আসছে। ফতোয়ার জন্য প্রশ্ন তৈরি করে ৬৪ জেলায় ফতোয়ায় স্বাক্ষরে ‘দায়িত্বশীল’ নিয়োগ দিয়ে কাজ শুরু করেছেন আলেম সমাজ। বিশিষ্ট আলেমদের দিয়ে শনিবার কেন্দ্রীয়ভাবে সমন্বয় কমিটি গঠন করে কাজ শুরুর পর ইতোমধ্যেই এক হাজার আলেম ফতোয়ায় স্বাক্ষর করেছেন। জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে ফতোয়ায় স্বাক্ষর করেছেন উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় মাদ্রাসা দেওবন্দ মাদ্রাসা ও দেশের অন্যতম হাটহাজারী মাদ্রাসার অসংখ্য মুফতী।

বিশিষ্ট আলেমরা বলছেন, সন্ত্রাসী ও জঙ্গী কর্মকা-কে ইসলাম সমর্থন করে না। আন্তর্জাতিক গোষ্ঠীর উসকানিতে একটি চক্র দেশের তরুণদের বিপথগামী করছে। দেশের সব আলেম সম্মিলিতভাবে জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে ফতোয়া দিলে, ধর্মের সঙ্গে জঙ্গীবাদের যে সম্পর্ক নেই, তা বিশ্বের কাছে স্পষ্ট হবে। এতে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে। জঙ্গীদের বিরুদ্ধে বিশাল এ কর্মযজ্ঞ শুরুর বিষয়ে এর অন্যতম সংগঠন ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগার খতিব ও বাংলাদেশ জমিয়াতুল উলামার চেয়ারম্যান আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ জানিয়েছেন, জঙ্গীবাদবিরোধী ফতোয়ায় এক লাখ মুফতি ও উলামা স্বাক্ষর সংগ্রহের কার্যক্রম শুরু হয়ে গেছে। ফেব্রুয়ারির মধ্যেই লক্ষাধিক আলেমের সই সংবলিত ফতোয়া প্রকাশ করা সম্ভব হবে বলে আমরা আশা করছি। প্রথম দিনেই এক হাজারের ওপর আলেম ফতোয়ায় স্বাক্ষর করেছেন উল্লেখ করে দেশের এ বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ বলেন, জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যেই ফতোয়ায় স্বাক্ষর করেছেন উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় দেওবন্দ মাদ্রাসা ও দেশের অন্যতম হাটহাজারী মাদ্রাসার মুফতীগণ। শোলাকিয়া ঈদগার খতিব বলেন, জঙ্গীবাদের কবল থেকে দেশ ও সত্যিকারের ইসলামকে রক্ষা করতে হবে। জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে আলেমদের নিয়ে দেশের হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীস্টানসহ অন্য ধর্মালম্বীদের সঙ্গে মতবিনিময়ও করা হবে। এছাড়া এই কার্যক্রমে অংশ নিতে দেশের মসজিদ-মাদ্রাসা, ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাদের প্রতিও আহ্বান জানিয়ে চিঠি দেয়া হবে। আলেমদের নিয়ে সন্ত্রাসবিরোধী মানববন্ধন, মহাসমাবেশের পরিকল্পনাও রয়েছে। জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নেয়া আলেমরা তাদের কাজের বিষয়ে বলছেন, গতবছর নবেম্বরে আইএস ও জঙ্গীবাদবিরোধী যাবতীয় কর্মকা-ের বিরুদ্ধে ভারতের এক হাজার ইমাম, মুফতি এবং ইসলামী চিন্তাবিদদের স্বাক্ষর করা একটি ফতোয়া প্রকাশ করা হয়। ওই ফতোয়া জাতিসংঘ মহাসচিবের কাছেও পাঠিয়েছিলেন তারা। ওই ফতোয়ায় বলা হয়, ‘ইসলাম সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আর আইএস সন্ত্রাসকে উসকে দিচ্ছে। বিভিন্ন মুসলিম দেশেও ১৫ খ-ের ফতোয়াটি পাঠানো হয়েছিল। অন্য দেশের আলেমদেরও এভাবে জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে ফতোয়া জারি করে আহ্বানও করা হয়েছিল। জানা গেছে, গত ১৭ ডিসেম্বর পুলিশ সদর দফতরে আয়োজিত ‘ইসলামের দৃষ্টিতে জঙ্গীবাদ : বাংলাদেশ পরিপ্রেক্ষিত’ শীর্ষক এক মতবিনিময়সভায় জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে দেশের আলেমদের ফতোয়া দেয়ার পক্ষে মত দিয়েছিলেন আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ। সেই পরিকল্পনার অংশ হিসেবেই শুরু হয়েছে জঙ্গীবাদবিরোধী ফতোয়ায় স্বাক্ষর সংগ্রহ কার্যক্রম। ওই সভায় পুলিশের মহাপরির্দশক (আইজিপি) একেএম শহীদুল হক জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে ধর্মীয় নেতাদের সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছিলেন।

আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ তাদের কর্মকৌশল সম্পর্কে জানিয়েছেন, জঙ্গীবাদবিরোধী ফতোয়ায় এক লাখ মুফতি ও উলামায়ে কেরামের জন্য ১১টি প্রশ্ন নির্ধারণ করা হয়েছে। এ বিষয়ে একমত পোষণ করে একটি অভিন্ন ফতোয়ায় স্বাক্ষর নেয়া হবে আলেমদের।

প্রথম দিন শত শত আলেম উপস্থিত হয়ে সমস্বরে জঙ্গীদের বিরুদ্ধে নিজেদের অবস্থানের কথা প্রকাশ করেছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, সারাদেশ থেকে ফতোয়ায় আলেমদের স্বাক্ষর সংগ্রহের জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে একটি সমন্বয় কমিটি করা হয়েছে। এ কমিটিতে আছেন মাওলানা আবদুর রহীম, মাওলানা এমদাদুল কাসেমী, মাওলানা সদরুদ্দিন মাকনূন। এছাড়া প্রতি জেলায় ‘দায়িত্বশীল’ নিয়োগ করা হয়েছে। তারা কাজের প্রয়োজনে কমিটিতে নতুন ব্যক্তিদের সম্পৃক্ত করতে পারবেন।

জানা গেছে, ফতোয়ায় স্বাক্ষরের জন্য এগারোটি প্রশ্ন তৈরি করা হয়েছে। এসব প্রশ্নের জবাবে উলামায়ে কেরাম তাদের অবস্থান ব্যক্ত করছেন। একমত পোষণ করে ফতোয়ায় স্বাক্ষর করবেন। প্রশ্নগুলো হচ্ছেÑ ইসলাম কি সন্ত্রাস ও জঙ্গী কর্মকা-কে সমর্থন করে? নবী ও রাসূল বিশেষ করে নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ইসলাম কায়েম করার পথ কি হিংস্রতা ও বর্বর নির্মমতার অবস্থান ছিল? ইসলামে জিহাদ ও সন্ত্রাস কি একই বিষয়? জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসের পথ কি বেহেশতের পথ না জাহান্নামের পথ? আত্মঘাতী মৃত্যু কি শহিদী মৃত্যু বলে গণ্য হবে? আত্মহত্যা ও আত্মঘাতের বিষয়ে ইসলামের মত কী? গণহত্যা কি ইসলামে বৈধ? শিশু, নারী, বৃদ্ধ নির্বিচারে হত্যা কি ইসলাম সমর্থন করে? ইবাদতরত মানুষ হত্যা করা কী ধরনের অপরাধ। এই ধরনের সন্ত্রাসী ও জঙ্গীবাদীদের বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলা ইসলামের দৃষ্টিতে কর্তব্য কি না? সবশেষে আছেÑ গির্জা, মন্দির, প্যাগোডা ইত্যাদি অমুসলিম উপাসনালয়ে হামলা জায়েজ কিনা? আলেম সমাজের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন অনেক ইসলামী চিন্তাবিদ। তারা বলছেন, এটা খুব ভাল উদ্যোগ। এতে পরিষ্কার হবে, দেশের আলেমরা জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। ফলে মসজিদ-মাদ্রাসার সঙ্গে জঙ্গীবাদের সম্পৃক্ততার অভিযোগ তুলে আর কোন অপপ্রচারের সুযোগ পাবে না। পাশাপাশি দেশের কোন মানুষকে ভুল বুঝিয়ে জঙ্গীবাদের পক্ষে নেয়ার পথও বন্ধ হবে।

এদিকে সরকার বিশেষত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে একাধিক বৈঠক করে ধর্মের নামে চলা জঙ্গীবাদী কর্মকা- বন্ধে শক্ত অবস্থান নেয়ার দাবি জানিয়েছেন দেশের খ্যাতিমান আলেমরা। তারা এ জন্য জামায়াত-হেফাজত নিয়ন্ত্রিত মাদ্রাসাগুলোতে নজরদারি বাড়াতেও পুলিশকে তাগিদ দিয়েছেন। আলহাজ মাওলানা ড. আ ন ম মাহবুবুর রহমানের অভিমত, কিছু লোক বিদেশী টাকায় ইসলাম সম্পর্কে বিভ্রান্তিকর প্রচার চালাচ্ছেন। মিলাদ মাহফিলকে প্রশ্নবিদ্ধ করা চেষ্টা চালাচ্ছেন। কোরান-হাদিসের আলোকে জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে প্রচার চালাতে হবে। জিহাদ ও জঙ্গীবাদের মধ্যে যে পার্থক্য রয়েছে, তা তুলে ধরতে হবে। মাওলানা শাহ সূফি সৈয়দ মুহাম্মদ বাহাদুর শাহ বলেন, ইসলাম শান্তি, সহমর্মিতা ও সৌহার্দ্যরে ধর্ম। একটি মহল বিভ্রান্তি ছড়িয়ে দেশে জঙ্গীবাদ সৃষ্টি করছে। তারাই ইসলামের শত্রু। ‘যারা পল্টনে বলেছেন, বাংলা হবে আফগান আমরা হব তালেবান’ তারাই হচ্ছেন অরিজিনাল জঙ্গী।

চাঁদপুর গাবতলা দরবার শরীফের পীর মাওলানা খাজা আরিফুর রহমান বলেন, রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করা জঙ্গী ও খারেজিদের চরিত্র। এ জন্য মসজিদে জুমার খুতবায় জঙ্গীবাদবিরোধী বক্তব্য দিতে হবে। জঙ্গীবাদ দমন করতে হলে এ সংক্রান্ত কর্মসূচীর সঙ্গে আলেমদের সম্পৃক্ত করতে হবে। মাওলানা কামাল উদ্দিন আজহারী বলেন, একজন মুসলমান আরেকজন মুসলমানকে কখনও হত্যা করতে পারেন না। এটা কুফরি কাজ। বোমা মারা, গুলি করা, মুসলমান হয়ে আরেক মুসলমানকে হত্যা করা, ইসলাম ধর্মের মূল চেতনার পরিপন্থী। অন্য ধর্মের লোকদেরও হত্যা করা ইসলাম সমর্থন করে না। ইসলামে এগুলো জঘন্য অপরাধ হিসেবে স্বীকৃত।

জঙ্গীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানের কথা জানিয়ে মুফতি হালিম সিরাজি, যারা বিদেশী, মসজিদ ও উপাসনালয়ে হামলা চালিয়ে নিরীহ মানুষদের হত্যা করেছেন, তারা কোরান-হাদিস থেকে অনেক দূরের বাসিন্দা। তারা কখনও নিজেদের প্রকৃত মুসলমান হিসেবে দাবি করতে পারে না। অধ্যক্ষ মাওলানা কফিল উদ্দিন সরকার ছালেহীর মতে, ইসলাম কখনও অন্য কোন ধর্মাবলম্বীর প্রতি বিদ্বেষ পোষণের নীতি সমর্থন করে না বরং শ্রদ্ধা দেখানোর কথা বলা হয়েছে। ভিন্ন ধর্মাবলম্বী বিদেশী শক্তির অর্থ, অস্ত্র ও উত্থানে বিভ্রান্ত হয়ে বিপথগামী কিছু তরুণ ইসলামের নামে দেশে সন্ত্রাস ও অশান্তি সৃষ্টি করছে। ইসলামের শান্তির বাণী সর্বত্র ছড়িয়ে দিয়ে মুসলমান নামধারী সন্ত্রাসীদের মুখোশ খুলে দিতে হবে। মানুষকে ভালবাসা দিয়ে পৃথিবীতে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এখানে জঙ্গীবাদের কোন স্থান নেই।

জঙ্গীবাদী কার্যক্রমের জন্য বিএনপির রাজনৈতিক মিত্র জামায়াতে ইসলামীকে শক্ত হাতে মোকাবেলার পরামর্শ দিয়েছেন অনেক ইসলামী চিন্তাবিদ। সারাদেশের ‘জামায়াত ও তাদের মদদপুষ্ট ইমামদের তালিকা তৈরির পরামর্শ দিয়ে আলেমরা বলছেন, যেসব ইমাম ইসলামের নামে জঙ্গীবাদের উস্কানি দিয়ে বক্তব্য দেন, তালিকা থাকলে তাদের শনাক্ত করা সম্ভব হবে। মানবতাবিরোধী ও যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা মুজাহিদের ফাঁসির পর যেসব মসজিদের ইমাম তার জন্য দোয়া ও কান্নাকাটি করেছেন, তাদের চিহ্নিত করতে হবে।

শীর্ষ সংবাদ: