বুধবার ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭, ১২ আগস্ট ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ভারতে এগোতে চেয়েছিল জেএমবি

শংকর কুমার দে ॥ বাংলাদেশের নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করে শরিয়া আইন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানের খাগড়াগড়ে ঘাঁটি গেড়েছিল জামা’আতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি)। পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলা থেকে শুরু করে নদিয়া, মুর্শিদাবাদ ও বীরভূমে খেলাফত প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য নিয়ে জঙ্গী সংগঠনটি বিস্তৃত করা ছিল তাদের পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত। সোমবার কলকাতার মুখ্য বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে পেশ করা খাগড়াগড় বিস্ফোরণ মামলার প্রায় ৩৫০ পাতার অতিরিক্ত চার্জশীটে এ ধরনের তথ্যের কথা উল্লেখ করেছে ভারতের জাতীয় তদন্ত সংস্থা এনআইএ।

জাতীয় তদন্ত সংস্থা এনআইএ’র অতিরিক্ত চার্জশীটে উল্লেখ করা হয়েছে, বাংলাদেশ জেএমবি’র মূল নিশানা হলেও ভারতে শাখা-প্রশাখা বিস্তার করে নিজেদের পরিকল্পনায় আরও এগোতে চেয়েছিল জেএমবি। এজন্য পশ্চিমবঙ্গে বহু জঙ্গী ডেরা ও বর্ধমানের খাগড়াগড়সহ একাধিক জায়গায় বোমা-বিস্ফোরকের কারখানা তৈরি করেছিল জেএমবি। বাংলাদেশে সাফল্য মিললে জেএমবি ধীরে ধীরে ভারতেও সে লক্ষ্যে এগোতো বলে খাগড়াগড় বিস্ফোরণ মামলার দ্বিতীয় সাপ্লিমেন্টারি (অতিরিক্ত) চার্জশীটে ইঙ্গিত দিয়েছে এনআইএ। বর্ধমানের খাগড়াগড় বোমা বিস্ফোরণের মামালায় দ্বিতীয় অতিরিক্ত চার্জশীটই ফাইনাল চার্জশীট। এর পর বিচার প্রক্রিয়া যত শীঘ্র সম্ভব শুরু করে দেয়ার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। এই মামলায় এখনও পর্যন্ত ৬৬ হাজার ৭৫৩ পাতার নথি আদালতে জমা দিয়েছে এনআইএ।

গোয়েন্দাদের দাবি, যেমন- নুরুল হক ম-ল ওরফে নইম, যাকে চলতি বছরের ১৮ জুন হাওড়া স্টেশনের কাছ থেকে গ্রেফতার করা হয়। ধরা পড়ার আগে নইম জেএমবি’র চাঁই হাতকাটা নাসিরুল্লাহ, কওসর, কদর কাজীদের সঙ্গে ফোনে কথা চালিয়ে গিয়েছে বলে দাবি গোয়েন্দাদের। তাঁরা নইমের দুটি ঠিকানা পেয়েছেন- একটি মুর্শিদাবাদের ডোমকল, অন্যটি বীরভূমের বোলপুরের মুলুক গ্রামে। কিন্তু গোয়েন্দাদের একাংশের সন্দেহ, নইম আসলে বাংলাদেশেরই নাগরিক। এনআইএ’র জমা দেয়া দ্বিতীয় অতিরিক্ত চার্জশীটে একজনের নাম রয়েছে আর সেই একজনই হলো নুরুল হক ম-ল ওরফে নইম। এই নিয়ে খাগড়াগড় বিস্ফোরণ মামলায় ২৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট পেশ করল এনআইএ।

শীর্ষ সংবাদ:
ওয়েবিনার জুম ॥ করোনাকালের গণমাধ্যম         এলো রুশ ভ্যাকসিন         নামছে বন্যার পানি, বাড়িঘরে ফিরছেন মানুষজন         পুলিশী মামলার তিন সাক্ষী গ্রেফতার ॥ রিমান্ডের আবেদন         ভাড়া ডাকাতির মহোৎসব         করোনায় আরও ৩৩ জনের মৃত্যু         ছোট ঋণ সোনার হরিণ ॥ চার মাসে বিতরণ মাত্র ৫শ’ কোটি টাকা         সাম্প্রদায়িকতা-জঙ্গীবাদ ধর্মের মূল শিক্ষাকেই প্রশ্নবিদ্ধ করে         খালেদার চিকিৎসা দেশে না বিদেশে? দ্বিধাবিভক্ত বিএনপি         পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণীর সমাপনী পরীক্ষা বাতিল হতে পারে         ডিজিএফআই ও সিআইডি কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণা, তিন প্রতারক গ্রেফতার         সাড়ে তিন বছরে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে সমৃদ্ধির দিকে এগোতে থাকে         লেবাননে ৪০ হাজার কর্মী বাংলাদেশে ফিরতে সহযোগিতা চান         উত্তরা থেকে তেজগাঁও, দশ ইউটার্ন নির্মাণ ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে         সাগরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত         সাবেক পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত         বঙ্গবন্ধুর হত্যা ছিল স্বাধীন বাংলাদেশকে হত্যার ষড়যন্ত্র ॥ তথ্যমন্ত্রী         মেজর সিনহা হত্যা ॥ আরও তিনজন গ্রেফতার         চলতি বছরের মধ্যে ইউটার্নগুলোর কাজ শেষ হবে ॥ আতিক         বিশ্বের প্রথম করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রয়োগ হল পুতিনের মেয়ের শরীরে        
//--BID Records