ঢাকা, বাংলাদেশ   বুধবার ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১

মুকসুদপুরে গাছ কথা বলছে- এমন অলৌকিক গল্পের পিছনে ছুটছে মানুষ

নিজস্ব সংবাদদাতা, মুকসুদপুর, গোপালগঞ্জ

প্রকাশিত: ০৯:৫৫, ২২ জুন ২০২৪; আপডেট: ০৯:৫৯, ২২ জুন ২০২৪

মুকসুদপুরে গাছ কথা বলছে- এমন অলৌকিক গল্পের পিছনে ছুটছে মানুষ

গাছের সঙ্গে কথা বলতে কান পেতে আছে এক নারী। ছবি: জনকণ্ঠ

গাছ নাকি কথা বলছে এমন অলৌকিক গল্পের পিছনে ছুটে চলছে অসংখ্য মানুষ। আর এ ঘটনা ঘটেছে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার রাঘদি ইউনিয়নের গর্জিনা গ্রামে। এমন অলৌকিক ঘটনা দেখতে ও গাছের সঙ্গে কথা বলতে প্রতিদিন ভিড় করছে অসংখ্য মানুষ। তবে এটি নাকি জ্বীনের কাণ্ড হতে পারে এমনটি জানিয়েছেন স্থানীয় মসজিদের এক ইমাম।

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার অজপাড়া গাঁ গর্জিনা গ্রাম। এই গ্রামের সৌদি প্রবাসী সবুর মিয়া তার রয়েছে একটি গাছের বাগান। এলাকাবাসীর ভাষায় বেশ কয়েক দিন ( শুক্রবার ১৪ জুন) আগে ওই বাগানের একটি লম্বু (স্থানীয়দের ভাষায়) গাছ কাঁটতে যায় স্থানীয় গ্রামের জুয়েল মোল্লার ছেলে নিরব (১০) সহ কয়েকজন শিশু। 

শোনা যায়, তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে গাছটির গায়ে আঘাত করলে গাছটি নাকি কথা বলে ওঠে। এসময় ওই শিশুরা ভয় পেয়ে বাড়ী গিয়ে পরিবারের লোকজনের কাছে জানালে তারা গাছটি দেখতে আসেন। এসময় তারা গাছের গায়ে কান পেতে রাখলে গাছের ভিতর থেকে আওয়াজ শুনতে পান বলে জানান।

এরপর থেকে অলৌকিভাবে গাছ কথা বলে-এমনটি অপ্রচারের ডালপালা ছড়াতে থাকে এলাকায়। বাতাসে ভাসতে ভাসতে তা এলাকার বাইরেও বেশ আলোড়ন তোলে। দলে দলে লোকজন আসতে থাকে, কেউ কেউ নানা মানতও করতে শুরু করেন। আর কিছু মিডিয়া বা ইউটিবার এটিকে সত্য প্রমাণ করার চেষ্টা চালিয়ে ভিউ পাবার চেষ্টা চালায়। 

লোকজনও চাঞ্চল্যকর এই সংবাদটিকে সত্য ভেবে আসতে থাকেন গর্জিনা গ্রামে গাছটিকে দেখার জন্য। গাছটি দেখতে গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, বরিশাল, ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে দলে দলে লোকজন এসে ভীড় করতে শুরু করে দেন।

স্থানীয় রাঘদি ইউপি মেম্বার সাদ্দাম হোসেন, রাঘদি গ্রামের লিয়াকত হোসেন, টেকেরহাট সোহেল মাতুব্বর, গর্জিনা গ্রামের ফরিদ মোল্লা সহ আগন্তুক ও কৌতুহলী মানুষ গাছের গায়ে কান পেতে কথা শোনার চেষ্টা করেন। শুধু বড়রাই নয়, কথা শোনার চেষ্টা করে শিশুরাও। এতে অনেক দর্শনার্থী গাছের কথা শুনতে পান দাবী করে এটি অলৌকিক বলে দাবী করেন।

গাছ কথা বলে এমনটি শোনার পর সাধারন মানুষ আসতে শুরু করলে একটি মহল গাছটির চারপাশে বাঁশ দিয়ে বেঁধে দেয়। পরে এটি একটি ব্যবসা উল্লেখ করে সেই বাঁশ ভেঙে দেয় কিছু স্থানীয় যুবক। গাছের গায়ে গোবর লেপার কারনে এক নারী অসুস্থ হয়ে পড়েছে বলেও দাবি করেন স্থানীয়রা। তবে অনেকেই গাছ কথা বলে একথা অস্বীকার করে এটি জ্বীনের কান্ড হতে পারে বলে জানান।

স্থানীয় মসজিদের ইমাম মাওলানা মোহাম্মদ বাদশা জানান, এধরনরে ঘটনাকে ইসলাম সমর্থন করে না। তবে জ্বীনকে গাছের মধ্যে আটকে রাখার কারনে এমনটি হয়তো হচ্ছে।

রাঘদি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাহিদুর রহমান টুটুল জানান, এটা নেহাতই ভুয়া। এটার কোন সত্বতা নেই। কিছু লোক এই গুজবকে সত্যি বলে প্রচারের চেষ্টা চালাচ্ছে। তবে স্বার্থান্বেশী কিছু হলো আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গোপালগঞ্জ সরকারী বঙ্গবন্ধু কলেজের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও সহযোগী অধ্যাপক শুকলাল বিশ্বাস জানান, গাছের প্রাণ আছে এটি সত্যি। তবে এটি চলাচল করতে পারে না, ভোকাল নাই, কথাও বলতে পারে না। এটিকে তিনি গুজব বলে আখ্যা দেন। কেন না কথা বলার বিষয়টি বিজ্ঞান সমর্থন করে না।


 

এসআর

×