ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১

ঢাকঢোল বাজিয়ে বট-পাকুড়ের বিয়ে

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঠাকুরগাঁও

প্রকাশিত: ২১:১৫, ১৯ জুন ২০২৪

ঢাকঢোল বাজিয়ে বট-পাকুড়ের বিয়ে

বালিয়াডাঙ্গীর ঝুকুরঝাড়ী গ্রামের শ্মশান ঘাটে বট ও পাকুড়গাছের বিয়েতে উপস্থিত এলাকাবাসী

শ্মশান ঘাটে চার বছর আগে একটি বটগাছ এবং দুই বছর আগে একটি পাকুড়গাছ লাগিয়েছিলেন স্থানীয় স্কুলশিক্ষক জীতেন চন্দ্র সিংহ। উদ্দেশ্যে ছিল শ্মশানে বটবৃক্ষ ছায়া দেবে এবং পাকুড়গাছের পাতা কাজে লাগবে মৃত ব্যক্তির শ্রাদ্ধের সময়। তবে কয়েক দিন আগে তিনি স্বপ্নে নির্দেশ পান সেই গাছ দুটোর বিয়ে দিতে হবে। এরপর স্বপ্নের কথা গ্রামবাসীকে জানান তিনি। পরে সবাই মিলে উৎসবমুখর পরিবেশে করে ফেললেন তার স্বপ্নপূরণ। 
এমন ঘটনা ঘটেছে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ধনতলা ইউনিয়নের ঝুকুরঝাড়ী গ্রামের শ্মশানঘাটে। মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকঢোল বাজিয়ে পাঁচ গ্রামের মানুষকে নেমনতন্ন করে উৎসবমুখর পরিবেশে বটগাছ আর পাকুড়গাছের বিয়ে দিয়েছেন হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন। হিন্দু ধর্মের রীতি অনুযায়ী বিয়ের আনুষ্ঠানিক কার্য সম্পাদন করেছেন ওই গ্রামের ঠাকুর জগদীশ চক্রবর্তী। বিয়েতে অতিথির তালিকায় ছিলেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, সাংবাদিকসহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ। 
দুই বৃক্ষের বিয়েতে আয়োজনের কোনো কমতি রাখেনি গ্রামের মানুষজন। কনে পাকুড়গাছের নামকরণ করা হয় স্বর্ণলতা, আর বর বটগাছের নামকরণ করা হয় গৌরব। 
রীতি অনুসারে, কনের বাবা ঝুকুরঝাড়ী গ্রামের কার্তিক চন্দ্র সিংহ করেন সব আয়োজন এবং বরের বাবার হাতে কন্যাদান করেন। অন্যদিকে বরের বাবা জীতেন চন্দ্র সিংহ গ্রহণ করে নেন পুত্রবধূকে। এ ছাড়া কন্যার সাত ভাই এবং বরের দুই ভাই-এক বোন বিবাহ অনুষ্ঠানে রীতির সব নিয়ম পূরণ করেন।

×