ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১

চিটাগাং চেম্বার সভাপতির দায়িত্ব নিলেন ওমর হাজ্জাজ

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস

প্রকাশিত: ২১:৫৮, ৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩

চিটাগাং চেম্বার সভাপতির দায়িত্ব নিলেন ওমর হাজ্জাজ

চিটাগাং চেম্বারের নবনির্বাচিত পরিচালকম-লী শুক্রবার দায়িত্ব গ্রহণ করেন

চিটাগং চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেছে ওমর হাজ্জাজ। বিদায়ী সভাপতি মাহবুবুল আলম (এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট) আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্বভার হস্তান্তর করেন নবনির্বাচিত সভাপতির কাছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চিটাগং চেম্বারের সাবেক সভাপতি এম এ লতিফ এমপি, সহ-সভাপতি রাইসা মাহবুব ও নতুন পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা। শুক্রবার চিটাগং চেম্বার সংযোগ বিভাগ এ তথ্য জানায়।
সংসদ সদস্য এম এ লতিফ বলেন, সারাদেশের অবকাঠামোগত বিনিয়োগের প্রায় ৩৪.৫ শতাংশ হয়েছে চট্টগ্রামে। চট্টগ্রামের ব্যবসা-বাণিজ্যের গুরুত্ব অনুধাবন করে এসব উন্নয়নের দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রী নিজকাঁধে নিয়েছেন। ফলে দেশী-বিদেশী বিনিয়োগকারীদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে চট্টগ্রাম। 
চিটাগাং চেম্বারের নতুন দায়িত্ব নেওয়া পরিচালকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, জাতীয় পর্যায়ে নেতৃত্ব তৈরিতে চিটাগাং চেম্বার অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে। বোর্ডে যারা দায়িত্ব নিয়েছেন তারা স্ব-স্ব ক্ষেত্রে অভিজ্ঞ। বক্তব্যে তিনি এই অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে ব্যবসায়ীদের পাশে থেকে দেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান। 
বিদায়ী সভাপতি ও নবনির্বাচিত এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম বলেন, দেশের রপ্তানির ৯৫ শতাংশ এবং আমদানির ৮৫ শতাংশ হয়ে থাকে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে। 
মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দরকে আগামী দিনের অর্থনৈতিক গেম চেঞ্জার বলা হচ্ছে। ভৌগোলিক ও অর্থনৈতিক কারণে চট্টগ্রামের গুরুত্ব দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এসব কারণে চিটাগাং চেম্বার দেশের অর্থনীতি ও পলিসি প্রণয়নের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে। তিনি নতুন নেতৃত্বকে অতীতের ধারাবাহিকতা রক্ষা করে চিটাগাং চেম্বারের ঐতিহ্য সমুন্নত রাখার আহ্বান জানান। 
নবনির্বাচিত সভাপতি ওমর হাজ্জাজ বলেন, সমৃদ্ধির স্বর্ণদ্বারখ্যাত বন্দরনগরী চট্টগ্রামে বিনিয়োগ ও শিল্পায়ন বৃদ্ধি, ব্যবসায়ীদের সমস্যা চিহ্নিতকরণে গবেষণা ও ব্যবসায়িক পরিবেশ তৈরিতে অংশীজনদের মতামতকে গুরুত্ব দেব আমরা। আমাদের বোর্ডে প্রায় ১৫-২০টি সেক্টরের ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারী রয়েছেন। 
এছাড়া চট্টগ্রামের অভিজ্ঞ ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীদের নিয়ে বিভিন্ন সাব-কমিটি গঠনের মাধ্যমে ব্যবসায়ীদের যে কোনো সংকট ও সমস্যা সমাধানে একসঙ্গে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন তিনি। অনুষ্ঠানে চেম্বার পরিচালক একেএম আক্তার হাসেন, মো. অহীদ সিরাজ চৌধুরী স্বপন, জহিরুল ইসলাম চৌধুরী আলমগীর, অঞ্জন শেখর দাশ, মো. রকিবুর রহমান টুটুল, মাহফুজুল হক শাহ, বেনাজির চৌধুরী নিশান, আলমগীর পারভেজ, নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন, ইঞ্জিনিয়ার ইফতেখার হোসেন, আবু সুফিয়ান চৌধুরী, মাহবুবুল হক, মোহাম্মদ আকতার পারভেজ, মো. রেজাউল করিম আজাদ, মোহাম্মদ আদনানুল ইসলাম, মোহাম্মদ মনির উদ্দিন, আখতার উদ্দিন মাহমুদ, মোহাম্মদ সাজ্জাদ উন নেওয়াজ ও ওমর মুক্তাদির, বিদায়ী পরিচালক মো. ওমর ফারুক ও মোহাম্মদ নাসিরুল আলম ফাহিম, নির্বাচন বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. নুরুন নেওয়াজ এবং সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

×