ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০

মুন্সীগঞ্জে কালবৈশাখী ফসলের ব্যাপক ক্ষতি

​​​​​​​স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ

প্রকাশিত: ২১:৩৯, ৩১ মার্চ ২০২৩; আপডেট: ২১:৪০, ৩১ মার্চ ২০২৩

মুন্সীগঞ্জে কালবৈশাখী  ফসলের ব্যাপক  ক্ষতি

শ্রীনগরের আটপাড়ার বাড়ৈগাঁও গ্রামে কালবৈশাখী ঝড়ে লন্ডভন্ড সূর্যমূখী খেত

কালবৈশাখী ঝড়ে কৃষকের সূর্যমূখীর খেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়া আলু, বোরো, ভুট্টা, সবজি ও কলাবাগানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। জলা কৃষি বিভাগ জানায়, জেলায় ৫২৭ হেক্টর জমির ফসলের বেশি ক্ষতি হয়েছে। তবে বেসরকারিভাবে এ পরিমাণ আরও বেশি বলে মনে করছে সংশ্লিষ্টরা। বৃহস্পতিবার রাতে দুই দফায় ঝড়-বৃষ্টিতে ফসলের এ ক্ষতি হয়। সূর্যমূখীর ফুলগাছ সব মাটিতে নুয়ে পড়েছে। শুক্রবার সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, উপজেলার  আটপাড়া, বাড়ৈগাঁও, বীরতারা, তিনটেক, হাঁসাড়া, আলমপুরসহ বিভিন্ন স্থানে সূর্যমুখীর চাষাবাদ করা হচ্ছে। কালবৈশাখীঝড়ে সূর্যমূখীর খেত লন্ডভন্ড হয়েছে। বাড়ৈগাঁও গ্রামের জুনায়েদ হোসেন নামে এক ক্ষতিগ্রস্ত উদ্যোক্তা বলেন, কালবৈশাখীর প্রভাবে জমির মাটিতে সূর্যমূখী ফুলগাছ হেলে পড়েছে। গাছে অসংখ্য অপরিপক্ব ফুল নষ্ট হয়েছে।

আটাপাড়া ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মসিউর রহমান জানান, নুয়ে পড়া ফুলগাছ রক্ষার জন্য বাঁশ খুঁটি দিয়ে দাঁড় করানোর পাশাপাশি জমির পানি নিষ্কাশনের জন্য পরামর্শ দিয়েছি।  শ্রীনগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শান্তনা রাণী পুতুল জানান, এবছর উপজেলাটি ৫ হেক্টর জমিতে সূর্ষমুখী চাষ হয়। এ সূর্যমুখী থেকে ৩ হাজার লিটারেরও বেশি ভোজ্যতেল উৎপাদনের আশা ছিল। কিন্তু প্রায় সবই নষ্ট হয়ে গেছে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপপরিচালক ওয়াহিদুজ্জামান জানান, এ কালবৈশাখীতে জেলায় ৫ দশমিক ৪০ হেক্টর জমির সূর্ষমুখী, ১৪৬ হেক্টর জমির বোরোধান, ১০৩ হেক্টর জমির আলু, ২৭১ হেক্টর জমির ভুট্টা, ১ হেক্টর জমির সবজি এবং ১ হেক্টর জমির কলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

×