ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ০২ মার্চ ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০

শিবচরে দুর্ঘটনায় ১৯ প্রাণহানি  

এক্সপ্রেসওয়েতে গতিসীমা লঙ্ঘন করায় ৮৪ মামলা 

নিজস্ব সংবাদদাতা, মাদারীপুর 

প্রকাশিত: ১৬:৩৭, ২৪ মার্চ ২০২৩

এক্সপ্রেসওয়েতে গতিসীমা লঙ্ঘন করায় ৮৪ মামলা 

গাড়ির গতি পর্যবেক্ষণ করছে পুলিশ সদস্য

মাদারীপুরের শিবচরে ইমাদ পরিবহনের যাত্রীবাহী বাস দুর্ঘটনায় ১৯ জনের প্রাণহানি পর হাইওয়ে পুলিশের তৎপরতা আরো বৃদ্ধি করা হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত আরো ১০টি যানবহনের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর মধ্যে একাধিক পরিবহন কোম্পানির ৩টি বাসও রয়েছে। 

গত ২০ মার্চ থেকে এক্সপ্রেসওয়েতে গতিসীমা লঙ্ঘন করায় মামলা অব্যাহত রয়েছে। দুর্ঘটনার পর ইমাদ পরিবহনের বাস গতিসীমা লঙ্ঘন করেই যাচ্ছে বৃহস্পতিবার ৯২ কিমি গতিতে ইমাম পরিবহনের একটি যাওয়ার সময় থামিয়ে ওই বাসের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। বাসটি ঢাকা থেকে ঘণ্টায় ৯২ কিলোমিটার গতিতে সাতক্ষীরা যাচ্ছিল। গতিসীমা লঙ্ঘনের অপরাধে বিভিন্ন যানবাহনের নামে গত ৫ দিনে ৮৪ মামলা করেছে শিবচর হাইওয়ে থানা পুলিশ।

শিবচর হাইওয়ে থানায় ওসি আবু নাইম মোহাম্মদ মোফাজ্জেল হক বলেন, গতিসীমা লঙ্ঘন করায় বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ১২টি মামলা করা হয়েছে। এর মধ্যে ইমাদ পরিবহনের একটি গাড়িও রয়েছে। 
এছাড়াও দুর্ঘটনার পরদিন সোমবার একই অপরাধে ২৫টি, মঙ্গলবার ২০টি ও বুধবার ১৭টি মামলা করা হয়েছে। 
সোমবার (২০মার্চ) থেকে শুক্রবার (২৪মার্চ) দুপুর ১টা পর্যন্ত গতিসীমা লঙ্ঘন করায় ৫দিনে মোট ৮৪টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আমরা এক্সপ্রেস হাইওয়ে স্টেট (সোজাসুজি) এলাকায় দাঁড়িয়ে পর্যবেক্ষণ করি। আমাদের দেখে গতিসীমা কমিয়ে দেয়। এরপর আমরা একটু আড়ালে পড়লেই তারা আবার গতি বাড়িয়ে গাড়ি চালায়। 
গতিসীমা লঙ্ঘনের অপরাধে গত ফেব্রুয়ারি মাসে ২৮৪টি মামলা করেছে হাইওয়ে পুলিশ। জানুয়ারিতে এ সংখ্যা ছিল ৩১৫টি।’ পুলিশের তৎপরতা বৃদ্ধির পরও এক্সপ্রেসওয়েতে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে চালকরা।

গেল রবিবার (১৯ মার্চ) ভোরে খুলনা থেকে যাত্রী নিয়ে ইমাদ পরিবহনের একটি বাস ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। পদ্মা সেতুর অদূরে ঢাকা-খুলনা এক্সপ্রেসওয়ের মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার কুতুবপুর এলাকায় বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে দুমড়ে-মুচড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই ১৪ জন নিহত হন। এ দুর্ঘটনায় অন্তত ৩০ জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, পাঁচ্চর রয়েল হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও শিবচরের বিভিন্ন হাসপাতালে ৫ জনের মৃত্যু হয়। 

 এসআর

×