ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১

যশোরে চিকিৎসাধীন তিন শিশুর মৃত্যু

হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে ঠাঁই নেই

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস

প্রকাশিত: ২৩:২৪, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে ঠাঁই নেই

আড়াইশ’ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে রোগী ও স্বজনদের ভিড়ে ওয়ার্ডে পা রাখার জায়গা নেই

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪৬ শিশু ভর্তি হয়েছে। এ সময় চিকিৎসাধীন  ৩ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। রোগী ও স্বজনের ভিড়ে ওয়ার্ডে পা রাখার জায়গা নেই। শয্যা সংকটের কারণে স্বজনরা শিশুদের নিয়ে ফ্লোরে থাকছেন। রোগীকে জায়গা দিতে না পেরে রেফার করতে বাধ্য হচ্ছেন চিকিৎসকরা।
শিশু বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, গত ৫/৭ দিন থেকে গরমের মাঝে শীত ও ঠান্ডা বাতাসের কারণে এবং ঋতু পরিবর্তন জনিত কারণে শিশুরা নিউমোনিয়া, ব্রঙ্কাইটিস, শ্বাসকষ্ট ও ঠান্ডাজনিত ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এছাড়া সাধারণ ঠান্ডাজ্বর, কাশি, শ্বাসকষ্টে অধিকাংশ মানুষ তাদের সন্তানদের হাসপাতালমুখী হচ্ছেন না। নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়া রোগী ভর্তি হচ্ছে বেশি।
এদিকে হাসপাতালে শিশু বিভাগে রোগীর চাপ বেড়ে যাওয়ার কারণে রোগীদের সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসক, সেবিকা ও কর্মচারীরা। এছাড়া হাসপাতালের বহির্বিভাগ ও চিকিৎসকদের ব্যক্তিগত চেম্বারেও এ ধরনের রোগীর সংখ্যা বেড়ে চলেছে। হাসপাতালে শিশু ওয়ার্ডে ২৪ বেড থাকলেও শনিবার সকাল ১০ টা থেকে রবিবার দুপুর পর্যন্ত ভর্তি হয়েছে ৭৪ শিশু।
ওয়ার্ডের রেজিস্ট্রার অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় নিউমোনিয়া, ব্রঙ্কাইটিস, শ্বাসকষ্ট ও ঠান্ডাজনিত ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে মোট ১৪৬  শিশু ভর্তি হয়েছে। এ সময় চিকিৎসাধীন ৩ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে পূর্বের ৯২জন এবং নতুন ৭৪ জন শিশু ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ সময় ২৩ শিশুকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছে ১২৩ শিশু। এর মধ্যে ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিট (নিউ নেটাল ব্লকে) রয়েছে ১০জন শিশু। নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশুদের ব্যাপারে চিকিৎসক- সেবিকা বেশি সতর্কতা অবলম্বন করছেন।
যশোর মেডিক্যাল কলেজের শিশু বিভাগের প্রধান প্রফেসর ডা. মাহাবুবুর রহমান জানান, শীতের আবহাওয়া বিদায়ের পথে। এছাড়াও ৫/৭দিন কখনো শীত কখনো গরম দেখা দেওয়ায় শিশুরা জ্বর ও ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে বেশি। এসব রোগে আক্রান্ত হলে শিশুরা ঘন ঘন নিঃশ্বাস নেয়। জ্বরের সঙ্গে খাবারে অরুচি থাকে এবং পালসও বেড়ে যায়। এসব শিশুর দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারলে কোনো সমস্যা হয় না। শিশুদের ঠান্ডা থেকে দূরে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।
হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ও শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. আব্দুস সামাদ জানিয়েছেন, এ সময় বাতাস শুকনো, তাই বাতাসে ধুলাবালি ছড়াচ্ছে। এছাড়া আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে রোগে আক্রান্ত হচ্ছে বেশি।
হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আখতারুজ্জামান বলেন, মৌসুম পরিবর্তনের কারণে শিশুদের মাঝে ঠান্ডা-কাশি-জ্বর দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে এ সময় শিশুদের ভাইরাসজনিত রোগ বাড়ে। এ রোগে আক্রান্ত শিশুর কাশি ও শ্বাসকষ্ট হয়ে থাকে। তিনি আরও বলেন, বর্তমানে হাসপাতালে শিশুদের ২৪ বেডের বিপরীতে মোট ১২৩ রোগী ভর্তি রয়েছেন। শিশু বিভাগে রোগীর চাপ বেড়ে যাওয়ার কারণে শিশু রোগীদের সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসক, সেবিকা ও কর্মচারীরা। অনেক রোগীকে জায়গা দিতে না পেরে রেফার করতে বাধ্য হচ্ছেন চিকিৎসকরা।

 

 

 

 

×