ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং

বাগেরহাটে ১৫ কি:মি: সড়কসহ ব্যাপক ক্ষতি 

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট 

প্রকাশিত: ২০:৩৮, ২৫ অক্টোবর ২০২২

বাগেরহাটে ১৫ কি:মি: সড়কসহ ব্যাপক ক্ষতি 

ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাঘাট

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের তান্ডবে উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটে অসংখ্য গাছপালা, ২হাজার ১৪০ টি কাঁচা-পাকা ঘরবাড়িসহ সড়ক-বাঁধ, ফসল ও মৎস্য সম্পদের ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ে বিভিন্ন এলাকায় গাছ পড়ে বৈদ্যুতিক খুঁটি ও সঞ্চালন লাইন মারত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফলে জেলার অধিকাংশ স্থানে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। ফসলের ক্ষেতসহ জেলার কমপক্ষে অর্ধশত গ্রাম জলমগ্ন হয়ে আছে।

সোমবার দুপুর থেকে থেকে জেলার গ্রাম থেকে শহর কোথাও বিদ্যুৎ ছিল না। তবে মঙ্গলবার দুপুরে বাগেরহাট শহরসহ কয়েকটি এলাকায় বিদ্যুৎ এলেও অধিকাংশ এলাকা গত ২৪ ঘন্টা ধরে বিদ্যুত বিচ্ছিন্ন হয়ে আছে। 

বাগেরহাট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সহকারি মহা-ব্যবস্থাপক (এজিএম) শরীফ আল মামুন ও সদর ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লি: বাগেরহাটের নির্বাহী প্রকৌশলী জিয়াউল হক জানিয়েছেন, দ্রুত লাইন মেরামত করে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করতে যথাসাধ্য চেষ্টা চলছে।

বাগেরহাট সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী ফরিদ উদ্দিন জনকণ্ঠকে জানান, সড়কের ওপর গাছ ভেঙ্গে যে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল, তা সড়ক বিভাগ ও ফায়ার বিগেডের যৌথ উদ্যোগে মঙ্গলবার দুপুরের মধ্যে অপসারণ করা হয়েছে। সিত্রাংয়ের আঘাতে ও অতি জোয়ারে এ জেলার বিভিন্ন সড়কের কমপক্ষে ১৫ কি:মি: সড়ক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। 

এ ব্যাপারে মাঠপর্যায়ে প্রাথমিক সংস্কার কাজ মঙ্গলবার সকাল থেকে শুরু হয়েছে।” দীর্ঘ মেয়াদী রক্ষণা-বেক্ষনের জন্য বরাদ্দ চেয়ে পত্র প্রেরণ করা হচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বাগেরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মাসুম বিল্লাহ জানান, বাগেরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে ২২০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ রয়েছে। এর মধ্যে বিভিন্ন এলাকায় নদী পাড়ের প্রায় অর্ধশত কিলোমিটার বাঁধ উপচে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করায় একাধিক স্থান ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। তা দ্রুত মেরামতের জন্য সকল প্রকার কাজ চলছে।

জেলা মৎস্য কর্মকর্ত এস.এম রাসেল বলেন, ঘুর্ণিঝড় সিত্রাং এর অঘাতে এবং ভরা আমাবশ্যায় নদনদীতে অস্বাভাবিক পানি হওয়ায় সাদাসোনা খ্যাত এ জেলার চিংড়িসহ মৎস্য সেক্টরে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতি নুরুপনে মাঠপর্যায়ে কাজ চলছে।”

অনুরূপ কৃষি ক্ষেত্রে ক্ষয়-ক্ষতির শঙ্কা প্রকাশ করেছেন জেলা কৃষ্টি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আজিজুর রহমান বলেন, আমন ও রবিশস্যের বেশ ক্ষতি হয়েছে। কমপক্ষে ১ হাজার ৩৮৫ হেক্টর জমির ধান ও সবজি প্লাবিত হয়েছে। তবে এখনই সঠিক হিসাব দেওয়া যাচ্ছে না।’

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আজিজুর রহমান জানান, যথাসময়ে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার গবাদীপশুসহ মানুষদের আশ্রয় কেন্দ্রে নেওয়ার কারণে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। 

তবে বৃষ্টির সাথে ঝড়ো বাতাসে এবং অতিজোয়ারের পানিতে জেলার নিম্নাঞ্চলে এখনও জলাবদ্ধতা রয়েছে। যা নিষ্কাশনে কাজ চলছে। এছাড়া ক্ষতিগ্রস্থ সড়ক ও বাঁধ দ্রুত মেরামতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে মনিটরিং করা হচ্ছে।’ 

 
 

এমএস

সম্পর্কিত বিষয়:

×