১ এপ্রিল ২০২০, ১৮ চৈত্র ১৪২৬, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

তরুণ প্রজন্মের জন্য কিছু কথা

প্রকাশিত : ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০
  • মোঃ ইয়াসিন আরাফাত সাগর

কাঠামোগত পড়াশোনা করে মানুষ যা শেখে, সততা আর শ্রম দিয়ে মানুষ তার থেকেও বেশি শেখে। কেউ আসে জয়ী হতে। কেউ আসে জয় করতে। যে জয়ী হয় সে অন্যকে হারিয়েই জয়ী হয়। আর যে জয় করে, সে নিজেও হারে না, অন্যকেও হারায় না। দৃঢ়ভাবে এগিয়ে যেতে হবে। পরিশ্রম করতে হবে। জানতে হবে কিভাবে পরিশ্রম করলে বড় হওয়া যায়। বুঝতে হবে কোন শ্রমটা আপনার জন্য। জীবনে যে সময়টা নিজেকে চাবুক মারার তখন চাবুক মারতে হবে। আর জীবনে চাবুক মারার অর্থ হলো কঠোর পরিশ্রম করা। একটা কথা কি আমরা কখনও ভেবে দেখেছি। আমরা আমাদের পিতা-মাতার অর্জন করা সম্পদ ব্যবহার করছি। বাপ-দাদার সম্পদ বেঁচে ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার হচ্ছি। এগুলো অর্জন করতে তাদের কতই না পরিশ্রম করতে হয়েছে।

অনেকের ভেতর বুদ্ধি ও কর্মোদ্যম থাকার পরেও কোন গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে না। কারণ তারা জীবনে লক্ষ্য নির্ধারণ করেননি। পাশাপাশি সৎ-সাহসী হতে হবে। কারণ সাহসীরাই ভাগ্যবান হয়। সাহসীরাই সৌভাগ্যের দেখা পায়। কারণ তারা নিজেদের ভাগ্য গড়তে জানেন। ঝুঁকি নিতে পারেন। অন্যরা যে কাজ ভয়ে এড়িয়ে যায়, করতে পারে না, সাহসীরা তা করে ফেলে এবং তারা সফল হয়। সমাজে তাকিয়ে দেখুন, যারা কুকুরের মতো চিৎকার করছে, সিংহের মতো গর্জন করছে, সাপের মতো ফোঁস করছে তারাই সফল হচ্ছে। এর অর্থ হলো- সাহসীরাই নেতৃত্ব দিচ্ছে। সাহসীরাই নির্মাণ করছে। সাহসীরাই নিজের পথ নিজে তৈরি করছে। দেখুন আমাদের জীবনের শুরুতে ঘুম। আবার শেষেও ঘুম। মাঝখানে ক্ষণিকের জন্য চোখ মেলে চাওয়াই জীবন। এ জীবনটা সময় দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। সময় কারও জন্য অপেক্ষা করে না। সময়ের মূল্য বুঝে আর মানুষকে মূল্যায়ন করেন যিনি তিনিই হন জগতের মাঝে সকলের তাজ। সময়কে যদি নিজের বশে আনতে পারেন, সাফল্য সে তো আপনারই জন্য। সেই সঙ্গে ঝুঁকি নিতে হবে।

এক জনের প্রচেষ্টাই অন্য জনকে চেষ্টা করতে উদ্বুদ্ধ করে। আর এক জনের চেষ্টায়ই অন্য জনের ভাগ্য তৈরির সহায়ক হয়। কারণ প্রতিটি মানুষই এক একটি পরিবার। এক জনের ভাগ্যের সঙ্গে আরও অনেকের ভাগ্য জড়িত থাকে। আপনার দ্বারা যদি এক জনের ক্ষতি হয়, তাহলে আরও অনেকের ক্ষতি হবে। আর কারও যদি উপকার হয়, তাহলে আরও অনেকের উপকার হবে। আমাদের প্রতিটি দিনই অনেক মূল্যবান। যদি না আমরা তা অর্জন করতে পারি বা মূল্য দিতে জানি। মনে রাখবেন কখনও ভয় পাবেন না। সৎ-সাহস রাখবেন। হেরে যাবেন, তবে লক্ষ্যহীন হবেন না। হতাশ হবেন না, আস্থা রাখবেন। দুঃখ আসবে তবে থেমে থাকবেন না, এগিয়ে যাবেন।

সাহায্য নেবেন না। আত্মনির্ভরশীল হবেন। নিন্দা করবেন না। প্রশংসা করবেন, গোপন করবেন না। স্পষ্টবাদী হবেন। রাগ করবেন না। ধৈর্য ধরবেন। সমালোচনা করবেন সৎভাবে। নিরপেক্ষ নয়। সত্যের পক্ষে থাকবেন। রাজনীতিকে ঘৃণা করবেন না। সুস্থ ধারার রাজনীতির চর্চা করবেন। আবেগ দিয়ে বিচার করবেন না। যুক্তি দিয়ে বিশ্লেষণ করবেন। অনুকরণ করবেন না। নিজে তৈরি করবেন। নিরাশ করবেন না। সৎ পরামর্শ দেবেন। করুণা করবেন না। সহযোগিতা করবেন। নিজে ভাল থাকাই না, সবাইকে নিয়ে ভাল থাকাই সার্থকতা। দেখুন পৃথিবীতে দামী চেয়ার অনেকেই কিনতে পারে, তবে সমাজের দামী চেয়ারে সবাই বসতে পারে না। সামাজিক হতে হবে। তাহলেই পরিবার সমাজ ও রাষ্ট্র উপকৃত হবে।

লেখক : তরুণ উদ্যোক্তা, চাঁদপুর

প্রকাশিত : ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০

১৮/০২/২০২০ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


শীর্ষ সংবাদ: