৩ এপ্রিল ২০২০, ২০ চৈত্র ১৪২৬, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

মামলায় কসাইসহ ৩ জনের যাবজ্জীবন ॥ ২ জনের কারাদণ্ড

প্রকাশিত : ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:০৪ পি. এম.
মামলায় কসাইসহ ৩ জনের যাবজ্জীবন ॥ ২ জনের কারাদণ্ড

নিজস্ব সংবাদদাতা, কিশোরগঞ্জ ॥ জেলার কুলিয়ারচরে একটি হত্যা মামলার সাক্ষীর পা কেটে ফেলার দায়ে তিনজনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদ- ও প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে অর্থদ- দিয়েছে আদালত। এছাড়া অপর দুই আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড এবং অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় মুক্তার, শিরু ও সামছু নামের তিন আসামিকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে। আজ রবিবার সকালে কিশোরগঞ্জের প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মুহাম্মদ আব্দুর রহিম আসামিদের উপস্থিতিতে উপরোক্ত রায় দেন। যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলো-কুলিয়ারচর উপজেলার ভাটি জগৎচর গ্রামের মৃত মজিদের ছেলে তাজুল ইসলাম (কসাই), একই গ্রামের মৃত রংগু মিয়ার দুই ছেলে গোলাপ মিয়া ও বিল্লাল মিয়া। এছাড়া একই গ্রামের আবু কালামকে তিন বছরের কারাদ-সহ পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা এবং এরশাদকে এক বছরের কারাদ-সহ পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছে আদালত।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, কুলিয়ারচর উপজেলার ভাটিজগৎচর গ্রামে ২০০৫ সালের ৭ ডিসেম্বর সকালে হাছেন আলী প্রধান (হাছু) হত্যা মামলার ১নং সাক্ষী মনির উদ্দিনকে জাফরাবাদ মোড়ের একটি চায়ের দোকান থেকে জোরপুর্বক ধরে নিয়ে যায় আসামিরা। পরে তাকে আসামীদের বাড়ির সামনের একটি চাতালে নিয়ে গাছের সঙ্গে হাত-পা বেঁধে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হাঁটুর নিচের বাম পা কেটে ফেলে। এ ঘটনার প্রায় দুই মাস পর ২০০৬ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি গুরুতর জখমী মনির উদ্দিনের বড় ভাই সিরাজ মিয়া বাদী হয়ে আটজনের নামাল্লেখ করে কুলিয়ারচর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে তদন্ত কর্মকর্তা ২০০৭ সালের ১০ নবেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জশীট দিলে আদালত দীর্ঘ শুনানী শেষে সোমবার উপরোক্ত রায় দেন। সরকার পক্ষে এপিপি আবু সাঈদ ইমাম এবং আসামি পক্ষে এ্যাডভোকেট ইফতেখার আহমেদ পাভেল মামলাটি পরিচালনা করেন।

প্রকাশিত : ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:০৪ পি. এম.

১৭/১১/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



শীর্ষ সংবাদ: