১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
 
সর্বশেষ

এনসিএলের শুরুতেই বৃষ্টি বাগড়া

প্রকাশিত : ১১ অক্টোবর ২০১৯
  • জাতীয় ক্রিকেট লীগের প্রথম ইনিংসে মাহমুদুল্লাহ, শফিউল, তাইজুল সফল, তামিম, মুমিনুল ব্যর্থ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ জাতীয় ক্রিকেট লীগের (এনসিএল) ২১তম আসর শুরু হয়েছে বৃহস্পতিবার। প্রথমদিন শেষও হয়েছে। লীগের শুরুতেই বৃষ্টি বাগড়া দিয়েছে। প্রথম স্তরের দুটি ও দ্বিতীয় স্তরের দুটি ম্যাচের মধ্যে দুই স্তরের একটি করে দুটি ম্যাচ হয়নি। প্রথম স্তরের খুলনা-রংপুর বিভাগ ও দ্বিতীয় স্তরের বরিশাল-সিলেট বিভাগের মধ্যকার ম্যাচের প্রথমদিন হয়নি। দুই স্তরের যে দুটি ম্যাচ হয়েছে তাও অর্ধেক হতে পেরেছে। ঢাকার দুটি ম্যাচই অর্ধেক করে হতে পেরেছে। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ঢাকা মেট্রো ও চট্টগ্রাম বিভাগের ম্যাচ ৫১ ওভার খেলা হয়েছে। ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে ঢাকা ও রাজশাহী বিভাগের ম্যাচ ৫১.৫ ওভার হয়েছে। এবার লীগে দুটি রাউন্ড খেলবেন জাতীয় দলের তারকা ক্রিকেটাররা। ভারত সফরের আগে এ লীগে তাদের দিকেই বিশেষ নজর থাকছে। প্রথম ইনিংসে ঢাকা মেট্রোর মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, রাজশাহীর শফিউল ইসলাম ও তাইজুল ইসলাম বল হাতে পাস মার্ক পেয়েছেন। তবে এনসিএল দিয়ে আবার ব্যাট হাতে ফিরে ফেল হয়েছেন চট্টগ্রামের ওপেনার তামিম ইকবাল। তামিমের সঙ্গে মুমিনুল হকও ব্যর্থ হয়েছেন।

তামিম, মুমিনুলকে বেশিদূর যেতে দেননি মাহমুদুল্লাহ ॥ বিশ্বকাপের পর যখন শ্রীলঙ্কা সফরেও ব্যর্থ হলেন বাংলাদেশ ওপেনার তামিম ইকবাল, তখন আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে একমাত্র টেস্ট এবং ত্রিদেশীয় টি২০ সিরিজে খেললেন না। তখন বিশ্রাম নিলেন। নিজেকে ফিট করে তোলার চেষ্টা করলেন। মানসিক জড়তা যা আছে তাও দূর করার চেষ্টা করে গেলেন। কিন্তু তা দূর হলো কোথায়। অনেক চেষ্টার পরও তো ৩০ রানের বেশি করা গেল না। প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ। চারদিনের ম্যাচ। টস জিতে চট্টগ্রাম আগে ব্যাটিং করল। তামিমও ব্যাট হাতে নামলেন। ১০৫ বলও খেললেন। কিন্তু মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ৩০ রানের বেশি করতে দিলেন না তামিমকে। কট এ্যান্ড বোল্ড করে সাজঘরে ফিরিয়ে দিলেন। শুধু তামিমকেই নয়, এরপর চট্টগ্রামের হারানো আরও দুটি উইকেট মাহমুদুল্লাহই শিকার করে নিলেন। ১১৩ রানের মধ্যে সাদিকুর রহমান, তামিম ও মুমিনুলকেও আউট করে দেন মাহমুদুল্লাহ। তামিম তাও ৩০ এর ঘরে পৌঁছাতে পারেন। মুমিনুলকে তো ১১ রানের বেশি করতেই দেননি মাহমুদুল্লাহ। চট্টগ্রামও শেষ পর্যন্ত ৩ উইকেট হারিয়ে ৫১ ওভারে ১৪৭ রানের বেশি করতে পারেনি। এরপর বৃষ্টিতে আর খেলাই হয়নি। প্রথম সেশন ঠিকমতো হলেও মাঝপথে একবার খেলা শুরু হয়েও আবার বন্ধ হয়। এরপর আর হয়নি। ওপেনার সাদিকুর রহমান ৫১ রান করেন। স্পিন ঘূর্ণি দেখিয়ে মাহমুদুল্লাহ ১৮ ওভার বোলিং করে ৫ মেডেনসহ ৪০ রান দিয়ে ৩ উইকেট শিকার করেন।

তাইজুল, শফিউলের বোলিং দ্যুতিতে বিধ্বস্ত ঢাকা ॥ খুব বেশি নয়, টস হেরে আগে ব্যাটিং করে প্রথম ইনিংসে প্রথমদিনে ৫১.৫ ওভার খেলতে পেরেছে ঢাকা। তাতেই দলের বারোটা বেজে গেছে। তাইজুল ইসলামের ঘূর্ণি জাদু (৪/৫৫) আর শফিউল ইসলামের (৩/৪০) গতির কাছে প্রথম ইনিংসে ঢাকা বিভাগের ব্যাটসম্যানদের হার মানতে হয়েছে। ১৩৪ রান করতেই ৭ উইকেট হারিয়ে বসেছে ঢাকা। এরপর আরও ৯ রান যোগ হতেই বৃষ্টি বাধা তৈরি করে। আর খেলা হয়নি। ওপেনার রনি তালুকদার (৬৩) যদি ব্যাট হাতে হাল না ধরতেন তাহলে হয়তো এই ওভারের মধ্যেই গুটিয়ে যেত ঢাকা। রাজশাহী যেন শুরুতেই মানসিকভাবে এগিয়ে গেল। তা সম্ভব হলো তাইজুল আর শফিউলের দুর্দান্ত বোলিংয়ে।

স্কোর ॥ প্রথমদিন শেষে

চট্টগ্রাম-ঢাকা মেট্রো দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচ- মিরপুরে ॥ চট্টগ্রাম প্রথম ইনিংস- ১৪৭/৩; ৫১ ওভার (তামিম ৩০, সাদিকুর ৫১, পিনাক ৩০*, মুমিনুল ১১, তাসামুল ১৭*; মাহমুদুল্লাহ ৩/৪০)।

ঢাকা ও রাজশাহী প্রথম স্তরের ম্যাচ- ফতুল্লায় ॥ ঢাকা প্রথম ইনিংস- ১৪৩/৭; ৫১.৫ ওভার (মজিদ ১০, রনি ৬৩, জয়রাজ ৩৫, রকিবুল ৮, শুভাগত ১, তাইবুর ১২*, শাকিল ৩; তাইজুল ৪/৫৫, শফিউল ৩/৪০)।

প্রকাশিত : ১১ অক্টোবর ২০১৯

১১/১০/২০১৯ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



শীর্ষ সংবাদ: