মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২২.৮ °C
 
২৬ মে ২০১৭, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

অপশক্তিরা সরকারের অগ্রযাত্রা ব্যহত করতে পারবে না : সংসদে বক্তারা

প্রকাশিত : ২৫ জুন ২০১৬, ০৩:৪২ পি. এম.

সংসদ রিপোর্টার ॥ প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকার ও বিরোধী দলের সংসদ সদস্যরা বলেছেন, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও প্রশাসনিক শৃঙ্খলা আনতে পারলেই প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়ন ও ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব হবে। বিএনপি-জামায়াতের সমালোচনা করে তাঁরা বলেন, মানুষ পুড়িয়ে হত্যার পর জনবিচ্ছিন্ন এই অপশক্তিরা এখন গুপ্তহত্যার মাধ্যমে দেশকে পিছিয়ে দেওয়ার ষড়যন্ত্র করছে। কিন্তু খালেদা জিয়াসহ বাংলাদেশের সকল অপশক্তি মিলে সম্মিলিতভাবে চেষ্টা করলেও প্রধানমন্ত্রীর অগ্রযাত্রাকে কোনভাবে ব্যহত করতে পারবে না।

স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এবং পরে ডেপুটি স্পীকার এ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি মিয়ার সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে শনিবার বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নেন শিক্ষামন্ত্রী নুুরুল ইসলাম নাহিদ, সরকারি দলের হুইপ আতিউর রহমান আতিক, আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন, ক্যাপ্টেন (অব.) এ বি তাজুল ইসলাম, সামসুল হক টুকু, শরিফ আহমেদ, আবুল কালাম মো. আহসানুল হক চৌধুরী, মাহমুদুস সামাদ চৌধুরী, হাজেরা খাতুন, মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, মকবুল হোসেন, রেজাউল হক চৌধুরী, রিফাত আমিন, হোসনে আরা বেগম, জাসদের শিরীন আকতার, লুৎফা তাহের, জাতীয় পার্টির এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, বেগম সালমা ইসলাম ও শওকত চৌধুরী। আলোচনা শেষে সংসদ অধিবেশন আজ রবিবার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত মুলতবি করা হয়।

আলোচনায় অংশ নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপিভূক্তি নিয়ে সংসদ সদস্যদের দাবির সঙ্গে একমত পোষণ করে বলেন, আমাদের সবারই দাবী এমপিওভূক্তিকরণ। আমরা জানি এটা একটা বড় সমস্যা। সমস্যা থাকলেও সমাধান বের করতে হবে। আমরা নানা বিকল্প প্রস্তাব তৈরি করছি এবং কোন না কোন পথ আমরা বের করবোই। এতে কোন সন্দেহ নেই। তিনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য বিশ্বমানের শিক্ষা ব্যবস্থা। শুধু জ্ঞান ও প্রযুক্তি দিয়ে মাথা ভর্তি করলে চলবে না, সেই সঙ্গে সৎ নিষ্ঠাবান, জনদরদী ভাল মানুষ তৈরি করতে হবে। তাহলেই সম্ভব দেশকে এগিয়ে নিয়ে বিশ্বে একটি মর্যাদাশীল জাতি হিসেবে গড়ে তোলা। তিনি বলেন, প্রযুক্তি শুধু ভাল কাজেই লাগে না, এটি বিপক্ষেও ব্যবহার হয়। কী প্রযুক্তি শিখলাম, ফেডারেল ব্যাংক থেকে আমাদের ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি হয়ে গেল। তাই আমাদের লক্ষ্য ভাল মানুষ ও দেশপ্রেমিক মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা।

সাইফুরস কোচিং-এর কড়া সমালোচনা করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে সাইফুর নামে একজন শিক্ষক আছেন, যিনি শিক্ষকতা ছেড়ে ব্যাপক কোচিং বাণিজ্য শুরু করেছেন। সে বিজ্ঞাপন দিয়ে বলেন, ভাল ইংরেজি শিখতে না পারলে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, শিক্ষক হতে পারবেনা। এমনকি হ্যাকারাও হতে পারবে না। একজন শিক্ষক বলছে, চোর হতে হবে! এই হচ্ছে অবস্থা। ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, আমরা কোন জায়গায় বসবাস করছি? একজন শিক্ষক বলছেন তুমি ভাল চোর হতে গেলেও আমার কাছে এসে পড়! এজন্য আমি দুর্নীতি দমন কমিশনকে আহ্বান জানিয়েছিলাম ব্যবস্থা নিতে। দুদদকে ধন্যবাদ সাইফুরসকে জবাব দিতে সমন পাঠিয়েছে।

ব্যাংকিংখাতের লুটপাটকে ‘সাগরচুরি’ বলে অভিহিত করায় অর্থমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, লুটপাটের সঠিক তথ্য দেওয়ার জন্য বিরোধী দলের পক্ষ থেকে অর্থমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই। এসময় তিনি নিজ দলেরই নেতা ও পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদেরও সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটকে উচ্চবিলাসী বলা হচ্ছে। আমি বলবো যার উচ্চবিলাস নেই, কল্পনা নেই- সে কিছুই দিতে পারে না। তবে বাজেটে অবশ্যই রাজনৈতিক দর্শণের প্রতিফলন থাকতে হবে। তবে এই বাজেট অনেক বেশি উচ্চবিলাসী। এক দিকে ঘাটতি, আরেক দিকে উচ্চবিলাস, এই দু’টোকে কীভাবে সমন্বয় করে সমতা আনবেন? সেব্যাপারে কোনো দিক নির্দেশনা বাজেটে নেই।

তিনি বলেন, ব্যাংকিং খাতে লুটপাট হয়েছে। এটাকে অনেকে বলে পুকুর চুরি। অর্থমন্ত্রী অবশ্য বলেছেন সাগর চুরি হয়েছে। এবার যে বাজেট উপস্থাপন করা হয়েছে তা রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও প্রশাসনিক শৃঙ্খলা আনতে পারলেই বাস্তবায়ন ও ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব হবে। তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি যখন সরকারে ছিল, তখন প্রশাসনিক বিকেন্দ্রিকরণ করে গ্রাম পর্যায়ে উন্নয়ন করা হয়েছিল। জাপা চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ উন্নয়নের যাত্রা শুরু করেন। তাই এদেশের মানুষের কাছে তিনি ইতিহাস হয়ে থাকবেন।

সাবেক মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এ বি তাজুল ইসলাম বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে ‘দুষ্ট-বিকৃত মানষিকতার লোক’ বলে মন্তব্য করে বলেন, আজ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, তখন ওনি (খালেদা জিয়া) আবার গুপ্তহত্যার ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছেন। ওনি অনেক ষড়যন্ত্র করেছেন। দুষ্ট প্রকৃতির মানুষ বলেই বিএনপি নেত্রী দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছেন। কিন্তু বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পেছনে পিছেনে ঐক্যবদ্ধ। তাই কোন অবস্থাতেই দেশের অগ্রযাত্রাকে ব্যহত করতে দুষ্ট প্রকৃতির খালেদা জিয়ার কোন ষড়যন্ত্র সফল হতে দেবে না। খালেদা জিয়া কেন, যত অপশক্তি বাংলাদেশে আছে তারা সকলে মিলে চেষ্টা করলেও প্রধানমন্ত্রীর অগ্রযাত্রাকে ব্যহত করতে পারবে না।

জাসদের একাংশের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আকতার বলেন, আজকে প্রবৃদ্ধি এবং উন্নয়নই আমাদের চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার জন্য প্রয়োজন হচ্ছে একটি রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা। যা কঠোরভাবে মোকাবেলা করবে খালেদা জিয়ার আগুন সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ ও যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষার করার সকল কর্মসূচি। তিনি বলেন, আমাদের কিছু কিছু বন্ধুরা বলার চেষ্টা করছেন, জাসদ বিভিন্ন জায়গায় সরকারের চাটুকারিতা করছে। আমি স্পষ্টভাবে তাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, জেনে-শুনে-বুঝেই খালেদা জিয়ার আগুন সন্ত্রাস, গুপ্তহত্যা আমরা মোকাবেলা করছি। আমরা ঐক্য করেছি আওয়ামী লীগের সঙ্গে। আজ ১৪ দলীয় শ্রেণী-পেশার ঐক্য বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে এক অনন্য দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছে। জঙ্গিবাদ ও গুপ্তহত্যাকান্ড ঘটিয়ে যারা দেশকে অচল করতে চায় তাদেরকে নির্মূল করার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শামসুল হক টুকু বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার জন্য ১৮ বার হামলা চালিয়েছে। ব্যর্থ হয়ে বিএনপি-জামায়াত ও কুলাঙ্গার তারেক রহমানরা এখন বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র সজীব ওয়াজেদ জয় ও দৌহিত্রা ব্রিটিশ এমপি টিউলিপকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছে। এদের কোন ক্ষমা হতে পারে না।

আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন বলেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালী জাতিকে স্বাধীনতা দিয়ে গেছেন, আর তাঁর কন্যা শেখ হাসিনা দেশবাসীকে অর্থনৈতিক মুক্তির পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবেই। কোন অপশক্তিই এ অগ্রযাত্রা রূখতে পারবে না।

জাতীয় পার্টির সালমা ইসলাম বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে মানুষের পকেট থেকে কীভাবে অর্থ নেবে সেই কথা উল্লেখ রয়েছে, কিন্তু জনগণ কীভাবে সেই অর্থ আয় করবে সেকথার উল্লেখ নেই। ব্যবসায়ীদের মুখের হাসি কেড়ে নিয়েছে এই বাজেট। প্রায় ৮ লাখ কোটি কালো টাকা পড়ে আছে, বেশিরভাগ পাচার হয়ে যাচ্ছে। এই কালো টাকা বিনিয়োগের ব্যবস্থা করতে হবে।

প্রকাশিত : ২৫ জুন ২০১৬, ০৩:৪২ পি. এম.

২৫/০৬/২০১৬ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

জাতীয়



শীর্ষ সংবাদ: