২২ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

দলীয়ভাবে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্য বৃদ্ধি পাবে॥ সাখাওয়াত


স্টাফ রিপোর্টার ॥ দলীয়ভাবে স্থানীয় সরকার নির্বাচন অযৌক্তিক নয়, তবে এতে মনোনয়ন বাণিজ্য বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করেন সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার (অব) এম সাখাওয়াত হোসেন। তিনি বলেন, দলীয়ভাবে স্থানীয় নির্বাচন রাজনৈতিক দলের জন্য ভাল চর্চা হলেও বাংলাদেশে এখনও সে পরিবেশ গড়ে ওঠেনি। কোন রকম আলোচনা ছাড়াই সরকার এতবড় একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। দলীয়ভাবে স্থানীয় নির্বাচন করতে গেলে টাকার খেলা বৃদ্ধি পাবে। অনেকেই নমিনেশন কেনার জন্য উচ্চহারে টাকা ঢালবে। এটা বন্ধ করাই বড় চ্যালেঞ্জ।

সোমবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে বাংলাদেশের নির্বাচন প্রেক্ষাপট শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে সাবেক এই নির্বাচন কমিশনার এসব কথা বলেন। ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের উদ্যোগে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়।

রাজনৈতিক দলগুলোকে আয়-ব্যয়ের সঠিক তথ্য প্রকাশের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, কোন্ পার্টির কী আয় হচ্ছে আর কী ব্যয় হচ্ছে তা দেখতে হবে এবং জানতে হবে। গণতন্ত্রের জন্য তা খুব গুরুত্বপূর্ণ।

সাখাওয়াত হোসেন আরও বলেন, নির্বাচন কমিশনের মূল দায়িত্ব ভোটার যেন ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করে নিরাপদে বাড়ি ফিরতে পারেন সেটা নিশ্চিত করা। এজন্য কাঠামোগত ফোর্স থাকা দরকার।

আলোচনায় অংশ নিয়ে দ্য এশিয়া ফাউন্ডেশনের আবাসিক প্রতিনিধি হাসান এম মজুমদার বলেন, স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন না হলে গণতন্ত্র বিনষ্ট হয়। সুষ্ঠু নির্বাচন না হলে দেশে অব্যাহতভাবে নির্বাচনপরবর্তী সহিংসতা দেখা দেয়। পূর্বপরিকল্পিত নির্বাচন করার সব রকমের ব্যবস্থা থাকা অবশ্যক। বর্তমানে যে নির্বাচন কমিশন আছে তারা স্বচ্ছ ও সক্ষম।

এ্যাডভোকেট রোকসানা খন্দকার বলেন, দেশে যে নির্বাচনী আইন রয়েছে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তা বাস্তবায়িত হতে দেখা যায় না। শুধু নির্বাচন পর্যবেক্ষণ নয়, এখন সময় এসেছে নির্বাচনী তথ্য-উপাত্তও পর্যালোচনা করে দেখার। নির্বাচন কমিশন ভোটারদের ভোটার সিøপ বা ভোটার নম্বর প্রদানে ব্যর্থ, জনগণ এ বিষয়ক তথ্য জানতেই পারছে না। এর সুযোগ নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলোও ফায়দা লুটছে।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপের পরিচালক ড. মোঃ আব্দুল আলিম। মূল প্রবন্ধে তিনি বলেন, বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন এখনও শক্তিশালী কাঠামো হিসেবে গড়ে ওঠেনি। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে না পারলে ইসি শক্তিশালী হয় না। সরকারের অধীনে নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে হলে নির্বাচনকালীন কেন্দ্রীয় সরকারকে অকার্যকর করতে হবে। মূল শক্তি নির্বাচন কমিশনকে দিতে হবে। তাহলেই কেবলমাত্র নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব। একই সঙ্গে নির্বাচনকালে জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) ব্যবহার না করে নির্বাচন কমিশনের নিজস্ব শক্তি প্রয়োগ করার সুপারিশ জানানো হয় মূল প্রবন্ধে।

জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষণ পরিষদের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লার সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেনÑ দ্য এশিয়া ফাউন্ডেশনের আবাসিক প্রতিনিধি হাসান এম মজুর প্রমুখ।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: