মেঘলা, তাপমাত্রা ৩১.১ °C
 
২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ৫ আশ্বিন ১৪২৪, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

বাগেরহাট ও বাঁশখালীতে বেহাল সড়ক

প্রকাশিত : ২ সেপ্টেম্বর ২০১৫
  • লাল কাপড় টাঙিয়ে দেখানো হচ্ছে বিপদ সঙ্কেত

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ বাগেরহাটের চিতলমারীতে সদর বাজারের প্রধান সড়কটি খানাখন্দে এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। সংস্কারের মাত্র কয়েক দিনের মাথায় রাস্তার এমন বেহাল দশার কারণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে এলাকাবাসী। সড়কটির মাঝে বড় বড় গর্ত তৈরি হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন ও পথচারী। বিপদ সঙ্কেত হিসাবে লাল কাপড় টানিয়ে দেয়া হয়েছে। এ অবস্থায় চরম দুুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে পথচারীদের।

ক্ষোভে অনেকে এসব গর্তে ‘মাছ চাষ’ করছেন।

ভুক্তভোগীরা জানান, চিতলমারী সদর বাজারের প্রধান সড়কটি সংস্কারের মাত্র কয়েক দিনের মাথায় বড় বড় খানাখন্দের সৃৃষ্টি হয়েছে। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় সড়কটি চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় প্রতিদিন এ সড়ক দিয়ে শত শত যানবাহন ও লোকজন ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। সড়কের এসব গর্তে বাস, ট্র্রাকসহ যানবাহন আটকে পড়ায় বিপদ সঙ্কেত হিসেবে লাল কাপড় টাঙিয়ে দেয়া হয়েছে। এ পরিস্থিতির কারণে প্রতিনিয়ত বেড়ে চলছে দুর্ঘটনা। স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী ও সাধারণ লোকজন খুবই ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। ক্ষুব্ধ এলাকাবাসীর ভাষায়, এসব দেখার কেউ নেই।’

চিতলমারী সদর বাজারের ব্যবসায়ী সাফায়েত হোসেন মানিক শেখসহ অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, মাত্র কিছুদিন আগে সড়কটি মেরামত করা হয়েছে। মেরামতের দুই সপ্তাহ যেতে না যেতে এ ধরনের পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে চলাচলের কোন উপায় নেই। সড়কের বেহাল দশার কারণে কোন যানবাহন সদর বাজারে ঢুকতে চাযনা। গ্রাম থেকে লোকজন হাট-বাজারে আসতে অশেষ দুর্ভোগে পড়ছেন। উপজেলা মোড় থেকে পুুরনো ব্র্রিজ পর্যন্ত ভ্যান ভাড়া দ্বিগুণ হয়েছে। এতে বেকায়দায় পড়েছে সাধারণ মানুষ।

নিজস্ব সংবাদদাতা বাঁশখালী থেকে জানান, চট্টগ্রামের বাঁশখালী পৌরসভার অধিকাংশ অভ্যন্তরীণ সড়ক পড়ে আছে অযতœ অবহেলায়। যার ফলে এলাকার সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে ছাত্রছাত্রীদের যাতায়াতে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। অধিকাংশ সড়ক ভেঙ্গে খানাখন্দে পরিণত হয়েছে। সড়কের বেহাল দশায় চলাচলে দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে জনজীবন। দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় পৌরবাসীর মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। বর্ষায় ভারি বৃষ্টি, পাহাড়ী ঢল ও বন্যার ফলে সড়কের ইট ও কংক্রিট সরে গিয়ে আরো ক্ষতবিক্ষত হয়ে চরম আকার ধারণ করেছে। তাছাড়া এসব রাস্তা দিয়ে ভারি যানবাহন চলাচল করায় কিছু অংশে সৃষ্টি হয়েছে বড় আকারের গর্তের।

এলাকার সাধারণ জনগণ অভিযোগ করে বলেন, পৌরসভা এলাকায় রাস্তাঘাটের এসব অবস্থা দুঃখজনক।

দীর্ঘদিন অবহেলিত অবস্থায় পড়ে থাকায় দিন দিন সৃষ্টি হচ্ছে বড় বড় গর্তের। অনুপযোগী হয়ে পড়েছে যান চলাচলে। এ ছাড়াও সামান্য বৃষ্টি হলেই এসব রাস্তাগুলো জল-কাদায় একাকার হয়ে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছেলেমেয়ে ও সাধারণ লোকজনের যাতায়াতে দুর্বিষহ হয়ে ওঠে। দীর্ঘদিন ধরে এভাবে পড়ে থাকলেও পৌর প্রশাসনের নজরদারির অভাবে এসব রাস্তা দিয়ে যাতায়াতকারীদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে

প্রকাশিত : ২ সেপ্টেম্বর ২০১৫

০২/০৯/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



শীর্ষ সংবাদ: