১৯ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৭ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

জিম্বাবুইয়ে-ভারত দ্বিতীয় ওয়ানডে আজ


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ জিম্বাবুইয়ে সফরে প্রথম ওয়ানডেতে ধাক্কা খেতে বসেছিল ভারত। ২৫৫ রান করে সাবেক চ্যাম্পিয়নরা ম্যাচটা জিতেছে ৪ রানে! দলের চেহারা দেখে অবশ্য ‘সাবেক চ্যাম্পিয়ন’ বলতে বাঁধে! মহেন্দ্র সিং ধোনি-বিরাট কোহলির মতো সব তারকা ক্রিকেটারের বিশ্রামে যেখানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন অজিঙ্কা রাহানে। এক ম্যাচ হাতে রেখে তিন ওয়ানডের সিরিজটা পকেটে পুরতে চাইলেও আজ দ্বিতীয় লড়াইয়ে তাই যথেষ্ট সতর্ক তারা। ‘জিম্বাবুইয়ে ধুরন্ধর প্রতিপক্ষ। কিন্তু প্রথম ওয়ানডেতে আড়ইশ’র ওপরে স্কোর গড়েও জয়ের জন্য এতটা বেগ পেতে হবে ভাবিনি। সুতরাং আমাদের আরও ভাল করতে হবে, স্কোর বোর্ডে বড় রান জমা করতে হবে। আশা করছি এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জয় সম্ভব।’ বলেন রাহানে।

হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে আসলেই মাইনকার চিপায় পড়তে যাচ্ছিল মোড়লরা! এক পর্যায়ে ৮৭ রানে ৫ উইকেট পড়া সত্ত্বেও ম্যাচের নায়ক আমবাতি রাইডুর অসাধার সেঞ্চুরির (১২৪*) ওপর ভর করে ২৫৫ রান করে ভারত। জবাবে ৭ উইকেটে ২৫১Ñএ থামে স্বাগতিকরা। জয়ের জন্য শেষ ওভারে ১০ রান প্রয়োজন ছিল তাদের, কিন্তু ভুবনেশ্বর কুমারের ৬টি বল থেকে ৫ রানের বেশি নিতে পারেনি জিম্বাবুইয়ে। ১০৪ রানের হার না মানা সেঞ্চুরির ইনিংস খেলেও হারের কষ্ট নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় অধিনায়ক এলটন চিগম্বুরাকে। এজন্য অবশ্য টপ-অর্ডার ব্যাটসম্যানদেরই দূষছেন তিনি। বলেছেন, সিরিজে সমতায় ফিরতে আরও দায়িত্বশীল ব্যাটিং করতে হবে। অধিনায়ক ছাড়া ব্যাট হাতে আর কেউই সুবিধা করতে পারেননি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৭ রান সিকান্দার রাজার।

ক্লোজ ম্যাচে জয়ের পরও যথারীতি মহেন্দ্র সিং ধোনিকে স্মরণ করেছেন রাহানে। বলেছেন ধৈর্য্যরে বিষয়টা তার কাছ থেকেই পাওয়া। ‘আমি প্রথমত মহেন্দ্র সিং ধোনির কাছ থেকে শিখেছি, কি করে মাথা ঠা-া রাখতে হয়। ও যেকোন পরিস্থিতিতে অদ্ভুতভাবে শান্ত থাকতে পারে। আমার মনে হয় নেতৃত্বের জন্য এই গুণটা খুবই জরুরী।’ লজ্জার বাংলাদেশ সফরে একাদশ নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সমালোচিত হয়েছিলেন ধোনি। রাহানেকে বাইরে রেখে নেয়া হয়েছিল রাইডুকে। মজার বিষয়, জীবনের সেরা ইনিংস খেলার সেই তিনিও ধোনকে স্মরণ করেছেন। ‘যেকোনো কঠিন পরিস্থিতিতে কীভাবে সামলাতে হয়, কীভাবে ম্যাচ নিয়ন্ত্রণে রাখতে হয়, সেটি ধোনির কাছ থেকেই শিখেছি আমি।’

প্রসঙ্গে রাইডু আরও যোগ করেন,‘গত চার-পাঁচ বছর এমন পরিস্থিতির মধ্যে আইপিএল ব্যাটিংয়ে অনেক অভিজ্ঞতা হয়েছে। ভারতীয় দলেও দু’বছর হয়ে গেল। ড্রেসিং রুমে আমরা অনেকটা সময় কাটিয়েছি। সেখানে বসেই ধোনি ভাইকে এমন চাপের মধ্যে ব্যাটিং করতে দেখেছি। মন দিয়ে তাঁর খেলা দেখলে অনেক কিছু শেখা যায়। এই শিক্ষাটা মাঠে নিয়মিত কাজে লাগাতে চাই।’ ৩০ ওয়ানডেতে ৯১১ রান করে ফেলেছেন রাইডু। ৫ হাফ সেঞ্চুরি সঙ্গে সেঞ্চুরি ২টি। এদিন ৮৭ রানে ৫ উইকেট পড়ে যাওয়ার পরও বেশ চাপের মধ্যে দলকে ফাইট দেয়ার মতো স্কোর এনে দেন। করেন সেঞ্চুরি। ধোনির নেতৃত্বাধীন সেরা একাদশে নিয়মিত সুযোগ পাওয়া নিয়ে তিনি বলেন,‘আমি নিজের জন্য কোন মাইলস্টোন তৈরি করিনি। এতে অনেক বেশি চাপমুক্ত থাকা যায়। সতীর্থদের খেলা উপভোগ করতে ভালবাসি। আর সুযোগটা কাজে লাগানোর অপেক্ষায় থাকি।