ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

 ‘সিত্রাং’ হলো যেভাবে

প্রকাশিত: ১৭:১৩, ২৪ অক্টোবর ২০২২

 ‘সিত্রাং’ হলো যেভাবে

ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’

ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’ ধেয়ে আসছে বাংলাদেশের দিকে। মঙ্গলবার ভোরে এটি ঘণ্টায় ৯০ থেকে ১১০ কিলোমিটার বেগে উপকূলে আঘাত হানতে পারে।

ভারত মহাসাগরের উত্তরাঞ্চলে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণে একটি কমিটি রয়েছে। বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার অধীনে ওই কমিটিতে রয়েছে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানসহ ১৩টি দেশ। ১৩ দেশের সংস্থার নাম এস্কেপ। সংস্থাটি ২০২০ সালেই ১৬৯টি ঘূর্ণিঝড়ের নাম ঠিক করে রাখে। 

সেই তালিকা থেকে এবারের ঘূর্ণিঝড়ের নাম দেওয়া হয় ‘সিত্রাং’। এই নামটি থাইল্যান্ডের দেওয়া। যার ভিয়েতনামি অর্থ ‘পাতা’। আবার ‘সিত্রাং’ থাইল্যান্ডের বাসিন্দাদের পদবিও।

সিত্রাংয়ের পরে যেই ঘূর্ণিঝড় আসবে সেটির নাম হবে ‘মন্দোস’। এই নামটি দিয়েছে সৌদি আরব। মন্দোসের পরের ঘূর্ণিঝড়ের নাম হবে ‘মোচা’। এই নামটি দিয়েছে ইয়েমেন।

তবে সব ঝড়ই কিন্তু নাম পায় না। সমুদ্রে সৃষ্ট কোনো ঝড়ের গতিবেগ যখন ঘণ্টায় ৩৯ মাইলের বেশি হয়, তখন সেটির নাম দেওয়া হয়। এ ছাড়া ঝড়ের গতিবেগ ঘণ্টায় ৭৪ মাইল ছাড়িয়ে গেলে সেটি হারিকেন, সাইক্লোন, বা টাইফুন হিসেবে ভাগ করা হয়।

এমএস

সম্পর্কিত বিষয়:

×