ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১

কলম্বিয়া-উরুগুয়ে ফাইনালে ওঠার লড়াই

মো. মামুন রশীদ

প্রকাশিত: ০০:৫৫, ১০ জুলাই ২০২৪

কলম্বিয়া-উরুগুয়ে ফাইনালে ওঠার লড়াই

কলম্বিয়ার সাফল্যের অন্যতম দুই কারিগর অধিনায়ক জেমস রদ্রিগুয়েজ (বাঁয়ে) ও ফরোয়ার্ড লুইস দিয়াজ

২৩ বছর আগে কলম্বিয়া এবং ১৩ বছর আগে উরুগুয়ে সর্বশেষবার কোপা আমেরিকার প্রতিযোগিতায় ফাইনাল খেলেছে। এবার যে কোনো একটি দলের পক্ষে ভাগ্যের শিঁকে ছিঁড়বে। কারণ দুই দল পরস্পরের মুখোমুখি হচ্ছে এবার সেমিফাইনালে। যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারোলিনায় ব্যাঙ্ক অব আমেরিকা স্টেডিয়ামে ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে বাংলাদেশ সফর অনুসারে বৃহস্পতিবার ভোর ৬টায় মুখোমুখি হচ্ছে কলম্বিয়া-উরুগুয়ে। লাতিন আমেরিকার বিশ^কাপ খ্যাত কোপায় এবার প্রতিপক্ষদের রীতিমতো নাজেহাল করেই দাপটের সঙ্গে সেমিতে পা রেখেছে দুই দল। ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ও সাম্প্রতিক পারফর্ম্যান্সেও বেশ কাছাকাছি অবস্থানে কলম্বিয়া ও উরুগুয়ে। সেই কারণে জমজমাট আরেকটি লড়াইয়ের অপেক্ষায় লাতিন ফুটবলপ্রেমীরা। 
বর্তমানে ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে ১২ নম্বরে আছে কলম্বিয়া। বেশ দাপটের সঙ্গেই এবার কোপা আমেরিকায় খেলছে তারা। ব্রাজিলের মতো দলের সঙ্গে একই গ্রুপে খেলে উঠে এসেছে দলটি। অথচ সেই ডেথ গ্রুপ ‘ডি’ থেকে তারা শীর্ষস্থান নিয়েই কোয়ার্টার ফাইনালে পা রাখে। টানা ২৭ ম্যাচ অপরাজিত কলম্বিয়া। ৬ ড্র করে জিতেছে ২১টি। এমনকি জার্মানি, স্পেন, ব্রাজিলকেও হারিয়েছে। উরুগুয়ের সঙ্গে সর্বশেষ সাক্ষাতে গত বছর অক্টোবরে নিজ দেশে ২-২ গোলে ড্র করে কলম্বিয়া।

গত বিশ^কাপে খেলার সুযোগ পায়নি তারা, বাছাই থেকে বাদ পড়ে এবং এরপর দায়িত্ব নিয়ে আর্জেন্টাইন কোচ নেস্টর লরেঞ্জো দুই বছরে পাল্টে দিয়েছেন কলম্বিয়ার ফুটবলকে। ৭ বছরেরও বেশি সময় (২০১২-২০১৯) দেশটির জাতীয় দলের সহকারী কোচ থাকার কল্যাণেই জুনিয়র ও সিনিয়র পর্যায়ের ফুটবলারদের বেশ ভালোভাবেই জানা তার। সেজন্যই হয়তো লরেঞ্জোর অধীনে এত ভালো করছে কলম্বিয়া। একবারই কোপা জিতেছে তারা ২০০১ সালে এবং সর্বশেষবার সেমি ডিঙ্গাতে পারেনি ঠিকই, তৃতীয় হয়েছে।

এবার উরুগুয়ের বিপক্ষে জিতে ২৩ বছর পর ফাইনালে ওঠার মোক্ষম সুযোগ এবার ফর্মের তুঙ্গে থাকা কলম্বিয়ার। উরুগুয়ের সঙ্গে অবশ্য ৪৫ বার মুখোমুখি হয়ে ২০ বারই হেরেছে তারা, জিতেছে মাত্র ১২টি আর ড্র ১৩টি। আক্রমণভাগের চালিকাশক্তি হিসেবে লুইস ডায়াজ, অধিনায়ক জেমস রদ্রিগুয়েজ যেমন আছেন তেমনি  মিডফিল্ডে রিচার্ড রিওস গতিতে প্রতিপক্ষের জন্য ত্রাস। তাই পানামাকে কোয়ার্টারে ৫-০ ব্যবধানে বিধ্বস্ত করে সেমিতে উঠেছে তারা। উরুগুয়েরও সময়টা বেশ ভালোই যাচ্ছে।

গ্রুপ পর্বে ৩টিতেই দাপটের সঙ্গে জিতে কোয়ার্টারে উঠেছে তারা। এরপর হট ফেভারিট ব্রাজিলকে টাইব্রেকারে ৪-২ গোলে হারিয়ে নিজেদের শক্তি প্রদর্শন করে সেমিতে ওঠে। এই মুহূর্তে ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের ১৪ নম্বরে থাকা উরুগুয়ে সর্বাধিক ১৫টি শিরোপা জিতেছে কোপায়। কিন্তু সর্বশেষ শিরোপাটি ১৩ বছর আগে। সর্বশেষ ১৮ ম্যাচে মাত্র একটাই হেরেছে তারা গত বছর সেপ্টেম্বরে বিশ^কাপ বাছাইয়ে ইকুয়েডরের কাছে ২-১ গোলে।

৩টি ড্র ও ১৪টি জয় আছে তাদের। এবারের কোপায় দুর্দান্ত খেলছে দলটি। মেক্সিকো, বলিভিয়া ও পানামাকে রীতিমতো উড়িয়ে দিয়েছে তারা। এবার লুইস সুয়ারেজ থাকলেও তেমন ফর্মে নেই। কিন্তু আক্রমণভাগে ডারউইন নুনেজ, অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার ডে লা ক্রুজ ও ম্যাক্সিমিলিয়ানো আরুজো বেশ ফর্মে আছেন। কোচ মার্সেলো বিয়েলসার শিষ্যরা এবার ১৩ বছর পর ফাইনালে উঠতে মুখিয়ে আছে।

×