ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১

এ কি বললেন টাইগার অধিনায়ক শান্ত!

স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০১:০৯, ২৬ জুন ২০২৪

এ কি বললেন টাইগার অধিনায়ক শান্ত!

শান্ত

এবার টি২০ বিশ্বকাপে মন ভরাতে পারেনি বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। তবু সুপার এইটে ওঠার পর সবাই স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন। কিন্তু প্রথম দুই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের কাছে হেরে সেমিফাইনালে ওঠার আশা প্রায় শেষই হয়ে যায়। সেই আশা পুরোটাই জেগে ওঠে আফগানিস্তানের বিপক্ষে। কিন্তু ১১৬ রানের টার্গেট ১২.১ ওভারে ছুঁতে হবে- এই সমীকরণে দলের অদ্ভুত পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত।

৮ রানে হেরে যাওয়ার পর ম্যাচশেষে তিনি জানিয়েছেন, তাদের পরিকল্পনা ছিল ১২.১ ওভারের মধ্যে ম্যাচ জেতার চেষ্টা করা, কিন্তু সেটি প্রথম ৬ ওভার পর্যন্ত। কিন্তু দ্রুত ৩ উইকেট হারালে সেমির আশা বাদ দিয়ে শুধু জেতার চেষ্টা করেছে দল। তার এমন বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে রীতিমতো সমালোচনার ঝড় তুলেছে। সুপার এইটে ৩ ম্যাচই হেরেছে বাংলাদেশ নেতিবাচক মনোভাব নিয়ে খেলে। কারণ এই পর্বকে বাংলাদেশের জন্য বোনাস বলে দাবি করেন প্রধান কোচ চান্দিকা হাতুরুসিংহে। এখন টানা ৩ ম্যাচ হেরে যাওয়ার পর শান্ত সমর্থকদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন।

বিশ^কাপে কোনোক্রমে সুপার এইটে উঠতে পারলেও দলের নেতিবাচক মনোভাব ভক্ত-সমর্থকদের মনে বিরক্তি সৃষ্টি করেছে ও সমালোচনার ঝড় তুলেছে। আফগানিস্তানের কাছে হেরে এবারের বিশ^কাপ মিশন শেষ হওয়ার পর অধিনায়ক শান্ত বলেছেন, ‘বিশ্বকাপের পুরো যাত্রা সম্পর্কে বলব, আমরা দল হিসেবে বাংলাদেশের সব সমর্থককে হতাশ করেছি। যারা আমাদের খেলা অনুসরণ করেন, সবসময় অনুসরণ করেন তাদের আশাহত করেছি। আমি দলের পক্ষ থেকে ক্ষমা চাইছি।’ বিশেষ করে দলের ব্যাটিং নিয়েই সবচেয়ে ভুগেছে বাংলাদেশ।

কোনো ব্যাটারই ভালো করতে পারেননি এই বিশ^কাপে। এ বিষয়ে শান্ত বলেন, ‘আমরা ব্যাটিং গ্রুপ হিসেবে দেশের মানুষকে ভালো কিছু দিতে পারিনি। এটার জন্য আমরা দুঃখবোধ করছি। সামনের দিকে আমাদের এটাই চেষ্টা থাকবে, কীভাবে এখান থেকে বের হয়ে আসতে পারি।’ এই ব্যাটিং মনোভাবের কারণেই সেমিফাইনালে যাওয়ার সুযোগ হাতছাড়া হয়েছে। আফগানদের দেওয়া ১১৬ রানের টার্গেট ১২.১ ওভারে ছুঁতে পারলেই সেমিতে উঠতো বাংলাদেশ।

এ বিষয়ে শান্ত বলেছেন, ‘পরিকল্পনাটা এমন ছিল যে আমরা প্রথম ৬ ওভার চেষ্টা করব। পরিকল্পনা ছিল, যদি আমরা ভালো শুরু করি, দ্রুত উইকেট যদি না পড়ে, তাহলে আমরা সুযোগটা নেব। কিন্তু যখন আমাদের দ্রুত ৩ উইকেট পড়ে গেল, তখন আমাদের পরিকল্পনা ভিন্ন ছিল যেন আমরা ম্যাচটা জিততে পারি। তারপরও আমি বলব, মিডল অর্ডার ভালো সিদ্ধান্ত নেয়নি। যার কারণে ম্যাচটা আমরা হেরে গেছি।’ বিশ^কাপে সবচেয়ে ইতিবাচক দিক বোলিং সাফল্য বলে দাবি করেন শান্ত।

×