ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১

সবখানেই আফসোস আর কান্না, কোহলিকে জড়িয়ে ধরে আনুশকার সান্ত¡না, ফাইনালের নায়ক হেডের পরিবারকে ধর্ষণের হুমকি

হৃদয় ভেঙে খানখান ভারতীয়দের

জাহিদুল আলম জয়

প্রকাশিত: ২২:৪৩, ২০ নভেম্বর ২০২৩

হৃদয় ভেঙে খানখান ভারতীয়দের

ম্যাচশেষে রিবাট কোহলিকে সান্ত¡না দিচ্ছেন আনুশকা শর্মা

সাফল্যের আশায় গত এক যুগেরও বেশি সময় ধরে আমূলে পাল্টে ফেলা হয়েছে ভারতের ক্রিকেটকে। ব্যাটিং উইকেটের ধারা থেকে বের হয়ে স্পোর্টিং উইকেট তৈরি করেই মূলত পাল্টে যায় ক্রিকেটপাগল দেশটি। গত কয়েক বছর অসাধারণ সাফল্যও আসতে থাকে। সঙ্গতকারণেই এবারের বিশ্বকাপে হট ফেভারিট ছিল রোহিত শর্মার দল। টানা দশ ম্যাচ জিতে ফাইনালে এসে সেটা প্রমাণও করে তারা। কিন্তু রবিবার রাতে ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে হৃদয় ভেঙেছে ভারতীয়দের। দীর্ঘদিন ধরে যে সাফল্যের জন্য কঠোর পরিশ্রম ও অধ্যবসায় করেছে দেশটি সেটা এক হারে হাতছাড়া হওয়ায় সবখানেই আফসোস আর কান্নার রোল পড়ে গেছে।

গোটা ভারত যেন এখন শোকপুরী। হৃদয় ভেঙে খান খান হয়ে যাওয়া ভারতীয়রা কিছুতেই মানতে পারছেন না এই হার। অজিদের কাছে হারের পর যেন বিশ্বাসই হচ্ছিল না ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মার! কোনো রকমে হাত মেলাচ্ছিলেন প্রতিপক্ষ ক্রিকেটারদের সঙ্গে; কিন্তু এরপরই কেঁদে ফেলেন। চোখের জলে মাঠ ছাড়েন। বিরাট কোহলিও অনেক কষ্টে চেপে রেখেছিলেন কান্না। ছলছল চোখে বিরাট দ্রুত মাঠ ছাড়ার চেষ্টা করছিলেন। বিশ্বকাপ ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারের পরেই হাহাকার ভারতীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে। এবারের বিশ্বকাপে টানা দশ ম্যাচ জিতে ফাইনালে পা রেখেছিল ভারতীয় দল। দেশের মাটিতে আরও একবার বিশ্বকাপ জেতার স্বপ্ন দেখছিলেন সমর্থকরা; কিন্তু ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ব্যাটে-বলে পর্যুদস্ত হতে হয়েছে ভারতকে। 
হারের পর হতাশা আটকে রাখতে পারেননি ভারতীয় ক্রিকেটারেরা। সবচেয়ে বেশি হতাশ লাগছিল মোহাম্মদ সিরাজকে। মাঠেই কেঁদে ফেলেন তিনি। মাঠে সিরাজের কান্না নতুন নয়। প্রথমবার ভারতীয় দলে সুযোগ পেয়ে জাতীয় সংগীত গাইতে গিয়ে কেঁদেছিলেন। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্য শুনেও কেঁদেছিলেন। কিন্তু সে সবের চেয়ে এদিনের কান্না অনেক বেশি কষ্টের। একই অবস্থা দেখা যায় ভারতীয় সাপোর্ট স্টাফদের মধ্যেও। মাথা নিচু করে মাঠে ঢোকেন রাহুল দ্রাবিড়ারা। নিয়ম মেনে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটারদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে আবার মাঠ ছাড়েন তারা। বোঝাই যাচ্ছিল, কতটা দুঃখে আছে গোটা দল। বিশ্বকাপ ফাইনালে হারের ধাক্কা তখনো কাটিয়ে উঠতে পারেননি তারা।
অথচ উৎসবের সব প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিল ভারত। প্রিয় দল ভারত শিরোপা জিতবে, পুরো দেশ বাঁধভাঙা আনন্দে মেতে উঠবে এমন আশাই তারা করেছিলেন। কিন্তু ফাইনালে স্বাগতিক দেশের সব স্বপ্ন গুঁড়িয়ে দিয়ে ট্রফি জিতে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। নিজ দেশের মাটিতে আয়োজিত টুর্নামেন্টের শিরোপা জিততে না পারায় ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন ভারতের ক্রিকেটপ্রেমীরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষুব্ধ দর্শকরা নানা রকম কথা বলেই চলেছেন। তবে অনেকে আবার দলের সঙ্গেই আছেন। একজন লিখেছেন, দল নিয়ে কোনো অভিযোগ নেই।

নিঃসন্দেহে ধারাবাহিক ভালো খেলেছে ভারত। ফাইনালের আগের সব ম্যাচে একচ্ছত্র আধিপত্য করেছে। চ্যাম্পিয়নদের অভিনন্দন জানিয়ে একজন লিখেছেন, অস্ট্রেলিয়াকে অভিনন্দন। বিশ্বকাপে অনেক ম্যাচ খেলা হয়েছে, রেকর্ডও হয়েছে। ভারতের জন্য শুভকামনা। আশা করছি পরবর্তী আসরে লক্ষ্য পূরণ হবে।
ভারতের হারে ক্রিকেটাররা যেমন বিমর্ষ ছিলেন, তেমনই দর্শকাসনে হাজির থাকা স্ত্রী-বান্ধবীরাও আবেগ চেপে রাখতে পারেননি। কোহলির সন্তানসম্ভবা স্ত্রী আনুশকা শর্মাকেও কান্না সামলাতে দেখা গেছে। পরে মাঠে নেমে কোহলিকে জড়িয়ে ধরে সান্ত¦না দিতে দেখা গেছে তাকে। কিছুক্ষণ পরে সেখানে দেখা যায় আতিয়া শেট্টিকে। যিনি লোকেশ রাহুলের স্ত্রী। একে একে রবিন্দ্র জাদেজার স্ত্রী রিভাবা, রবিচন্দ্রন অশ্বিনের স্ত্রী প্রীতি ও রোহিত শর্মার স্ত্রী রিতিকাকেও মাঠে এসে সবাইকে সান্তনা দিতে দেখা যায়। অন্যদিকে ভারতের হৃদয় ভেঙে দেয়া ফাইনালের নায়ক ট্রাভিস হেডের পরিবারকে ধর্ষণের হুমকি দিয়েছেন এক ভারতীয়!

ফাইনালের পর সোশ্যাল মিডিয়ায় সরাসরি হেডকে হুমকি দেয়া হয়। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনারের স্ত্রী এমনকি এক বছরের মেয়েকেও ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হয়েছে। অবশ্য এমন কদর্য আক্রমণ ও হীন মানসিকতার নিন্দা জানাচ্ছেন ভারতেরই অনেক ক্রিকেটপ্রেমী। কেউ কেউ আবার পুলিশের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। সোমবার সন্ধ্যায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়া দলের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করা হয়নি।

×