ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

এশিয়া জয় করে বিশ্বকাপে চোখ অধিনায়ক রোহিতের 

স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০০:১৭, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩

এশিয়া জয় করে বিশ্বকাপে চোখ অধিনায়ক রোহিতের 

এসিসি সভাপতি জয় শাহর কাছ থেকে ট্রফি গ্রহণ করছেন রোহিত শর্মা, পাশে সতীর্থরা

ভারত সর্বশেষ কোনো বিশ্বকাপ জিতেছে সেই ২০১১ সালে, টি২০তে ভুলতে বসা সাফল্যটা সেই ২০০৭-এ, প্রথম আসরে। অথচ প্রতিটা টুর্নামেন্টেই তারা হট-ফেভারিট। সেটা কেবল বাইরের মোড়লিপনার জন্য নয়, এই সময়ে দ্বিপক্ষীয় সিরিজে মাঠের ক্রিকেটেও সমানে দাপট দেখিয়ে এসেছে। একের পর এক বিশ্বকাপে শেষ রক্ষা না হলেও এশিয়ান শ্রেষ্ঠত্বের মঞ্চে ভারত যে এখনো অদ্বিতীয়, সেটি আরও একবার দেখল বিশ্ব ক্রিকেট। কলম্বোর ফাইনালে ১০ উইকেটের জয়ের পথে সহ-আয়োজক শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে কপিল দেব, মহেন্দ্র সিং ধোনির উত্তরসূরিরা পেল রেকর্ড অষ্টম শিরোপা স্বাদ।

ঘরের মাঠে বিশ্বকাপ পুনরুদ্ধারের মিশনে নামার আগে দুরন্ত-দুর্বার এ নৈপুণ্যে টগবগ করে ফুটছে রোহিত শর্মার দল। শিরোপা-উৎসবের মঞ্চে দাঁড়িয়েই অধিনায়ক ঘোষণা করেছেন, বিশ্বকাপ জয়ের পর হবে ‘আসল’ উৎসব। অন্যদিকে এই একটি মাত্র ম্যাচের ব্যর্থতা ভুলে শিষ্যদের জেগে ওঠার আহ্বান জানিয়েছেন শ্রীলঙ্কান কোচ ক্রিস সিলভারউড। তাদেরও একমাত্র লক্ষ্য বিশ্বকাপ।
বিরাট কোহলির অনুপস্থিতিতে ২০১৮ এশিয়া কাপ জয়ে অধিনায়ক ছিলেন রোহিত, সেই স্মৃতি সঙ্গী করে ২০১৯ বিশ্বকাপের সেমিতে উঠে নিউজিল্যান্ডের কাছে হার মানে কোহলির দল। এবার ঘরের মাটিতে ২০১১ আসরের পুনরাবৃত্তি করে বিশ্বকাপ উদ্ধারের স্বপ্নে বিভোর রোহিত শর্মা, ‘ওয়ানডে বিশ্বকাপের ঠিক আগে ওয়ানডে এাশিয়া কাপের এই আসরটা জয়ের জন্য আমরা সব কিছু করেছি। এক কথায় বললে, এখন ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া সিরিজ এবং বিশ্বকাপই লক্ষ্য। কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে যেভাবে আতাশবাজি ফুটছে, সমর্থকদের বলব একটু ধৈর্য ধরো, বিশ্বকাপে চূড়ান্ত উৎসবের জন্য প্রস্তুতি নাও!’ একতরফা ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে ¯্রফে উড়িয়ে দেয় রোহিতের দল। ১৫.২ ওভারে মাত্র ৫০ রানে অলআউট হয় স্বাগতিকরা।

জবাবে ৬.১ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে জয়ের উল্লাসে মাতে ভারত। দুর্দান্ত বোলিংয়ে ম্যাচসেরা হন মোহাম্মদ সিরাজ। ৭ ওভারে ১ মেডেন, মাত্র ২১ রান দিয়ে ৬ উইকেট নিয়েছেন ডানহাতি এ পেসার। ছোট্ট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমেও লঙ্কান বোলারদের এতটুকু ছাড় দেননি দুই ওপেনার। ১৯ বলে অপরাজিত ২৭ রানের ইনিংসে ৬টি চার মেরেছেন ইনফর্ম শুভমান গিল! ১৮ বলে ৩ চারে ২৩ রানে অপরাজিত থেকে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন সঙ্গী ইশান কিষান। ‘এভাবে খেলতে দেখলে কার না ভালো লাগে। দলের চরিত্র বোঝা যায়। বোলাররা যেভাবে শুরু করেছে, ব্যাটসম্যানরও ঠিক সেভাবেই শেষ করেছে।’
ম্যাচের গল্পটা কেবলই সিরাজের। রেকর্ড বই নাড়িয়ে দেওয়া ডানহাতি এ পেসারকে নিয়ে অধিনায়ক বলেন, ‘স্লিপে দাঁড়িয়ে দেখছিলাম। পেসাররা যেভাবে বল করেছে, তাতে আমি গর্বিত। অনেকদিন পর তাড়িয়ে তাড়িয়ে ম্যাচটা উপভোগ করলাম। এতটা যে হবে, ভাবিনি। সিরাজকে কৃতিত্ব দিতে হবে। ও যেভাবে বল বাতাসে বাঁক খাওয়াচ্ছিল আবার সুইং করছিল, তা খুব বেশি দেখা যায় না। সিরাজ, হার্দিক, শামি, শার্দূল প্রত্যেকে ভিন্ন ধরনের পেসার- বৈচিত্র্যময় আক্রমণ। স্পিনে কুলদীপের যাদবের (৯ উইকেট) কথাও আলাদা করে বলতে হবে। ইনজুরির পর ব্যাট হাতে লোকেশ রাহুর যেভাবে ফিরে এসেছে। সব মিলিয়ে দারুণ একটা অবস্থায় আমরা বিশ্বকাপ শুরু করতে পারব।’

আগামী ৫ অক্টোবর আহমেদাবাদে ইংল্যান্ড-নিউজিল্যান্ড ম্যাচ দিয়ে শুরু বিশ্বকাপে ভারতের প্রথম ম্যাচ ৮ অক্টোবর, চেন্নাইয়ে রোহিত-কোহলিদের প্রতিপক্ষ প্যাট কামিন্সের অস্ট্রেলিয়া। অন্যদিকে হিসাবের বাইরে থেকেও গতবার (২০২২, টি২০) এশিয়া কাপ জিতে চমক দেখিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। ইনজুরির কারণে এবার প্রথম সারির পাঁচ-ছয় ক্রিকেটারকে ছাড়াই তাদের ফাইনালে উঠে আসাটাও কম বিস্ময়কর নয়। যে পথে তারা হারিয়েছে আফগানিস্তান, বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মতো পরাশক্তিকে। তবে ফাইনালে এমন লজ্জার হার সকল বিস্ময় ছাড়িয়ে গেছে! 
প্রধান কোচ ক্রিস সিলভারউড একদিনের এই ব্যর্থতা ভুলে শিষ্যদের জেগে ওঠার আহ্বান জানিয়েছেন। বলেছেন, ‘ফাইনালটা একটা অঘটন, গোটা আসরেই আমরা ভালো করেছি। বিশ্বকাপেও দারুণ কিছুর অপেক্ষায় আছি।’

×