ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ০১ অক্টোবর ২০২৩, ১৬ আশ্বিন ১৪৩০

হেরে বেলারুশ তারকার সঙ্গে হাত মেলাননি ইউক্রেনের মার্তা কোস্তিউক

প্যারিসে জয়ে শুরু সাবালেঙ্কার

স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ২২:২২, ২৮ মে ২০২৩

প্যারিসে জয়ে শুরু সাবালেঙ্কার

.

শুভ সূচনা করলেন এরিনা সাবালেঙ্কা। ফ্রেঞ্চ ওপেনের প্রথম রাউন্ডে খুব সহজেই জয়ের স্বাদ পেয়েছেন তিনি। রবিবার টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী দিনে নিজের প্রথম ম্যাচে বেলারুশ সুন্দরী - এবং - গেমে উড়িয়ে দেন মার্তা কোস্তিউককে। মাত্র ঘণ্টা ১১ মিনিট লড়াই করেই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে দারুণ জয় তুলে নেন তিনি। মৌসুমের দ্বিতীয় গ্র্যান্ডস্লাম টুর্নামেন্টের পরের রাউন্ডে সাবালেঙ্কার প্রতিপক্ষ তারই স্বদেশী ইরিনা শিমানোভিচ। গ্র্যান্ডস্লামের মূল ড্রয়ের অভিষেক হাঙ্গেরির পান্না উদভার্দিকে পরাজয়ের স্বাদ উপহার দেন তিনি।

চলতি মৌসুমের শুরু থেকেই দারুণ সময় কাটাচ্ছেন এরিনা সাবালেঙ্কা। শুরুটা করেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের শিরোপা জিতে। মেলবোর্নের ফাইনালে এলিনা রিবাকিনাকে হারিয়ে ক্যারিয়ারের প্রথম মেজর শিরোপা জয়েরও নজির গড়েন তিনি। এর পর মাদ্রিদ ওপেনেও চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। সেই সঙ্গে টানা দুবার এই টুর্নামেন্টের শিরোপা উঁচিয়ে ধরেন বেলারুশ সুন্দরী। যে কারণে রোঁলা গ্যারোঁতেও ফেভারিট হিসেবে কোর্টে নামেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের চ্যাম্পিয়ন। শুরুটাও করলেন নিজের মতো করে। ইউক্রেনের প্রতিপক্ষ মার্তা কোস্তিউকের বিপক্ষে প্রথম সেট জিতে নেন - ব্যবধানে। দ্বিতীয় সেট অবশ্য নিজের করে নিলেন আরও সহজে। - ব্যবধানে প্রতিপক্ষকে হারিয়ে দ্বিতীয় পর্বের টিকিট নিশ্চিত করেন তিনি। মৌসুমের দ্বিতীয় গ্র্যান্ডস্লাম টুর্নামেন্টে জয় দিয়ে মিশন শুরু করতে পেরে দারুণ খুশি সাবালেঙ্কা।

নিজের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে তিনি বলেন, সত্যি বলতে ম্যাচটা খুব কঠিন ছিল। বিশেষ করে আবেগের জায়গা থেকে। এমন ম্যাচে জিততে পেরে আমি অনেক বেশি আনন্দিত। বিশেষ করে প্রথম রাউন্ডের ম্যাচে আমি খুব ভালো করতে পারি না। কিন্তু এখানে ভালো খেলেই জয় পেয়েছি। সেজন্য আমি খুব খুশি। ফ্রেঞ্চ ওপেনের প্রস্তুতিমঞ্চ হিসেবে বিবেচনা করা হয় ইতালিয়ান ওপেনকে। কিন্তু দুর্ভাগ্য সাবালেঙ্কার। রোমের প্রথম রাউন্ডেই হেরে যান তিনি। সেই হারের পর তাই মানসিকভাবে কিছুটা ভেঙে পড়েছিনে সাবালেঙ্কা। ব্যাপারে ২৫ বছরের  বেলারুশ তারকা বলেন, প্রথম রাউন্ডের এই লড়াইটা কঠিন ছিল। বিশেষ করে রোমে প্রথম ম্যাচে হারের পর। তাই এখানে কোর্টে নামার শুরুর দিকে আমি কিছুটা নার্ভাস ছিলাম।

মার্তা কোস্তিউককে হারানোর ফলে চলতি মৌসুমে ৩০ ম্যাচে জয় তুলে নিলেন সাবালেঙ্কা। বিনিময়ে হার মাত্র ৫টিতে। রোঁলা গ্যারোঁর মিশন শুরুর আগে খেলা টুর্নামেন্টের ৭টিতেই কমপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলেছেন। আর পাঁচটিতেই খেলেছেন ফাইনাল। 

তবে এই ম্যাচে হেরে সাবালেঙ্কার সঙ্গে হ্যান্ডশেক করেননি মার্তা কোস্তিউক। কেননা, রাশিয়া-বেলারুশের সঙ্গে যে এখনো ইউক্রেনের যুদ্ধ চলছে। তারই জেরে এদিন সাবালেঙ্কাকে এড়িয়ে যান ইউক্রেনের এই খেলোয়াড়। এর আগে গত বছর ইউএস ওপেনে বেলারুশের আরেক তারকা ভিক্টোরিয়া আজারেঙ্কার মুখোমুখি হয়েছিলেন কোস্তিউক। সেই ম্যাচেও আজারেঙ্কার সঙ্গে হ্যান্ডশেক করেননি ২০ বছরের এই তরুণী। ফ্রেঞ্চ ওপেনের দ্বিতীয় পর্বে সাবালেঙ্কার প্রতিপক্ষ কোয়ালিফায়ার ইরিনা শিমানোভিচ। প্রথম ম্যাচে তিনি - (), - এবং - ব্যবধানে পরাজয়ের স্বাদ উপহার দেন পান্না উদভার্দিকে।