ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১

ম্যাগপাইরা ৪৭ বছর পর ইংলিশ লিগ কাপের ফাইনালে

শিরোপার হাতছানি নিউক্যাসলের

জাহিদুল আলম জয়

প্রকাশিত: ০০:৩৮, ২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

শিরোপার হাতছানি নিউক্যাসলের

জয়ের উল্লাস নিউক্যাসলের ফুটবলারদের

প্রত্যাশিতভাবেই ইংলিশ লিগ কাপ ফুটবলের ফাইনালে উঠেছে নিউক্যাসল ইউনাইটেড। মঙ্গলবার রাতে সেমিফাইনালের দ্বিতীয় লেগে সাউদাম্পটনকে ২-১ গোলে হারিয়ে এ কৃতিত্ব দেখিয়েছে কোচ এডি হোয়ের দল। এর আগে গত ২৪ জানুয়ারি সেমির প্রথম লেগেও সাউদাম্পটনকে তাদেরই মাঠে ১-০ গোলে হারিয়েছিল ম্যাগপাইরা। ফলে দুই লেগ মিলিয়ে ৩-১ গোলের জয়ে ৪৭ বছর পর লিগ কাপের ফাইনাল মঞ্চে উঠে এসেছে নিউক্যাসল। 
ফিরতি লেগে ঘরের মাঠ সেন্ট জেমস পার্কে প্রথমার্ধে স্বাগতিকদের হয়ে জোড়া গোল করেন সিন লংস্টাফস। ইংলিশ মিডফিল্ডার ম্যাচের ৫ ও ২১ মিনিটে গোল দু’টি করেন। এরপর ২৯ মিনিটে স্কটিশ ফরোয়ার্ড চে অ্যাডামস সাউদাম্পটনের হয়ে এক গোল পরিশোধ করেন। ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে আর কোনো গোল হয়নি। ৮২ মিনিটে নিউক্যাসল মিডফিল্ডার ব্রুনো গুইমারেস লালকার্ড দেখে মাঠের বাইরে গেলে বাকি সময় একজন কম নিয়ে খেলতে হয় স্বাগতিকদের।

আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি লন্ডনের বিখ্যাত ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে ফাইনাল মহারণে মাঠে নামবে নিউক্যাসল। যেখানে তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। যা গত রাতে নিশ্চিত হয়েছে। আরেক সেমির প্রথম লেগের ম্যাচে নটিংহাম ফরেস্টকে তাদেরই মাঠে ৩-০ গোলে হারায় রেড ডেভিলসরা। বুধবার রাতে ঘরের মাঠ ওল্ডট্রাফোর্ডে সেমির দ্বিতীয় লেগের ম্যাচ খেলেছে ম্যানইউ।

সবশেষ ১৯৯৯ সালে ঘরোয়া কোন আসরের ফাইনালে খেলেছিল নিউক্যাসল ইউনাইটেড। কিন্তু ঐতিহ্যবাহী এফএ কাপের ওই ফাইনালে ম্যানইউর কাছে হারতে হয়েছিল তাদের। এবার একই প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেয়ার মোক্ষম সুযোগ ম্যাগপাইদের। অন্যদিকে লিগ কাপে এখন পর্যন্ত শিরোপা জিততে পারেনি নিউক্যাসল। ১৯৫৫ সালে এফএ কাপের পর প্রথমবারের মতো ঘরোয়া বড় কোনো শিরোপা জয়ের লক্ষ্যেই মাঠে নামবে হোয়ের শিষ্যরা। ইন্টার-সিটিস ফেয়ারস কাপে শিরোপা জয়ই ছিল নিউক্যাসলের সবশেষ কোন শিরোপা।

এবার দীর্ঘদিনের ট্রফি ঘরা ঘোচানোর লক্ষ্য তাদের। সেমির এই ম্যাচে দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন ছোটবেলা থেকে নিউক্যাসলের সমর্থক ইংলিশ মিডফিল্ডার লংস্টাফ। নিউক্যাসল কিংবদন্তি অ্যালান শিয়েরার ও ডেভিড জিনোলা স্ট্যান্ডে থেকে প্রিয় দলের জয় উপভোগ করেন। সারা রাত ধরেই নিউক্যাসলের রাস্তায় ভক্ত-সমর্থকদের আনন্দ উল্লাস করতে দেখা গেছে। 
ম্যাচ শেষে জোড়া গোলদাতা লংস্টাফ বলেন, এটা সত্যিই অসাধালণ। মাত্র এক বছর আগেও কাউকে যদি জিজ্ঞেস করা হতো এসব কি হচ্ছে তবে তারা শুধু হাসতো। কিন্তু কোচ ও মালিকানা পরিবর্তনের পর দলের চেহারা আমুল পাল্টে গেছে। দলে প্রতিভাবান খেলোয়াড় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। এভাবেই ধীরে ধীরে দলের উন্নতি ঘটেছে। এই শতকে প্রথমবারের মতো ঘরোয়া কোনো আসরের ফাইনালে পৌঁছানো নিউক্যাসলের পুনরুত্থানেরই দৃষ্টান্ত।

নিউক্যাসল কোচ হোয়ে বলেন, নিজেদের মান বাড়ানোর জন্য যেকোনো প্রতিযোগিতার ফাইনালে পৌঁছানো জরুরি। একইসাথে এর মাধ্যমে সমর্থকদের আস্থাও অর্জন সম্ভব। ম্যাচটা বেশ কঠিন ছিল। যদিও প্রথমার্ধেই আমরা ২-০ গোলে এগিয় গিয়েছিলাম। আমাদের পক্ষে যা কিছু অর্জন করা সম্ভব তার সব চেষ্টাই করে যাচ্ছি।
শুধু লিগ কাপেই নয়, বিশ্ব ফুটবলের সবচেয়ে বড় ঘরোয়া আসর ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগেও দারুণ ছন্দে এগিয়ে চলেছে নিউক্যাসল। কোচ হোয়ের অধীনে বদলে যাওয়া নিউক্যাসল শীর্ষ সারির দলগুলোর সঙ্গে সমানতালে লড়াই করছে। বর্তমানে লিগে তাদের অবস্থান আর্সেনাল  ও সিটির পর তৃতীয় স্থানে।

×