ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯

ফুটবলার মাসুরাদের ঘর ভেঙ্গে দিতে চাচ্ছে সড়ক বিভাগ

স্টাফ রিপোর্টার, সাতক্ষীরা

প্রকাশিত: ০০:৪৯, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

ফুটবলার মাসুরাদের ঘর ভেঙ্গে দিতে চাচ্ছে সড়ক বিভাগ

ফুটবল দলের ডিফেন্ডার মাসুরাকে সরকারীভাবে দেয়া জমিতে তৈরি করা ঘর ভেঙ্গে দিতে ক্রস চিহ্ন দিয়েছে সড়ক বিভাগ

সাতক্ষীরা-খুলনা সড়কের বিনেরপোতা এলাকায় অব্যবহৃত সড়কের পাশে সরকারীভাবে দেয়া জমিতে মাসুরাদের টিনের ঘর। সরকারের পক্ষ থেকে মাসুরার পরিবারকে ঘর তৈরি করার জন্য যে জমি দেয়া হয়েছিল সেই জমিতে তৈরি করা ঘর ভেঙ্গে দেয়ার জন্য লাল ক্রস চিহ্ন একে দিয়েছে সড়ক বিভাগ। বাংলাদেশ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জেতা বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের অপরিহার্য ডিফেন্ডার মাসুরার পরিবারে দুশ্চিন্তার ছায়া।

২০১৮ সালে অনুর্ধ-১৮ সাফে মাসুরার একমাত্র গোলে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করার পর সরকারের পক্ষ থেকে মাসুরার পরিবারের মাথা গোঁজার ঠাঁই করতে দেয়া হয় সাতক্ষীরা খুলনা সড়কের অব্যবহৃত পুরাতন সড়কের বিনেরপোতা এলাকায় ৮ শতক জমি। গর্ত ভরাট করে সেখানে ঘর তৈরির পর এখন লাল চিহ্ন একে দেয়ায় মাসুরার পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ঘর ভাঙ্গার আতঙ্ক বিরাজ করছে।
সাতক্ষীরা শহর থেকে চার কিলোমিটার দূরে বেতনা নদীর তীরে বিনেরপোতা এলাকায় মাসুরাদের বাড়ি। সেখানে তার মা-বাবা ও দুই বোন বসবাস করেন। মাসুরার বাবা রজব আলী ও মা ফাতেমা বেগমের সঙ্গে কথা বলতে গেলে তারা জানান তাদের আতঙ্কের কথা।
মাসুরার বাবা রজব আলী বলেন, ‘২০১৮ সালে অনুর্ধ-১৮ সাফে তার মেয়ের একমাত্র গোলে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে বাংলাদেশ। তাদের থাকার জায়গা না থাকার বিষয়টি যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর নজরে আসে। তখন তিনি তাদের মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দেয়ার আশ্বাস দেন। তাকে যে জমি দেয়া হয় সেখানে ১৫ ফুট পানি জমে ছিল। জমি ভরাট করতে বিভিন্ন দফতরে বহুদিন ছোটাছুটির পর সহায়তা না পেয়ে মাসুরার বঙ্গমাতা গোল্ড কাপের তিন লাখ টাকা দিয়ে মাটি ভরাট করেন। ২৬ দিনের মাথায় মেয়ের খেলার পুরস্কারের টাকা দিয়ে বাড়ি তৈরি করেন তিনি। মাসুরার বাবা আগে ভ্যানে করে এলাকায় ফল-মূল বিক্রি করে সংসার চালাতেন। অসুস্থতার কারণে এখন আর সেটাও করতে পারেন না।
রজব আলী বলেন, ‘এত টাকা খরচ করে বাড়ি বানিয়ে এখন তারা প্রায় নিঃস্ব। মেয়ের খেলার টাকায় সংসার চলে। সড়ক ও জনপথ বিভাগ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করার জন্য বাড়িতে ক্রস চিহ্ন দিয়ে গেছে। এটা ভেঙ্গে দিলে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে কোথায় থাকব এম প্রশ্ন মাসুরার পরিবারের।
সাতক্ষীরা সড়ক ও জনপথ বিভাগের সাতক্ষীরার নির্বাহী প্রকৌশলী মীর নিজাম উদ্দিন বুধবার বিকেলে জনকণ্ঠকে বলেন, সরকারীভাবে এই জমি তাদের বরাদ্দ দেয়ার সুযোগ নেই। তবে যেহেতু মাসুরা একজন ন্যাশনাল ফিগার এবং এ মুহূর্তে তাদের ঘরটি বাদ দিয়েই অন্য কার্যক্রম চালানো হবে।