ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১

যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে ইতিহাস হারমিতের

স্পোর্টস রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০০:২৪, ২৩ মে ২০২৪

যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে ইতিহাস হারমিতের

শান্তদের শায়েস্তা করে ইতিহাস গড়া জয়ের পর হারমিতের বুনো উল্লাস

শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্ব ক্রিকেটকেও চমকে দিয়ে ইতিহাস গড়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বিভিন্ন দেশের ‘ভাড়াটে’ তথা অভিবাসী খেলোয়াড় দিয়ে গড়া দল নিয়ে প্রথম দেখাতেই টাইগারদের বিড়াল বানিয়ে ছাড়ল ক্রিকেটের মার্কিন যৌথ-বাহিনী! টেক্সাসে সিরিজের প্রথম টি২০তে তুলে নিল ৫ উইকেটের জয়। 
আয়ারল্যান্ডের পর দ্বিতীয় টেস্ট খেলুড়ে দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে হারাল যুক্তরাষ্ট্র। আর তাদের এই জয়ের রূপকার ৩১ বছর বয়সী হারমিত সিং। ভারতের হয়ে দু-দুটি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ খেলা এ অলরাউন্ডার সাত নম্বরে নেমে ১৩ বলে ২ চার ও ৩ ছক্কায় অপরাজিত ৩৩ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে হয়েছেন ম্যাচসেরা। ১৭তম ওভারের শেষ দুই বলে মুস্তাফিজুর রহমানকে টানা ২ ছক্কায় খেলার মোড় ঘুরিয়ে দেন হারমিত।

পরের ওভারের দ্বিতীয় বলে শরিফুল ইসলামকেও মারেন একটি ছক্কা।  ‘ভেবেছিলাম মুস্তাফিজ বাতাসের বিপরীতে বোলিং করবেন। কিন্তু যখন ওকে দেখেছি বাতাসের দিক থেকে বোলিং করতে, তখন ভেবেছি অন্য প্রান্ত থেকে কোনো ওভারে ২০ রান নেওয়ার সুযোগ আছে। হতে পারে তারা আমাদের গুরুত্ব দেয়নি, অথবা কি হতে পারে, এটা আমি জানি না।

তবে মুস্তাফিজের ৪ ওভার শেষ করে দেওয়ায় আমরা শেষ ওভারে ২০ রানও নিতে পারব, এমন বিশ্বাস ছিল।’ লক্ষ্য ১৫৪, হারমিত যখন উইকেটে আসেন, জয়ের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের চাই ৩১ বলে ৬০ রান, শেষ ৪ ওভারে ৫৫। তখনো মুস্তাফিজের ২ ওভার বাকি। নিঃসন্দেহে কাজটা কঠিন। হারমিত এই কঠিন কাজটাই করেছেন ডেথ ওভারে বাংলাদেশের ‘কঠিনতম’ বোলারকে টানা দুই ছক্কায় উড়িয়ে।

পরের ওভারে শরিফুলকে মারেন এক ছক্কা ও এক চার। শেষ ওভারে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে এক্সটা কাভারের ওপর দিয়ে চার মেরে ৩ বল আগেই খেল খতম করে দেন হারমিত। যুক্তরাষ্ট্রকে এনে দেন ইতিহাসের স্মরণীয় এক জয়। ১৫৩ রান যুক্তরাষ্ট্র ১৮ ওভারের মধ্যেই তাড়া করতে চেয়েছিল বলে জানিয়েছেন হারমিত, ‘উইকেট যেমন ছিল, তাতে এই রান ১৮তম ওভারে তাড়া করতে পারব বলে ভরসা ছিল। 
আমরা এমন ধীরগতির উইকেটে খেলতে অভ্যস্ত। বাংলাদেশীদের জন্য হয়তো এটা কঠিন মনে হয়েছে, যে কারণে তারা একটু ধীরে এগিয়েছে। ব্যাটসম্যানদের প্রতি সম্মান জানাই, তারাই আমাদের লড়াইয়ে রেখেছে। যখন আমাদের শেষ ৪ ওভারে ৫০ রান লাগত, তখনো এই রান তাড়া করতে পারব বলে নিজের প্রতি ভরসা ছিল।’

×