ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩, ২২ অগ্রাহায়ণ ১৪৩০

এশিয়া কাপের স্মরণীয় পাঁচ

জিএম মোস্তফা

প্রকাশিত: ০০:৫০, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩

এশিয়া কাপের স্মরণীয় পাঁচ

প্রায় তিন সপ্তাহের নানান ঘটনাবহুল এশিয়া কাপের সমাপ্তি ঘটল

প্রায় তিন সপ্তাহের নানান ঘটনাবহুল এশিয়া কাপের সমাপ্তি ঘটল। মহাদেশীয় শ্রেষ্ঠত্বের ১৬তম সংস্করণের আয়োজক পাকিস্তান থাকলেও শ্রীলঙ্কাতেও অনুষ্ঠিত হয়েছে ফাইনালসহ বেশ কয়েকটি ম্যাচ। রবিবার কলম্বোয় অনুষ্ঠিত হয়ে গেল এশিয়ার বিশ্বকাপ খ্যাত এই টুর্নামেন্টের ফাইনাল। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচটা অবশ্য হয়েছে একপেশে। সিরাজের জাদুকরী বোলিং নৈপুণ্যে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কাকে ১০ উইকেটে হারিয়ে অষ্টমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করল ভারত। এবারের এশিয়া কাপের স্মরণীয় পাঁচ মুহূর্ত নিয়েই এই প্রতিবেদন। 
াশাহিন আফ্রিদির আগুন ঝড়ানো বোলিং ॥ ক্রিকেটে এশিয়ার অন্যতম সেরা দুই দলের নাম ভারত-পাকিস্তান। তাদের লড়াই মানেই ভক্ত-অনুরাগীদের মাঝে বাড়তি উত্তাপ। এবারের এশিয়া কাপে দুইবার মুখোমুখি হয় চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী এই দুই দল। কিন্তু দুর্ভাগ্য। বৃষ্টির কারণে গ্রুপ পর্বের ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচটি ফলই দেখেনি। তবে যতটুকু খেলা হয়েছে, তাতে বলে আগুন ঝরান শাহিন শাহ আফ্রিদি। পাকিস্তানের বাঁহাতি এই পেসার শুরুতেই যে বোল্ড করে সাজঘরে ফেরত পাঠান ভারতের অধিনায়ক রোহিত শর্মা এবং দলের আরেক সেরা ব্যাটার বিরাট কোহলিকে। শুধু তাই নয়? এরপরে তিনি আউট করেন হার্দিক পান্ডিয়া এবং রবীন্দ্র জাদেজাকেও। গ্রুপ পর্বের সেই ম্যাচে ১০ ওভার ২ মেডেনে ৩৫ রানে ৪ উইকেট নিয়ে বেশ রোমাঞ্চ ছড়িয়েছিলেন শাহিন আফ্রিদি। তবে এবারের আসরটা মোটেও সুখকর হয়নি আফ্রিদির দলের। কেননা, সুপার ফোরে কেবলমাত্র একটি ম্যাচেই যে জয় পেয়েছে তারা। এর ফলে চার নম্বরে থেকে টুর্নামেন্ট শেষ করেছে বাবর আজমের দল। 
াফাইনালে সিরাজ শো ॥ এবারের এশিয়া কাপের ফাইনালটা যেন একেবারেই নিজের করে নিয়েছেন মোহাম্মদ সিরাজ। কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ডানহাতি এই পেসারের বোলিং তোপে মাত্র ৫০ রানেই গুটিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। ৭ ওভার বল করে মাত্র ২১ রান খরচায় তিনি তুলে নেন ৬ উইকেট। ইনিংসের চতুর্থ ও নিজের দ্বিতীয় ওভারে আক্রমণে এসে একে একে তুলে নেন পাথুম নিসাঙ্কা, সাদিরা সামারাবিক্রমা, চারিথ আসালাঙ্কা ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার উইকেট। তাতে ভারতের কোনো বোলার হিসেবে প্রথমবার এক ওভারে ৪ উইকেট নেওয়ার কীর্তি গড়েন সিরাজ। এই ম্যাচের আগ পর্যন্ত ওয়ানডেতে সিরাজের ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ফিগার ছিল ৩২ রানের বিনিময়ে ৫ উইকেট।

নিজের তৃতীয় ওভারে আক্রমণে এসে চতুর্থ বলে ক্যারিয়ারের প্রথম ফাইফারের দেখা পান তিনি। একই সঙ্গে যৌথভাবে গড়েন দ্রুত ৫ উইকেট তুলে নেওয়ার রেকর্ডও। এখন পর্যন্ত এ সংস্করণে সবচেয়ে কম বল খরচে ৫ উইকেট তুলে নেওয়ার রেকর্ড ছিল শ্রীলঙ্কার সাবেক পেসার চামিন্দা ভাস ও আলী খানের। দুজনেই ৫ উইকেট তুলে নিতে খরচ করেছেন ১৬ বল। 
তাদের সঙ্গে এবার যোগ দিলেন সিরাজ। তবে এশিয়া কাপে ৬ উইকেট নেওয়া একমাত্র পেসার সিরাজ। সব মিলিয়ে এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে দ্বিতীয় বোলার হিসেবে এ কীর্তি গড়েন তিনি। এর আগে ২০০৮ এশিয়া কাপে ভারতের বিপক্ষে ১৩ রানে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন শ্রীলঙ্কার সাবেক স্পিনার অজন্তা মেন্ডিস। অন্যদিকে ২১ রানে ৬ উইকেট নিয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডেতে কোনো  বোলারের সেরা পারফরম্যান্সের কীর্তিটিও এখন সিরাজের দখলে। এর আগের লঙ্কানদের বিপক্ষে সেরা বোলিংয়ের রেকর্ডটি ছিল পাকিস্তানের কিংবদন্তি পেসার ওয়াকার ইউনিসের। ক্যারিয়ার সেরা পারফরম্যান্সে ম্যাচসেরাও হয়েছেন সিরাজ। তবে পুরস্কারের অর্থ বৃষ্টিতে আসর জুড়ে মাঠ কাভারে ঢাকা ও পানি নিষ্কাশন নিয়ে নিরলস পরিশ্রম করা কর্মীদের মাঝে বিলিয়ে দিয়েছেন তিনি।  
াদ্যুতি ছড়ালেন ভেল্লালাগে ॥ এশিয়ার কাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন হিসেবে এবারের মিশন শুরু করেছিল শ্রীলঙ্কা। ফাইনালে ওঠার পথে এবার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন লঙ্কানদের বাঁহাতি স্পিনার দুনিত ভেল্লালাগে। মাত্র ২০ বছর বয়সী এই তরুণ খেলেছেন ৬ ম্যাচ। এই সময়ে প্রতিপক্ষের ১০ উইকেট তুলে নিয়েছেন তিনি। যার মধ্যে সুপার ফোরে ভারতের বিপক্ষে নেন ৪০ রানে ৫ উইকেট। সেই ম্যাচে ভারতীয় ক্রিকেটের অন্যতম সেরা ব্যাটার বিরাট কোহলি, দলপতি রোহিত শর্মা, দুর্দান্ত ফর্মে থাকা তরুণ উদীয়মান ক্রিকেটার শুভমান গিল, লোকেশ রাহুল এবং হার্দিক পান্ডিয়ার উইকেটও তুলে নেন দুনিত ভেল্লালাগে।
াপুরো টুর্নামেন্টেই বৃষ্টির দাপট ॥ এবারের আসরের আনুষ্ঠানিক আয়োজক ছিল পাকিস্তান। কিন্তু ভারতের বিরোধিতার কারণে পরবর্তীতে পাকিস্তানের সঙ্গে যৌথ আয়োজক হয় শ্রীলঙ্কা। আর শ্রীলঙ্কায় হওয়া ম্যাচগুলোতে ব্যাট-বলের লড়াইয়ের সঙ্গে ছিল বৃষ্টি-যুদ্ধও। এখানে হওয়া ৯ ম্যাচের বেশিরভাগে বৃষ্টি হানা দিয়েছে একাধিকবার। এই বৃষ্টির আক্রমণ থেকে বাদ যায়নি ফাইনালও। কমলা জার্সি পরা শ’খানেক গ্রাউন্ড স্টাফ বৃষ্টি হলে কভার নিয়ে মাঠের ভেতরে ছুটছেন, থামলে সরিয়ে নিচ্ছেন, এমন দৃশ্য এবার নিয়মিতই দেখেছেন ভক্ত-অনুরাগীরা। এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল ও শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট এই যোদ্ধাদের ‘আনসাং হিরো’ বলে আখ্যা দিয়েছে। পরে সংস্থা দুটি তাদের ৫০ হাজার ডলার পুরস্কারও দেয়। ফাইনালের সেরা খেলোয়াড় হওয়া মোহাম্মদ সিরাজের প্রাইজমানির ৫ হাজার ডলারও উপহার হিসেবে মাঠকর্মীদের দিয়ে দেওয়া হয়।
ানেপালের অভিষেক ॥ এবারের এশিয়া কাপের অন্যতম আকর্ষণ ছিল নেপালের অংশগ্রহণ। এর ফলে দীর্ঘ আট বছর পর নতুন দল দেখেছে এশিয়ার বিশ্বকাপ খ্যাত এই টুর্নামেন্ট। প্রথমবারের মতো মহাদেশীয় এই টুর্নামেন্টে প্রতিনিধিত্ব করে বেশ ভালোই লড়াই করেছে তারা। যদিওবা নিজেদের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে ২৩৮ রানে হার দিয়ে এই মিশন শুরু করেছিল হিমালয়ের দেশটি। দ্বিতীয় ম্যাচে ভারতের কাছেও ১০ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হেরেছে নেপাল। তবে টুর্নামেন্ট থেকে সবার আগে বিদায় নিলেও এশিয়া কাপে নতুন একটি মাত্রা নিয়ে এসেছে ক্রিকেটপ্রিয় দেশটি।