ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১

সাগরিকায় বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ড টি২০ সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচ আজ

আইরিশদের বিপক্ষে ৩-০ করার লক্ষ্য

মো. মামুন রশীদ

প্রকাশিত: ০০:৪৭, ৩১ মার্চ ২০২৩

আইরিশদের বিপক্ষে ৩-০ করার লক্ষ্য

আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজে অংশ নেয়া বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা

সাগরিকায় প্রথমবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে নেমে রীতিমতো নাকানি-চুবানি খেয়ে বিপর্যস্ত সফরকারী আয়ারল্যান্ড ক্রিকেট দল। টানা দুই ম্যাচে অসহায় আত্মসমর্পণ করে ইতোমধ্যেই ৩ ম্যাচের টি২০ সিরিজ হেরে গেছে তারা। এবার আইরিশদের বিপক্ষে ৩-০ ব্যবধানে জেতার লক্ষ্য নিয়ে আজ নামছে বাংলাদেশ দল। হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর লড়াইয়ে আজ মরিয়া হয়েই নামবেন পল স্টার্লিংরা।
টি২০ সিরিজের তৃতীয় ও শেষ এই ম্যাচটি দুপুর ২টায় চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে গড়াবে। আজ বাংলাদেশের ১৫০তম টি২০ ম্যাচ। ৫৪ জয় ও ৯২ হার দেখা বাংলাদেশ এই নতুন মাইলফলকের দিন আরেকবার জিততেই মাঠে নামবে। অবশ্য দলগত কোনো অনুশীলন এই ম্যাচের আগের দিন করেনি বাংলাদেশ। তবে ঐচ্ছিক অনুশীলনে এসেছেন কয়েকজন। তবে আয়ারল্যান্ড দলের অনুশীলন হয়েছে সকালে। ইতোমধ্যেই সিরিজ জিতে যাওয়ায় আজ একাদশ নিয়ে কিছুটা পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাতে পারেন বাংলাদেশের প্রধান কোচ চান্দিকা হাতুরুসিংহে। সেক্ষেত্রে অভিষেক ক্যাপ পেতে পারেন লেগস্পিনার রিশাদ হোসেন ও উইকেটরক্ষক ব্যাটার জাকের আলী অনিক। 
২০০৮ সালে সর্বশেষ বাংলাদেশ সফরে এসে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলেছে আয়ারল্যান্ড। তবে সেবার দুই দলের মধ্যে হয়নি কোনো টি২০ সিরিজ। ১৫ বছর পর আবার বাংলাদেশ সফরে এসে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলছে আয়ারল্যান্ড দল। ২০০৮ সালে হওয়া সেই ওয়ানডে সিরিজে আইরিশদের ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ করে বাংলাদেশ। এবারও ওয়ানডে সিরিজে হেরেছে আইরিশরা। এক ম্যাচ বাকি থাকতেই খুঁইয়েছে টি২০ সিরিজও। যদিও ২০১৪ সালের টি২০ বিশ্বকাপে খেলে গেছে তারা বাংলাদেশের মাটিতে।

সেদিক থেকে ৯ বছর পর আবার বাংলাদেশে এসে টি২০ খেলছে তারা। এবারই প্রথম স্বাগতিকদের বিপক্ষে বাংলাদেশের মাটিতে টি২০ খেলছে আয়ারল্যান্ড দল। দুই দলের মধ্যে এটি মাত্র দ্বিতীয় দ্বিপক্ষীয় টি২০ সিরিজ। এর আগে ২০১২ সালে আয়ারল্যান্ড সফরে গিয়ে ৩-০ ব্যবধানে জিতে আসে বাংলাদেশ। ১১ বছর পর ঘরের মাটিতে এবার সেই একই ব্যবধানে সিরিজ জয়ের সুযোগ টাইগারদের। সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বে বদলে যাওয়া টি২০ দল গত বিশ্বকাপ থেকেই দুর্দান্ত খেলছে। বিশ্বকাপের পর প্রথম টি২০ ম্যাচ খেলতে নেমেই বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডকে হারিয়ে দেন সাকিবরা।

শেষ পর্যন্ত তাদের ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশও করে। সেই আত্মবিশ্বাসী দলের সামনে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতাই করতে পারেনি বিশ্বকাপে ইংলিশদের বিপক্ষে দারুণ জয় পাওয়া আয়ারল্যান্ড। ব্যাটে-বলে পুরোপুরি অসহায় আত্মসমর্পণ করেছে তারা। আজ শেষ ম্যাচে তাদের জ্বলে ওঠার শেষ সুযোগ। আজ হারলে হোয়াইটওয়াশ হতে হবে। তাই শেষ জয় দিয়েই করতে চায় আয়ারল্যান্ড দল। বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ড এই সিরিজের আগে সর্বশেষ ২০১৬ টি২০ বিশ্বকাপে ধর্মশালায় প্রাথমিক রাউন্ডে মুখোমুখি হয়।

কিন্তু সেদিন বাংলাদেশ ৮ ওভারে ২ উইকেটে ৯৪ রান তোলার পর বৃষ্টিতে প- হয়ে যায় ম্যাচটি। আর ২০০৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে প্রথমবার টি২০ ফরম্যাটে পেয়েই হারিয়ে দেয় আইরিশরা। বৈশ্বিক আসর কিংবা কোনো টুর্নামেন্টে লড়াইয়ে নামার পরিসংখ্যান এটি। সবমিলিয়ে দুই দলের মধ্যে মাত্র ৫ টি২০ ম্যাচের ১টি পরিত্যক্ত হয় এবং ৩টি জেতে বাংলাদেশ ও ১টি হেরে যায়। এবার টানা দুই জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ একেবারে হেসে-খেলে অনায়াসে।

২০০৯ সালে নটিংহ্যামে হারের পর টানা ৫ ম্যাচ আইরিশদের বিপক্ষে জিতেছে বাংলাদেশ। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এবার সিরিজ জয়েই নতুন করে নিজেদের শক্তিমত্তা সম্পর্কে বিশ্বাস জন্মেছে স্বাগতিকদের। 
তাই যতটা সম্ভব স্পোর্টিং উইকেটেই খেলতে চেয়েছেন ক্রিকেটাররা। ইংলিশদের বিপক্ষে সাগরিকায় তেমন উইকেটেই খেলেছে বাংলাদেশ এবং জিতেছে। গত সিরিজ থেকেই ব্যাটিংয়ে ব্যাপক উন্নতির ছোঁয়া দেখা গেছে। সেই সঙ্গে আলো ছড়িয়েছেন পেসাররা। বিশেষ করে তাসকিন আহমেদ, হাসান মাহমুদ ও এবাদত হোসেন রীতিমতো বিস্ময় ছড়িয়েছেন। সেই ধারাবাহিকতা ভারতের পর ইংল্যান্ড এবং এখন আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে অব্যাহত রেখেছে বাংলাদেশ দল। যদিও পেস আক্রমণে বাঁহাতি শরিফুল ইসলাম আছেন। কিন্তু তার সুযোগ হয়নি। আজ তাকে একাদশে দেখা যেতে পারে দীর্ঘ বিরতির পর। 
হাতুরুসিংহে দ্বিতীয় মেয়াদে কোচ হয়ে আসার পর টানা দুই হার দিয়ে শুরু করেন। কিন্তু এরপর টানা ৫ ম্যাচ জয় এনে দিয়েছেন তিনি বাংলাদেশ দলকে। অথচ এর মধ্যেই তিনি দলকে নিয়ে বেশ পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েছেন। নিয়মিত আফিফ হোসেন ধ্রুবকে পারফর্ম্যান্সের কারণে বাদ দিয়েছেন। হাতুরুর অধীনে নতুনদের মধ্যে তাওহিদ হৃদয় ভালো করেছেন এবং ওয়ানডে ও টি২০ দলে খেলে চলেছেন। ৮ বছর পর ফিরে রনি তালুকদার রানের মধ্যেই আছেন। সবমিলিয়ে বাংলাদেশ দলের ড্রেসিং রুমের পরিবেশ বদলে গেছে। আজ শেষ ম্যাচেও পরীক্ষা চালানোর সুযোগটা হাতছাড়া করবেন না তিনি। 
বাঁহাতি স্পিনে সাকিব বেশ সুবিধা করলেও নাসুম আহমেদ ব্যর্থ হয়েছেন। দুই ম্যাচেই বেশ পিটুনি খেয়েছেন আয়ারল্যান্ডের ব্যাটারদের কাছে। অন্যদিকে আইরিশ লেগস্পিনার বেন হোয়াইট বেশ ভালো করেছেন। তাই আজ নাসুমের জায়গায় দেখা যেতে পারে তরুন লেগস্পিনার রিশাদকে। উইকেটরক্ষক ব্যাটার জাকের জায়গা করে নিতে পারেন শামীম কিংবা মেহেদি হাসান মিরাজের জায়গায়। তবে লক্ষ্য টাইগারদের আরেকটি জয় নিয়ে আইরিশদের বিপক্ষে ৩-০ করার।

×