ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০

হাতের মুঠোয় বিনোদন

মো. মারুফ শাহ

প্রকাশিত: ২০:৪৫, ২৫ জানুয়ারি ২০২৩

হাতের মুঠোয় বিনোদন

আগামী দিনে বিনোদন হবে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর

বিনোদনের সব কাজ এখন প্রযুক্তিনির্ভর হয়ে গেছে। আগামী দিনে বিনোদন হবে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর। বাহন পরিবর্তন হলেও বিনোদন থাকবেই। বর্তমানে প্রযুক্তির উন্নয়ন বিনোদন সহজলভ্য করে তুলেছে। পারিবারিক পরিবেশে থেকেও যা নিজের পছন্দমাফিক সময়ে উপভোগ করা যায়। আমরা যেভাবে বিনোদন উপভোগ করি তার উপর প্রযুক্তি ব্যাপকভাবে প্রভাব বিস্তার করেছে।

অনলাইন মাল্টিপ্লেয়ার অভিজ্ঞতা পর্যন্ত সব জায়গায় আজ প্রযুক্তির জয়ধ্বনি, প্রযুক্তি বিনোদনের জন্য সম্ভাবনার একটি জগৎ খুলে দিয়েছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক ব্যবহার করেও বিনোদন উপভোগ চলছে। প্রযুক্তির উন্নয়নের সঙ্গে বিনোদন জগতে একটা নতুন দিক উন্মোচিত হয়েছে। মানুষ সারাদিন তার পেশাগত কাজ করবে, এটাই স্বাভাবিক। একাজে গতি সঞ্চারের জন্যই কিছু সময় বিনোদনের আশ্রয় নেওয়া। বিনোদন শিল্পের সবচেয়ে বড় পরিবর্তনগুলোর মধ্যে একটি হলো স্ট্রিমিং পরিষেবার উত্থান। নেটফ্লিক্স, হুলু এবং অ্যামাজন প্রাইম আমাদের চাহিদা অনুযায়ী বিনোদনের পসরায় প্রবেশাধিকার দিয়ে আমাদের টিভি এবং চলচ্চিত্র দেখার পদ্ধতিতে বিপ্লব ঘটিয়েছে।

পূর্বে বিনোদনের জন্য মানুষকে ঘরের বাইরে যেতে হতো কিন্তু বর্তমানে ঘরে বসেই রেডিও, টেলিভিশন অডিও ভিডিও সিনেমা দেখা যায়। সিনেমা হলে না গিয়ে ইন্টারনেটের মাধ্যমে ঘরে বসে কম্পিউটার, ল্যাপটপ ব্যবহার করে ইউটিউবে নাচ গান দেশী-বিদেশী চলচ্চিত্র উপভোগ করে থাকে। প্রযুক্তির কারণে শিশুরা এখন ঘরে বসে কম্পিউটার গেম খেলে, কার্টুন, নাচ গান দেখে, ছড়া কাব্য শেখে। প্রযুক্তি একটি বড় প্রভাব ফেলেছে তা হলো গেমিংয়ের জগৎ।

গ্রাফিক্স এবং প্রক্রিয়াকরণ শক্তির অগ্রগতির সঙ্গে, ভিডিও গেমগুলো আগের চেয়ে আরও নিমজ্জিত এবং বাস্তবসম্মত হয়ে উঠেছে। ভার্চুয়াল রিয়েলিটি গেমিং, বিশেষ করে, এটিকে সম্পূর্ণ নতুন স্তরে নিয়ে গেছে, খেলোয়াড়দের এমন অনুভূতি দেয় যেন তারা সত্যিই গেমের জগতে রয়েছে।

সংগীত শিল্পও প্রযুক্তিনির্ভর হয়েছে। অ্যাপল মিউজিক এবং প্যান্ডোরার মতো প্লাটফর্মগুলো সংগীতের একটি বিশাল লাইব্রেরি অ্যাক্সেস করা এবং শোনা সহজ করে তুলেছে। বর্তমান ডিজিটাল যুগে প্রযুক্তির ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রযুক্তির ব্যবহারের কারণে বিনোদনকে ঘরোয়া করে তুলেছে। কিন্তু অপসংস্কৃতির আগ্রাসনও ঘটছে। মাত্রাতিরিক্ত অযাচিত বিনোদন, বিদেশী সংস্কৃতির অবাধ প্রবাহ, অশালীন পোশাক ও কথোপকথন ইত্যাদি নানা কারণে সমাজে খারাপ প্রভাবও পড়ছে।

সামগ্রিকভাবে, প্রযুক্তি বিনোদন শিল্পকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করেছে এবং আমরা কিভাবে বিনোদন গ্রহণ করি এবং উপভোগ করি সেজন্য সম্ভাবনার একটি জগৎ খুলে দিয়েছে। প্রযুক্তির ক্রমাগত উন্নতির সঙ্গে ভবিষ্যতে বিনোদনের জন্য কী অপেক্ষা করছে তা দেখার অপেক্ষায় বিনোদনপ্রেমী কোটি মানুষ।
মোহাম্মদপুর ঢাকা থেকে

×