ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ৩০ জানুয়ারি ২০২৩, ১৬ মাঘ ১৪২৯

monarchmart
monarchmart

পারুলকে হত্যা করে তার বাবাই

বাদীই যখন খুনি

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০১:২৯, ২৩ জানুয়ারি ২০২৩

বাদীই যখন খুনি

মেয়ে পারুল আক্তার (ইনসেটে) হত্যায় জড়িত বাবা কুদ্দুসকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ

তিন মেয়ের মধ্যে মোছাম্মদ পারুল আক্তার (১৫) দেখতে বেশ সুন্দর ও মেধাবী ছিল। তাই বাবা আব্দুল কুদ্দুছ খার স্বপ্ন ছিল মেয়েকে উচ্চশিক্ষিত করে ভালো জায়গায় বিয়ে দেবেন। কিন্তু পারুল দশম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় একই এলাকার নাছির উদ্দিন বাবুর (১৯) সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। বিয়ে দেওয়ার জন্য দুই পরিবারকে জানালেও পারুলের বাবা রাজি হননি। একপর্যায়ে নাসির উদ্দিন ও পারুল পালিয়ে বিয়ে করে। তবে বিয়ের বছর না ঘুরতেই পারুল-নাসির দম্পতির মধ্যে পারিবারিক কলহের সৃষ্টি হয়।
আর পারুলের বাবা কুদ্দুছ খা বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি। মেয়েকে নিয়ে নিজের স্বপ্ন পূরণ না হওয়ায় এবং মেয়ে পালিয়ে বিয়ে করায় তার সম্মানহানি হয়। তাই ক্ষুব্ধ হন মেয়ে ও জামাতার প্রতি। ক্ষোভের বশবর্তী হয়ে নাসির উদ্দিনকে ফাঁসাতে নিজের মেয়েকেই খুন করেন বাবা কুদ্দুছ খা। খুনের পর নিজেই বাদি হয়ে উল্টো জামাতার বিরুদ্ধে মামলা করেন। তবে শেষ রক্ষা হয়নি। দীর্ঘ ৭ বছরেও থানা পুলিশ, ডিবি, সিআইডি, পিবিআই (টাঙ্গাইল) তদন্ত করে পারুল হত্যার কোনো রহস্য উদঘাটন করতে না পারলেও অবশেষে খুনের ঘটনা উন্মোচন করেছে ঢাকা জেলা পিবিআই।
রবিবার দুপুর ১২টায় রাজধানীর ধানম-িতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সদর দপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান পিবিআই প্রধান অতিরিক্ত আইজিপি বনজ কুমার মজুমদার।
তিনি বলেন, ঘটনার শুরু ২০১২ সালে। ওই বছর টাঙ্গাইলের কালিহাতির গড়িয়া গ্রামের আ. কুদ্দুছ খার মেয়ে পারুল আক্তার পার্শ্ববর্তী এলাকার নাছির উদ্দিন বাবুকে (১৯) ভালোবেসে ঢাকায় পালিয়ে বিয়ে করে। এই ঘটনায় কুদ্দুছ খা কালিহাতি থানায় জিডি করেছিলেন। উভয়ের পরিবার বিয়ে মেনে না নেওয়ায় তারা ঢাকার আশুলিয়ার জামগড়ায় বসবাস শুরু করে। নাসির উদ্দিন চাকরি নেয় পোশাক কারখানায়। নানা কারণে তাদের পারিবারিক অশান্তি চলতে থাকে। পারুল তার বাবাকে ফোন করে অশান্তির কথা জানায়। বাবা মেয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে বেশ চিন্তিত ছিল। অপমান বোধ ও প্রচ- রাগও ছিল। একপর্যায় ভালো ছেলে দেখে অন্য জায়গায় বিয়ে দিয়ে উন্নত জীবন যাপনের লোভ দেখায় বাবা।
২০১৫ সালের ১৮ জুলাই পারুলের স্বামী নাসির তার নানিকে দেখতে যায়। সেই সুযোগে বাবার দেওয়া আশ্বাসে পারুল পরদিন তার বাবাকে ফোন করে টাঙ্গাইলে চলে যায়। একই দিন পারুল আক্তারের স্বামী নাছির উদ্দিন আ. কুদ্দুছ খার বিরুদ্ধে মেয়েকে বাবার বাড়ি পালিয়ে যেতে প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে আশুলিয়া থানায় জিডি করেন। কিন্তু ওইদিন বাবা তার মেয়েকে নিজ বাড়িতে না নিয়ে বন্ধু মোকাদ্দেছ ওরফে মোকা মন্ডলের বাড়ি ভূঞাপুরে নিয়ে যায়। সেখান থেকে মোকাদ্দেছ ওরফে মোকা মন্ডল ভবিষ্যতে পারুলকে প্রতিষ্ঠিত করবে এবং কিছুদিন নাছির উদ্দিনের কাছ থেকে লুকিয়ে থাকতে হবে এই আশ্বাস দিয়ে জয়পুরহাটের উদ্দেশে রওনা দেন। কুদ্দুছ খায়ের আগে দীর্ঘ ১২ বছর জয়পুরহাটের পাঁচবিবি এলাকায় থাকায় ওই এলাকার সবকিছু চিনতো। পরে মেয়েকে নিয়ে তুলসী গঙ্গা নদীর পাশে নির্জন জায়গায় নিয়ে যায়।
হত্যার ঘটনার বিষয়ে পিবিআই প্রধান জানান, তারা তিনজন রাতের অন্ধকারে নদীর পাড় দিয়ে হাঁটতে থাকেন। মেয়ের আগের কার্যকলাপের অপমান সইতে না পেরে রাগে বাবা মেয়েকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। তারপর মেয়ের ওড়না দুই টুকরা করে বাবা মেয়ের হাত এবং মোকাদ্দেছ মন্ডল পা বাঁধে। বাবার নিজের গামছা দিয়ে মেয়ের গলায় পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে। পারুলের মরদেহ নদীতে ফেলে দিয়ে তারা টাঙ্গাইলে চলে আসেন।
ঘটনার তদন্তের বিষয়ে তিনি বলেন, ২০১৫ সালের ৪ আগস্ট নাছির উদ্দিনের পরিবারের বিরুদ্ধে টাঙ্গাইলের আদালতে পেনাল কোডে মামলা করেন পারুলের বাবা কুদ্দুস খা। কালিহাতি থানা পুলিশ তদন্ত করে প্রেম করে বিয়ে করার সংশ্লিষ্টতা পায়। কিন্তু অভিযুক্তকে না পওয়ায় ঘটনাস্থল তাদের এখতিয়ার বহির্ভূত এলাকা (ঢাকায়) মর্মে প্রতিবেদন দাখিল করে।
ডিবি পুলিশ, পিবিআই (টাঙ্গাইল), সিআইডি (টাঙ্গাইল) তদন্ত করে একই প্রতিবেদন দাখিল করে। পরে আদালত জুডিসিয়াল তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়, বাদী ঢাকার আদালতে মামলা করলে প্রতিকার পেতে পারে। ২০২২ সালের ২৭ নভেম্বর আ. কুদ্দুছ খা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন আদালতে তদন্ত প্রতিবেদনসহ নারী নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এ যৌতুকের জন্য মারপিট করে হত্যা মামলার আবেদন করে।
গত ৩০ নভেম্বর আদালত আশুলিয়া থানাকে মামলা রুজু এবং পিবিআই ঢাকা জেলাকে তদন্তের নির্দেশ দিলে আশুলিয়া থানায় ১১ ডিসেম্বর মামলা দায়ের করা হলে পিবিআই ঢাকা তদন্ত শুরু করে। পিবিআই মো. নাছির উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠায়। বাদী আ. কুদ্দুছ খাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে অসামঞ্জস্য তথ্য দেন। পরে তার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরের সূত্র ধরেই এক পর্যায়ে তিনি নিজেই তার মেয়েকে হত্যার কথা স্বীকার করেন। তার দেওয়া তথ্য যাচাই করার জন্য পিবিআই ঢাকা জেলা জয়পুরহাটের পাঁচবিবি থানা থেকে ২০১৫ সালের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে। পাঁচবিবি থানায় করা মামলার আলামত, সুরতহালের বর্ণনা এবং পোস্টমর্টেম প্রতিবেদনের সঙ্গে কুদ্দুস খার বর্ণনার মিল পাওয়া যায়। এই ঘটনায় আসামি মোকাদ্দেছ ওরফে মোকা মন্ডলকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

 

monarchmart
monarchmart