ঢাকা, বাংলাদেশ   বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

বিয়ের আসরে কিস্তি আদায়ের চেষ্টা, কপাল পুড়ল তরুণীর

প্রকাশিত: ২১:০৪, ১ জানুয়ারি ২০২১

বিয়ের আসরে কিস্তি আদায়ের চেষ্টা, কপাল পুড়ল তরুণীর

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ ফকিরহাট উপজেলায় বিয়ের আসরে ঋণের কিস্তি আদায় করতে গিয়ে এক তরুণীর বিয়ে ভেঙ্গে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে একটি এনজিও সংস্থার কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে গত ২৮ ডিসেম্বর সোমবার উপজেলা সদর ইউনিয়নের উত্তরপাড়া গ্রামে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার ওই তরুণীর মা ইয়াসমিন বেগম ফকিরহাট মডেল থানা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন। লিখিত অভিযোগে ইয়াসমিন বেগম জানান, তিনি একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী ও হতদরিদ্র নারী। তার স্বামী সরোয়ার শেখ একজন দিনমজুর। অভাবে পড়ে তিনি নবোলক পরিষদ নামের স্থানীয় একটি এনজিও থেকে কিছু টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। যা তিনি নিয়মিত পরিশোধও করছিলেন। করোনাকালে তার ঋণের কিস্তি পরিশোধ করতে সমস্যা হচ্ছিল। তাই কয়েকটা কিস্তি তিনি দিতে পারেননি। সম্প্রতি তিনি কাজের উদ্দেশে ঢাকায় যান। প্রায় এক সপ্তাহ আগে মেয়ের বিয়ে দেয়ার জন্য ঢাকা থেকে বাড়িতে আসেন। অভিযোগে তিনি আরও জানান, গ্রামবাসীর কাছ থেকে আর্থিক ও মানবিক সহায়তা নিয়ে গত ২৮ ডিসেম্বর তার মেয়ের বিয়ের আয়োজন করেন। তিনি বাড়িতে এসেছেন খবর পেয়ে বিয়ের দিনই এনজিওর লোকজন বাড়িতে এসে ঋণের টাকার জন্য চাপ সৃষ্টি করাসহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এ সময় তিনি মেয়ের বিয়ের পর এনজিওর কর্মকর্তাদের ঋণের টাকা ফেরত দেয়া প্রতিশ্রুতি দেন এবং তাদের চলে যেতে বলেন। এ সময় এনজিওর লোকজন ছেলেপক্ষকে বলে, এরা লোনের টাকা পরিশোধ করতে পারে না এদের সঙ্গে ছেলের বিয়ে দিয়েন না। এ কথা শুনে ছেলেপক্ষ মেয়ের বাড়ি ছেড়ে চলে যায়। স্থানীয় লোকজন ছেলেপক্ষকে অনেক অনুরোধের পরও তারা চলে যায়। এ বিষেয় এনজিও নবলোকের ম্যানেজার ধ্রীমান মহলদার বলেন, বিষয়টি অনাকাক্সিক্ষতভাবে ঘটেছে। আমাদের মাঠকর্মীরা ওইদিন গিয়েছিল তার বাড়িতে, কিন্তু গালিগালাজ বা কোন খারাপ আচরণ করেনি। বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করা হচ্ছে বলে তিনি জানান। ফকিরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু সাইদ মোঃ খায়রুল আনাম বলেন, অভিযোগ পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
×