ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১

রাজধানীর বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে বিক্রি হচ্ছে কোরবানির মাংস 

প্রকাশিত: ১৭:৫২, ১৭ জুন ২০২৪

রাজধানীর বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে বিক্রি হচ্ছে কোরবানির মাংস 

কোরবানির মাংস 

সারাদেশেই পালিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। কোরবানির মাংস বিক্রি করার কোনো বিধান নেই ইসলাম ধর্মে। এরপরও প্রতি বছরই রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার রাস্তায় রাস্তায় সাজিয়ে বিক্রি করতে দেখা যায় কোরবানির মাংস। যেখানে বাজারের দামের চেয়ে অনেক কম দামে মিলছে গরু ও ছাগলের মাংস।

কোরবানি শেষে গরিব-অসহায় মানুষের মাঝে মাংস বিলিয়ে দিয়েছেন অনেকেই। তবে অনেকেই সেসব মাংস সংগ্রহ করে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার রাস্তায় রাস্তায় বিক্রি করছেন। এসব মাংসের ক্রেতা উপস্থিতিও চোখে পড়ার মতো।
 
সোমবার (১৭ জুন) রাজধানীর খিলগাঁও, মালিবাগ রেইলগেট, মগবাজার মোড় ও রেইলগেইল, লালবাগ ও বংশালসহ সহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

সরজমিনে কারওয়ান বাজার ঘুরে দেখা যায়, অনেকেই মেলার মতো কোরবানির মাংসের পসরা সাজিয়ে বসেছেন। ক্রেতা-বিক্রেতাদের হাক-ডাকে একপ্রকার মুখর হয়ে উঠেছে পুরো এলাকা। মনে হবে এ যেন নিয়মিত মাংসের কোনো বাজার।
 
রাজধানীর বাংলামোটর মোড়ে কোরবানির মাংস বিক্রি করা হোসেন জানান, শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে কোরবানির পশুর মাংস, মাথা, পা, হাড় সংগ্রহ করে নিয়ে এসে বিক্রি করছি। কম দামে পাওয়ায় নিম্ন আয়ের অনেক মানুষই মাংস কিনছেন।

তিনি বলেন, বাজারে প্রতি কেজি গরুর মাংস কিনতে গেলে দাম পড়ছে ৮০০-৯০০ টাকা। তবে সংগ্রহ করা এসব মাংস মাত্র ৪৫০ থেকে ৬৫০ টাকায় কিনতে পারছেন স্বল্প আয়ের মানুষরা। মাংসের পাশাপাশি বিক্রি হচ্ছে গরুর ভুঁড়ি। ১৫০-২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে ভুঁড়ি। যা তাদের মাংসের চাহিদা মেটাতে অনেকটাই সাহায্য করছে।
 
আর ক্রেতারা জানান, কোরবানি দেয়ার সামর্থ্য নেই। বাজারেও মাংসের দাম চড়া। তাই ঈদের দিন মাংস খাওয়ার আশায় রাস্তার পাশ থেকে মাংস কিনেছেন তারা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ক্রেতা জানান, প্রতিবছরই কোরবানির সময় রাস্তার ধারে মাংস বিক্রি হয়। এখানে কম দামে মাংস পাওয়া যায়। যা দিয়ে পরিবারের সবাই একবেলা পেট ভরে গরুর মাংস খেতে পারি।

 

শহিদ

×