ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

মন খারাপ থাকলে নিতে পারেন "আনহ্যাপি লিভ"

প্রকাশিত: ২০:১১, ১৫ এপ্রিল ২০২৪

মন খারাপ থাকলে নিতে পারেন

অফিস চিত্র 

কাজের সময় হবে কম এবং অনেকসময় ইচ্ছা না করলে অফিসে যাওয়া লাগবে না , এমন স্বপ্ন থাকে অনেকেরই। তবে দিনে মাত্র ৭ ঘণ্টা কাজ, মন খারাপ থাকলে পুরো ছুটি! এবার জানা গেল, কোন কোম্পানিতে রয়েছে এমন পলিসি। 

মন খারাপ থাকলে ছুটি দেবে অফিস। এমনই পলিসি চালু রয়েছে একটি চিনা কোম্পানিতে।  "আনহ্যাপি লিভ" কারণ  হিসাবে দেখিয়ে ১০ দিনের ছুটি আবেদন করতে পারেন কর্মীরা।

প্রিয় মানুষের সঙ্গে বিচ্ছেদ বা সংসারে অশান্তির জেরে কষ্ট তো কম বেশি সকলেরই আছে। অনেক সময় আর্থিক কারণও হতে পারে মন খারাপের কারণ। কিন্তু এমন মন খারাপ রয়েছে বলে কি অফিসে ছুটি নেওয়া যেতে পারে। উত্তর হল অবশ্যই পারে, যদি সেই কর্মী প্যাং ডং লাই কোম্পানির কর্মী হন। মন খারাপের কারণ দেখিয়ে যেখানে মিলবে সবেতন ছুটি।

কম-বেশি সকলেই ব্যক্তিগত এবং পেশাগত জীবনকে আলাদা রাখার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করে। কিন্তু সবসময় তা হয়ে ওঠে না। অনেক চেষ্টা করেও কখনও দেখা যায়, একটি কাজ অন্যটির জন্য প্রভাবিত হচ্ছে। ফলে রীতিমতো অসুস্থতার মধ্যে পড়তে হয় কর্মীকে। কিন্তু পরিস্থিতি যাতে এমন না হয়, সেই কারণে কর্মীদের 'আনহ্যাপি লিভ' অফার করছে চিনের প্যাং ডং লাই কোম্পানি। যার আওতায় মন খারাপ থাকলে কর্মীরা ছুটি নিতে পারেন। কোনও কর্মী যদি 'আনহ্যাপি লিভ' -এর আবেদন করেন, তবে তাঁকে সেই ছুটি কোম্পানির তরফে দেওয়া হয়।

প্যাং ডং লাই চিনের একটি খুচরো কোম্পানি। সংস্থার চেয়ারম্যান ও প্রতিষ্ঠাতা ইউ ডংলাই পেশাগত জীবনের সঙ্গে পার্সোনাল লাইফের দূরত্ব রাখতেই পছন্দ করেন। সেই কারণেই কর্মীদের জন্য তিনি এই নতুন ধরনের ছুটি চালু করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, মন খারাপ থাকলে কর্মীরা ১০ দিনের অতিরিক্ত ছুটি নিতে পারবেন। সবার জীবনে এমন একটা সময় আসে যখন মন ভালো থাকে না, এমন অবস্থায় তাদের থেকে সঠিক কাজ পাওয়া যায় না।

ইতিমধ্যেই প্যাং ডং লাই কোম্পানিতে রয়েছে অনেক সুবিধা
কর্মচারীদের সুবিধার্থে এই কোম্পানিতে ইতিমধ্যে অনেক নিয়ম রয়েছে। কোম্পানির পলিসি অনুযায়ী, কর্মীদের দিনে মাত্র ৭ ঘন্টা কাজ করতে হয়। এছাড়াও, তারা সপ্তাহে ২ দিনের ছুটি পান। পাশাপাশি, বার্ষিক ছুটির সংখ্যাও রয়েছে প্রায় ৩০ থেকে ৪০টি।

কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা জানিয়েছেন, 'আমরা খুব বড় কোম্পানি হতে চাই না। আমরা শুধু চাই, কর্মীরা খুশি থাকুক। তারা কাজ করুক পাশাপাশি সুখে ও শান্তিতেও থাকুক। কর্মচারীদের জীবনে সুখ- শান্তি থাকলে কোম্পানির অগ্রগতি হবেই।'

কোম্পানির এমন পলিসি ও বস সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচুর প্রশংসা পাচ্ছে। একজন এ প্রসঙ্গে লিখেছেন, 'এমন বস ও কোম্পানির পলিসি সারা দেশে প্রচার করা উচিত।' বহু নেটিজেন দাবি করেছেন, 'আমি এই কোম্পানিতে কাজ করতে চাই।' 

 

শিলা 

×