ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১

হেয়ার কাটে বৈচিত্র্য

প্রকাশিত: ২১:২৯, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩

হেয়ার কাটে বৈচিত্র্য

হেয়ার কাটে বৈচিত্র্য

নারী হোক বা পুরুষ সকলেরই সৌন্দর্যের অন্যতম অনুষঙ্গ চুল। কত কবিতা কত গান রচিত হয়েছে এই চুল নিয়ে। চুল তার কবেকার অন্ধকার বিদিশার নেশা... খোলা চুলে হেঁটে যাওয়া কোনো তরুণী দেখলে মনের অজান্তেই জীবনানন্দ দাশের এই কবিতার মাঝে ডুবে যাই। আর চুলের সৌন্দর্য বর্ধনে নানা রকম হেয়ার কাট স্টাইল আবিষ্কৃত হয়েছে যুগে যুগে। এসব চুল কাটার রয়েছে বিভিন্ন নাম। মুখাবয়বের ওপর নির্ভর করে চুল কাটার ডিজাইন। হেয়ার কাটিংয়ের মাধ্যমে সৌন্দর্য ব্যক্তিত্ব যেমন ফুটিয়ে তোলা যায়, তেমনি বয়সও কমিয়ে ফেলা যায় নিমিষেই। মানানসই চুলের স্টাইলে চলে আসতে পারে মার্জিত ভাবও। অনেকেরই পছন্দ একটু ঢেউ খেলানো দীঘল কালো চুল, কারও হয়ত পছন্দ ছোট ছাঁচে কাটা একটু কোঁকড়ানো চুল। এক্ষেত্রে অবশ্যই মাথায় রাখা প্রয়োজন, নিজের মুখের শেপ বা ধরন। কোন বিখ্যাত সেলিব্রেটিকে দেখে ঝোঁকের মাথায় তার মতো হেয়ারস্টাইল করলে হয়ত আপনাকে অসুন্দরও দেখাতে পারে। তাই নিজে না বুঝলেও কোন বিউটিশিয়ানের সঙ্গে পরামর্শ করে ঠিক করুন আপনাকে কোন কাটে ভালো মানাবে।

লম্বা চুলের হেয়ার কাট : আটপৌরে বাঙালি নারী মানেই দীঘল কালো চুল। লম্বা চুলের ধাঁচেও এখন কিছুটা পরিবর্তন এসেছে। চুলের সিঁথির পরিবর্তন করেই লুক- পরিবর্তন নিয়ে আসা যায় সহজেই। মাঝে সিঁথির ক্লাসিক লুক আজকাল একটু কমই দেখা যায়। কাঁধ পর্যন্ত চুল রেখে এক পাশে সিঁথি করার ট্রেন্ড খুব লক্ষণীয়। তবে যাদের চুল একটু ঘন, তারা চুলগুলো একটু ফুলিয়ে নিয়ে পেছনের দিকে টেনে হেয়ার ক্লিপ দিয়ে আটকে রাখতে পারেন সহজেই। আর যারা টিনএজ, তারা হেয়ার ব্যান্ড ব্যবহার করে পনিটেইল করলেও ভালো লাগবে। এছাড়া লম্বা চুলের লেন্থ- ভিন্নতা নিয়ে আসতে পারেন লেয়ার কাটিং-এর মাধ্যমে। পছন্দ এবং স্টাইল অনুযায়ী লেয়ার, ব্যাংস, ভলিউম লেয়ার, স্টেপ কাট সম্পর্কে জেনে নিয়ে আপনাকে যে কাটে মানাবে সেভাবে চুল কাটুন। বাড়তি সৌন্দর্যের জন্য চুল কালারও করা যেতে পারে।

ববকাট হেয়ার স্টাইল : ববকাট মানেই শত রকমের এক্সপেরিমেন্ট। মুখের শেপের সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে  ট্রাই করতে পারেন বিভিন্ন ধরনের ববকাট। এক্ষেত্রে একটু গোলগাল মুখের মেয়েদের জন্য -লাইন ববকাট হতে পারে পারফেক্ট। -লাইন ববকাটের জন্য সামনের দিকে প্রায় থুঁতনি পর্যন্ত চুল রেখে পেছনের দিকে কিছুটা ছোট করে চুল কাটতে হবে। আউটলুক অনুযায়ী কখনো মাঝ বরাবর আবার কখনো একটু পাশে সিঁথি করে আনতে পারেন ভিন্নতা।

এছাড়াও সামনের দিকের চুলগুলো তুলনামূলকভাবে বড় থাকে, তাই একটু ব্যাংস করে হেয়ার স্টাইলে আনতে পারেন নিজস্বতা। যারা খুব বেশি এক্সপেরিমেন্টের ঝুঁকি নিতে চাইছেন না, তারা শোল্ডার লেন্থ বব কাট অর্থাৎ কাঁধ পর্যন্ত সমান করে ছেঁটে নিতে পারেন। এক্ষেত্রে খুব বেশি লেয়ার ব্যবহার না করে, চুলগুলো একদম সোজা রাখাটাই ভালো। আর ভিন্নতা নিয়ে আসুন আপনার সিঁথি কোন পাশে করছেন তার ওপর ভিত্তি করে। চাইলে আরও একটু ছোট করে থুঁতনি পর্যন্ত ছেঁটে নিয়ে চিন লেন্থ বব কাট হেয়ার স্টাইলও ট্রাই করে দেখতে পারেন, যদি আপনার মুখায়ব একটু লম্বাটে হয়ে থাকে। শোল্ডার লেন্থ বব কাটের পর কাঁচি দিয়ে কিছুটা এলোমেলোভাবে কেটে ট্রাই করুন শ্যাগি বব। তবে খেয়াল রাখবেন, অবিন্যস্তভাবে ছাঁটতে গিয়ে কোথায় যেন খুব বেশি ছোট অথবা খুব বেশি বাঁকা না হয়ে যায়। শ্যাগি বব-এর জন্য চুলের ডিজাইন একটু ফুলিয়ে রাখতে পারলে সত্যিই সুন্দর লাগবে।

পিক্সি হেয়ার স্টাইল : একদম ছোট চুলের পিক্সি হেয়ার স্টাইলের ট্রেন্ড ৯০ দশকে শুরু হলেও, ইদানীং তা আবার ফ্যাশন- পরিণত হয়েছে। যাদের মুখাবয়ব একটু ছোট ধাঁচের, তাদের পিক্সি হেয়ার স্টাইলে বেশ মানিয়ে যায়। পিক্সি হেয়ার স্টাইলের জন্য প্রথমেই খেয়াল রাখবেন, চুলের যেন কোনো ধরনের ক্ষতি না হয়। চুলের ডিজাইন- ভিন্নতা নিয়ে আসুন- পেছন থেকে আন্ডারকাট করে সামনের দিকে কপালের ওপর একটু কোঁকড়া করে নিয়ে। এছাড়া লেয়ার করে কপালে ঘাড়ের ওপর ছড়িয়ে দিয়েও আনতে পারেন এলিগেন্ট লুক। পিক্সি হেয়ার স্টাইলে আপনার মুখের শেপ অনুযায়ী একটু ওয়েভ অথবা কার্ল করেও আনতে পারেন নতুনত্ব। অনেক সময় কিছুটা অবিন্যস্তভাবে ছেঁটে নিলেও হেয়ার স্টাইল- চলে আসে ট্রেন্ডি লুক। চাইলে হেয়ার কালার করেও আনতে পারেন ভিন্নতা।

তবে হেয়ার স্টাইল যেটিই করুন, অবশ্যই এক্সপার্ট বিউটিশিয়ানদের কাছ থেকেই করাবেন। প্রয়োজনে চুল কাটা শুরু করার আগেই হেয়ার এক্সপার্টের সঙ্গে আপনি যে স্টাইলটি করতে চাইছেন তা নিয়ে আলোচনা করে নিন। আপনাকে মানাবে কি না অথবা তার কোনো সাজেশন থাকলে সেটিও জেনে নিন। সঠিক চুল কাটার মাধ্যমে যেমন বয়স লুকানো যায় তেমনি নিজের সৌন্দর্যও বাড়ানো যায়।

ফ্যাশন প্রতিবেদক

 

×