ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১

যেসব বিশ্বনেতা উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন

প্রকাশিত: ১৭:২৮, ২০ মে ২০২৪

যেসব বিশ্বনেতা উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনার শিকার হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন যারা

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনার শিকার হয়ে সদ্য প্রাণ হারিয়েছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি। তাঁর আগেও বিভিন্ন সময়ে বেশ কয়েকজন সরকারপ্রধান এমন দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন। 

বিশ্বনেতাদের এমন মৃত্যু জনগণকে শোকস্তব্ধ করার পাশাপাশি দেশগুলোর রাজনৈতিক ভবিষ্যতকে এক ধরনের অনিশ্চয়তার মধ্যে ফেলে দেয়, ক্ষমতাকাঠামোয় তৈরি করে শূন্যতা। দুর্ঘটনা হলেও অধিকাংশ সময় এসব মৃত্যুকে ঘিরে নানা জল্পনা আর ষড়যন্ত্রতত্ত্বের খবর ছড়ায়। উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নিহত এমন ১০ জন বিশ্বনেতা সম্পর্কে জানা যাক।

ইব্রাহিম রাইসি: ২০২১ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়ে ইরানের অষ্টম প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতায় বসেছিলেন ইব্রাহিম রাইসি। মাত্র তিন বছরে নিজের শক্ত অবস্থান জানান দিয়েছিলেন আন্তর্জাতিক মহলে। এক হেলিকপ্টার দুর্ঘটনা কেড়ে নিল তাঁর প্রাণ। গতকাল রোববার রাইসি একটি বাঁধ উদ্বোধন করতে আজারবাইজান সীমান্তবর্তী এলাকায় গিয়েছিলেন। সেখান থেকে তিনটি হেলিকপ্টারের বহর নিয়ে পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের রাজধানী তাবরিজে ফিরছিলেন। ফেরার পথে পূর্ব আজারবাইজানের জোলফা এলাকার কাছে প্রেসিডেন্টকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্ত হয়। এতে হেলিকপ্টারে থাকা প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির আব্দোল্লাহিয়ানসহ সকল আরোহী নিহত হন। এখন পর্যন্ত দুর্ঘটনার প্রকৃত কারণ জানা যায়নি।

লেচ কাকজিনস্কি: ২০১০ সালে উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নিহত হন পোল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট লেচ কাকজিনস্কি। রাশিয়ার স্মোলেনস্কের কাছে ওই দুর্ঘটনায় প্রেসিডেন্ট ও সঙ্গে থাকা অন্যান্য শীর্ষস্থানীয় পোলিশ কর্মকর্তারা নিহত হন। 

ইব্রাহিম নাসির: ২০০৮ সালে মালদ্বীপের দ্বিতীয় প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম নাসির হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত হন। মালদ্বীপের একটি জনবসতিহীন দ্বীপে ব্যক্তিগত সফরে যাওয়ার সময় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

হাফিজ আল-আসাদ: ২০০০ সালে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট হাফিজ আল-আসাদ উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নিহত হন। দেশটির দামেস্কের কাছে দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। এই দুর্ঘটনার কারণ নিয়েও বিতর্ক রয়েছে। কারণ হিসেবে বলা হয়েছিল আসাদের হার্ট অ্যাটাকের কারণে উড়োজাহাজ জরুরি অবতরণ করাতে চাইলে বিধ্বস্ত হয়। তবে অনেকে দাবি করেন, এটি ষড়যন্ত্র ছিল।

জেনারেল জিয়া-উল-হক: ১৯৮৮ সালে পাকিস্তানের ষষ্ঠ প্রেসিডেন্ট জিয়া-উল-হক উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নিহত হত। দেশটির বাহাওয়ালপুরের কাছে ওই দুর্ঘটনা হয়। দুর্ঘটনার কারণ নিয়ে নানা বিতর্ক রয়েছে। কেউ বলেন যান্ত্রিক ত্রুটি, কেউ নাশকতা আবার কেউ দাবি করেন ষড়যন্ত্র করেই দুর্ঘটনা ঘটনানো হয়েছিল।

র‍্যামন ম্যাগসেসে: ১৯৫৭ সালে ফিলিপাইনের সপ্তম প্রেসিডেন্ট র‍্যামন ম্যাগসেসে উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নিহত হন। দেশটির সেবু শহরের মাউন্ট মানুংগালে পার্বত্য এলাকায় দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। ম্যাগসেসে তাঁর শক্তিশালী কমিউনিস্ট বিরোধী নীতি এবং গণতন্ত্রের প্রতি চেতনার জন্য সুপরিচিত ছিলেন।

জুভেনাল হাব্যারিমানা ও সাইপ্রিয়েন এনটারিয়ামিরা: ১৯৯৪ সালে রুয়ান্ডার প্রেসিডেন্ট এবং বুরুন্ডির প্রেসিডেন্ট সাইপ্রিয়েন এনটারিয়ামিরা উড়োজাহাজ বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত হন। তাঁরা দুজনে একই উড়োজাহাজে ছিলেন। উড়োজাহাজাটি রুয়ান্ডার কিগালিতে অবতরণ করার সময় গুলিবিদ্ধ হয়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই রুয়ান্ডা গণহত্যার সূত্রপাত বলে মনে করেন অনেকে। 

সামোরা ম্যাচেল: ১৯৮৬ সালে মোজাম্বিক-দক্ষিণ আফ্রিকা সীমান্তের কাছে একটি উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় মোজাম্বিকের প্রেসিডেন্ট নিহত হন। বিধ্বস্তের নেপথ্যে দক্ষিণ আফ্রিকার জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

লিওন এমবা: ১৯৬৭ সালে গ্যাবনের প্রথম প্রেসিডেন্ট লিওন এমবা উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় মারা যান। গ্যাবন উপকূলে দুর্ঘটনার শিকার হয় উড়োজাহাজটি।

তথ্যসূত্র: ফার্স্ট পোস্ট, পলিটিকো

 

এবি

×