ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৯

monarchmart
monarchmart

ট্রাম্পের টুইট ঘিরে বিভ্রান্তি

প্রকাশিত: ০৮:৩৫, ২৪ মার্চ ২০১৯

ট্রাম্পের টুইট ঘিরে বিভ্রান্তি

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের একটি টুইট বার্তা নিয়ে ব্যাপক বিভ্রান্তি ছড়িয়েছে। ওই টুইটে তিনি উত্তর কোরিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা এবং তা প্রত্যাহার করা নিয়ে মন্তব্য করেছেন। পিয়ংইয়ংয়ের সঙ্গে অবৈধ উপায়ে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে সন্দেহে মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার চীনভিত্তিক দুটি জাহাজ কোম্পানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। পরদিনই এক টুইটে ট্রাম্প জানান, তিনি উত্তর কোরিয়ার ওপর ‘অতিরিক্ত নিষেধাজ্ঞা’ তুলে নিচ্ছেন। বিবিসি। ট্রাম্পের এ অবস্থানকে অর্থ মন্ত্রণালয়ের দেয়া সর্বশেষ নিষেধাজ্ঞার প্রতিক্রিয়া হিসেবেই ধরে নেন অনেকেই; যা ঠিক নয় বলে পরে নিশ্চিত করেন কর্মকর্তারা। ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার ওপর আরোপ করা কোন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেননি বলেও জানিয়েছেন তারা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই কর্মকর্তারা বলছেন, প্রেসিডেন্টের টুইটে সেসব নিষেধাজ্ঞার কথাই বলা হয়েছে, যা সামনের দিনগুলোতে আরোপ করার কথা বিবেচনা করা হচ্ছিল। টুইট ঘিরে এ বিভ্রান্তির পেছনে পিয়ংইয়ংয়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা নিয়ে ট্রাম্প ও তার প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিদের দ্বন্দ্বও প্রকট হয়েছে। হোয়াইট হাউস বলছে, উত্তর কোরিয়ার ওপর আরও নিষেধাজ্ঞাকে প্রেসিডেন্ট অপ্রয়োজনীয় মনে করছেন। অন্যদিকে তাদেরই নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন বৃহস্পতিবার দেয়া নতুন নিষেধাজ্ঞাকে ‘গুরুত্বপূর্ণ’ আখ্যা দিয়েছেন। ভিয়েতনামে উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ নেতা কিম জং উন ও মার্কিন প্রেসিডেন্টের দ্বিতীয় শীর্ষ বৈঠক ‘ব্যর্থ’ হওয়ার পর দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কে আরও অবনতি হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞার কয়েক ঘণ্টা পর উত্তর কোরিয়া কায়েসংয়ে দক্ষিণের সঙ্গে তাদের লিয়াজো অফিস থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয়। দুটি ঘটনা একে অপরের সঙ্গে সম্পর্কিত কিনা তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। শুক্রবার ট্রাম্প তার টুইটে বলেন, উত্তর কোরিয়ার ওপর ক্রিয়াশীল নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় আজ আরও কিছু অতিরিক্ত নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। আজই আমি সেসব অতিরিক্ত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছি। ট্রাম্প শুক্রবার টুইটটি করলেও সেদিন মার্কিন ট্রেজারি বিভাগ পিয়ংইয়ংয়ের ওপর কোন নতুন নিষেধাজ্ঞা না দেয়ায় অনেকেই বৃহস্পতিবারের নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে প্রেসিডেন্টের বক্তব্যকে গুলিয়ে ফেলেন। এ বিষয়ে নিশ্চিত হতে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, প্রেসিডেন্ট বৃহস্পতিবার দেয়া নিষেধাজ্ঞাগুলো নয় বরং সম্ভাব্য অন্যান্য নিষেধাজ্ঞাগুলো প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছেন। পারমাণবিক কর্মসূচীর বিস্তৃতি ও ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের কারণে পিয়ংইয়ংয়ের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি জাতিসংঘ ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের নিষেধাজ্ঞা আছে।
monarchmart
monarchmart