ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ২০ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১

পিত্তথলিতে পাথর

ডা. মো.আশরাফুর রহমান

প্রকাশিত: ০১:২৯, ৬ জুন ২০২৩

পিত্তথলিতে পাথর

পিত্তথলিতে পাথর

পিত্তথলিতে পাথর একটি সাধারণ সার্জিক্যাল সমস্যা। পেটের ডানদিকে যকৃতের পেছনে ও নিচের দিকে পিত্তথলি থাকে। খাবার হজমে, বিষেশ করে চর্বি জাতীয় খাবার হজম করতে পিত্তরস দরকার হয়। পিত্তথলির পাথর বা কলেলিখিয়াসিস হল গলব্লাডারের ভিতরের ক্যালসিয়াম এবং অন্যান্য নুনের জমা হওয়া কঠিনীভূত পাথরের মতো অংশ। 
পিত্তথলির পাথর হওয়ার প্রধান কারণ সমূহ :
-পিত্তে অত্যধিক কলেস্টেরল
-লিবারের কিছু রোগ বা রক্ত কোষের রোগগুলোতে অত্যধিক বিলিরুবিন গঠিত হয়ে পিত্তথলিতে জমে পাথররের সৃষ্টি হয়।
-যদি গলব্লাডারের ঠিকমতো কাজ না করে, তার ভিতরের সামগ্রী খালি না হয় এবং তা জমতে থেকে পাথরে পরিণত হয়।
-কিছু ঝুঁকির বিষের মধ্যে রয়েছে ডায়াবেটিস, হরমোনগত অসামঞ্জস্যতা, দৈহিক স্থূলতা এবং জন্ম নিয়ন্ত্রণ বাড়া।
প্রধান লক্ষণসমূহ :
-অনেক ক্ষেত্রে কোন উপসর্গ দেখা দেয় না কেবল এসিডিটির সমস্যা হয়।
-পিত্তথলিতে প্রদান বা ইনফেকশন হয় তখন 
(১) ত্রীব পেটে ব্যথা
(২) বমি বা বমি বমি ভাব হয়।
-এমনকি এই পাথরের জন্য অগ্নাশয়ের প্রদাহ পর্যন্ত হতে পারে যা মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ।
অনেকেই পিত্তথলিতে পাথর হলে চিন্তায় পড়ে যায়। অস্ত্রোপাচার করবো নাকি ওষুধের মাধ্যমে চিকিৎসা করব।  অস্ত্রোপাচার করলে সেটি কিভাবে করব– ল্যাপারোস্কপির মাধ্যমে, নাকি কেটে? ল্যাপারোস্কপির মাধ্যমে করলে কি কিছু পাথর থেকে যাবে? রোগীদের আশ্বস্ত করে বলতে চাই, আজকাল অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ল্যাপারোস্কপির মাধ্যমে সকল যাবে চিকিৎষা সম্ভব। এবং রোগীরা অস্ত্রোপাচারের পরের দিনই বাসায় চলে যেতে পারেন।

পিত্তথলির পাথর ওষুধে যাবে না।
 বরং এ পাথর যদি দীর্ঘদিন থেকে যায় অনেক জটিলতা দেখা দিতে পারে, এমনকি ক্যান্সারও হতে পারে। 
কাজেই পিত্তথলিতে পাথর হলে বা লক্ষণসমূহ অনুভব হলে বিলম্ব বা দুশ্চিন্তা না করে নিকটস্থ জেনারেল ও সার্জনের পরামর্শ নিয়ে রাখা উচিত। 

লেখক : জেনারেল, ল্যাপোরোস্কোপিক অ্যান্ড ক্যান্সার সার্জন কনসালটেন্ট (সার্জারি), ক্যান্সার সার্জারি বিভাগ,
জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, চেম্বার: আলোক হেল্থ কেয়ার লিমিটেড, মিরপুর-১০, ঢাকা। 
প্রয়োজনে হট লাইন: ১০৬৭২,
০৯৬৭৮-৮২২-৮২২

×