ঢাকা, বাংলাদেশ   শুক্রবার ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সংস্কৃতি সংবাদ

গান, কবিতা ও নাটকে স্মরণ বর্ণমালার শহীদদের

সংস্কৃতি প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০০:২৭, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

গান, কবিতা ও নাটকে স্মরণ বর্ণমালার শহীদদের

ছায়ানটে ভাষা শহীদদের স্মরণানুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন স্বাধীন বাংলা বেতারের শিল্পী শাহীন সামাদ

বাঙালি জাতির চির প্রেরণা ও অবিস্মরণীয় দিন একুশে ফেব্রুয়ারি। এখন এটি সারা বিশ্বে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। রক্তের বিনিময়ে শৃঙ্খল মুক্ত হয়েছিল দুঃখিনী বর্ণমালা ও মায়ের ভাষা। আর এর মাধ্যমে বাঙালি জাতিসত্তা বিকাশের যে সংগ্রামের সূচনা হয়েছিল তা মুক্তিযুদ্ধের গৌরবময় পথ বেয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের মধ্য দিয়ে চূড়ান্ত পরিণতি লাভ করে। তাই একুশে ফেব্রুয়ারি আমাদের জাতীয় জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। বুধবার বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করা হয় ভাষা শহীদদের।

মুখর ছিল সংস্কৃতি অঙ্গনও। রাজধানীর বিভিন্ন মঞ্চে নাচে, গানে, কবিতা ও নাটকে স্মরণ করা হয় বর্ণমালার সেসব শহীদদের। ছায়ানট ॥ স্মৃতিকথা, একক ও সম্মেলক গান পরিবেশনার মধ্যদিয়ে ভাষা শহীদদের স্মরণ করে ছায়ানট। মিলনায়তন ভর্তি দর্শক, শিক্ষার্থী আর শিক্ষকদের উপস্থিতি আয়োজনের ভাবমূর্তিকে আরেক ধাপ এগিয়ে দিয়েছে। অনুষ্ঠানের সূচনা হয় শিল্পী ডালিয়া নওশিনের কণ্ঠে একক গান দিয়ে। তিনি পর পর পরিবেশন করেন ‘ও কোকিলা রে’ ও ‘ওরে বিষম দৈরায় ঢেউ’।

এরপর সংগীত পরিবেশন করেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী শাহীন সামাদ। শিল্পী লুসি রহমানের কণ্ঠে পরিবেশিত হয় গান ‘আমি বাংলা ভাষার এক তারাতে’, ‘ও আমার বাংলা ভাষা রে’ ও ‘এই স্বাধীনতা ম্লান হয়ে যাবে’। পরে ছায়ানটের শিল্পীদের পরিবেশনায় ছিল পর পর দুটি সম্মেলক গান ‘এই না বাংলাদেশের গান’ ও ‘লাখো লাখো শহীদের রক্তমাখা’। উপস্থাপনা ও আলোচনায় অংশ নেন হবিব রহমান। জাতীয় সংগীতের মধ্যদিয়ে শেষ হয় ছায়ানটের অনুষ্ঠান। 
শিল্পকলা একাডেমি ॥ বিশ্ব মায়ের সুর-সংগীত-বাণী শিরোনামে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে পালিত হয় অমর একুশে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বুধবার বিকেলে মহান ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের মাধ্যমে শুরু হয় অনুষ্ঠান। সম্মিলিতভাবে দেশী-বিদেশী শিল্পীদের অংশগ্রহণে পরিবেশিত হয় জাতীয় সংগীত ও অমর একুশের গান।

পরিবেশিত হয় ওয়ান্ডারল্যান্ড ইন্দোনেশিয়া ডান্স। নৃত্য পরিবেশন করেন নেপালি শিল্পী নিতা খাদকা, রিতু চালিসে, সাদিকচিয়া সিনজালি মাগার। এরপর হিন্দি কবিতা আবৃত্তি করেন ভারতের ড. পুনম গুপ্তা। রাশিয়ান ভাষায় ছিল কবিতা আবৃত্তি। চীনের নৃত্যশিল্পীরা উপস্থাপন করেন মার্শাল আর্ট নৃত্য। একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে সাংস্কৃতিক পরিবেশনা অনুষ্ঠিত হয় সন্ধ্যায়।

শিল্পকলা একাডেমির নৃত্যদল পরিবেশন করে ‘আমি দাম দিয়ে কিনেছি বাংলা’ গানের সঙ্গে নৃত্য। রাশিয়ান ভাষার গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করে সে দেশের শিল্পীরা। ইরান দূতাবাসের পরিবেশনায় ছিল আবৃত্তি। সবশেষে মালায়ালাম কবিতা, নৃত্য এবং সংগীত পরিবেশন করেন ভারতের ২২ জন শিল্পী। 
জাতীয় জাদুঘর ॥ শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে ‘বঙ্গবন্ধু, রাষ্ট্রভাষা ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক সেমিনার ও আলোচনা সভা হয়। জাদুঘর আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় জাদুঘর পর্ষদ সভাপতি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। সভাপতিত্ব করেন জাদুঘরের মহাপরিচালক মো. কামরুজ্জামান।

প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাদুঘরের ইতিহাস ও ধ্রুপদী শিল্পকলা বিভাগের উপ-কীপার সাইদ সামসুল করীম। আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডীন অধ্যাপক নিসার হোসেন। সেমিনার ও আলোচনা সভা শেষে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করেন শিল্পী ফারজানা আফরিন ইভা এবং একুশের কবিতা আবৃত্তি করেন বেলায়েত হোসেন।
শিশু একাডেমি ॥ মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শিশু একাডেমিতে ছিল আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কার বিতরণ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী সিমিন হোসেন (রিমি)।

বিশেষ অতিথি ছিলেন ইতিহাসবিদ অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মুহিবুজ্জামান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন একাডেমির চেয়ারম্যান লাকী ইনাম। আলোচনা শেষে প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শিশুদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এরপর শিশু একাডেমির শিশুশিল্পীরা পরিবেশন করে গান, কবিতা ও নৃত্যনাট্য।

×