ঢাকা, বাংলাদেশ   শনিবার ০৮ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯

সালমান শাহর তিন নায়িকা পর্দায় নেই স্মরণে আছে

নুরুল ইসলাম

প্রকাশিত: ২১:৪১, ১০ আগস্ট ২০২২

সালমান শাহর তিন নায়িকা পর্দায় নেই স্মরণে আছে

শাহনাজ

নব্বই দশকে এক ঝাঁক নতুন নায়ক-নায়িকার মধ্য দিয়ে বাংলা সিনেমায় দারুণ পরিবর্তন আসেসব শ্রেণীর দর্শকের কাছে সিনেমা বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম হয়ে ওঠেসে সময়ের প্রায় সব নায়ক-নায়িকাই গ্ল্যামার ও অভিনয় দিয়ে দর্শকের হৃদয়ে জায়গা করে নেনএদের অনেকেই এখন সিনেমায় নেইতবুও দর্শক তাদের ভালবাসেনসিনেমার পর্দায় না থাকলেও তারা দর্শকের স্মরণে আছেনসেই সময়ের জনপ্রিয় তিন নায়িকা শাহনাজ, লিমা ও শিল্পীএরা তিনজনই প্রয়াত নায়ক সালমানের সঙ্গে পর্দা ভাগ করেছেনউপহার দিয়েছেন ব্যবসাসফল সিনেমাতাদের নিয়ে আমাদের আজকের এই প্রতিবেদন...

শাহনাজ : বাংলা সিনেমার লক্ষ্মীনায়িকা বলা হয় শাহনাজকেযার কোন সিনেমা ফ্লপ হয়নি সিনেমা সংশ্লিষ্টদের অভিমতকিশোরগঞ্জের বাজিতপুর থানার ভাগলপুরের মেয়েতার জন্ম ১৫ জুন ১৯৬৯পারিবারিক নাম ফাতেমা আক্তার রিতা১৯৯২ সালে পরিচালক চাষী হুমায়ুন কবিরের পদ্মার চরসিনেমা দিয়ে নায়িকা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন তিনিতবে জ্যোতিসিনেমার মধ্য দিয়ে নিজের জায়গা শক্ত করেনএছাড়া সালমান শাহর বিপরীতে সত্যের মৃত্যু নেইসিনেমাতে অভিনয় করে সালমান ভক্তদের মনে অন্যরকম ভাবে আসন নেনশাহনাজ অভিনীত উল্লেখযোগ্য সিনেমাগুলো হলো দেশের মাটি’, ‘চালবাজ’, ‘হুলিয়া’, ‘বাবা মাস্তান’, ‘অন্ধ আইন’, ‘আত্মত্যাগ’, ‘বাংলার মা’, ‘মহ, ‘মোনাফেকসালমান শাহ, অমিত হাসান, ওমর সানী, আমিন খান, মান্নাসহ অনেক নায়কের সঙ্গেই তিনি উপহার দিয়েছেন সুপারহিট সিনেমা২০০২ সাল পর্যন্ত  একটানা কাজ করেছেন তিনিএরপর সিনেমা থেকে আড়ালে থাকছেন অভিনেত্রীসিনেমা সংশ্লিষ্ট কোনকিছু বা কারও সঙ্গেই তার যোগাযোগ নেইবিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, ঢাকাতেই থাকেন শাহনাজবিয়ে করে সংসারী হয়েছেনমন দিয়েছেন ধর্ম কর্মেবাইরে খুব একটা যান নাযদিও বা যান বোরখায় নিজেকে ঢেকে রাখেনজীবন থেকে রঙিন দুনিয়ার সবকিছুই মুছে দিয়েছেন তিনিতবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে এখনো শাহনাজের নামের মুগ্ধতা ছড়ান তার ভক্তরানায়ক মান্নার ভক্তরাও তাকে খুব মিস করেন, নানা স্ট্যাটাসে সেটাই প্রকাশ করেন তারাক্যারিয়ারের শেষদিকে মান্নার সঙ্গে জুটি বেঁধে বহু হিট-সুপারহিট সিনেমা উপহার দিয়েছেন এ অভিনেত্রী

লিমা : শামীমা আলী লিমাতিনি লিমা নামে চিত্রজগতে খ্যাতি অর্জন করেনকমল সরকার পরিচালিত সুখের আগুনসিনেমার মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্রে আসেন তিনিতিনি ক্যারিয়ারে মোট ২৫টি ছবিতে অভিনয় করেছেনলিমার ক্যারিয়ার বদলে দেয় নব্বইয়ের দশকের ছবি প্রেমগীত১৯৯৩ সালে মুক্তি পায় এটিসেই ছবির আমার সুরের সাথী আয় রেগানটি এখনো অনেকেরই মনে আছেদেলোয়ার জাহান ঝন্টুর এ ছবির পরই ব্যস্ততা বেড়ে যায় অভিনেত্রীরতাকে প্রয়াত নায়ক নায় সালমান শাহর বিপরীতে দেখা যায় প্রেম যুদ্ধকন্যাদানসিনেমাতেতার অভিনীত উল্লেখযোগ্য আরও কিছু সিনেমা হলো গরিবের সংসার’, ‘জজ ব্যারিস্টার’, ‘নীল সাগরের তীরে’, ‘চাকরানীহুলিয়া।  নায়িকা হিসেবে ঢালিউডে লিমার আত্মপ্রকাশ ১৪ বছর বয়সেএর আগে বিটিভির অঙ্কুর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শিল্পাঙ্গনে যাত্রা শুরু করে তারক্রমেই অভিনয়, নাচ, গানে ভাল করতে থাকেন তিনিতারপর যুক্ত হন সিনেমায়১৯৯৮ সালের শেষের দিকে হঠা অভিনয় থেকে দূরে চলে যান তিনিবাণিজ্যিক ধারার জনপ্রিয় সিনেমার নির্মাতা দেলোয়ার জাহান ঝন্টুর ছবিতেই বেশি অভিনয় করেছেন লিমাএই নির্মাতা বলেন, ‘ভাল একটা ক্যারিয়ার ছেড়ে হঠা চলে গেল লিমাএখন আর তার খবর কেউই জানি নাজানা যায়, এ অভিনেত্রী এখন থাকেন ঢাকার মোহাম্মদপুরে

চিত্রনায়িকা শিল্পী : বাংলার কমান্ডোসিনেমার মধ্য দিয়ে রূপালী পর্দায় অভিষেক হয় নব্বইয়ের জনপ্রিয় নায়িকা শিল্পীরএতে তার সহশিল্পী ছিলেন বাপ্পারাজ, আমিন খান ও হুমায়ুন ফরীদি১৯৯৫ সালের ১১ মে মুক্তি পায় এটিতবে এ অভিনেত্রী প্রথম সাইন করেন আওলাদ হোসেনের নাগ-নর্তকীতেতার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবির মধ্যে রয়েছে প্রিয়জন’, ‘বাবা কেন চাকর’, ‘শেষ প্রতীক্ষা’, ‘মুক্তি চাই’, ‘লাভলেটার’, ‘বীর সন্তান’, ‘মিথ্যার মৃত্যু’, ‘দোস্ত আমার দুশমন’, ‘গৃহবধূ’, ‘কে আমার বাবা’, ‘রাজপথের রাজা’, ‘শক্তের ভক্ত’, ‘সুজনবন্ধুইত্যাদিপাঁচ বছরে ৩৫টি ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনিদুই দশক আগে রূপালি পর্দা ছেড়েছেন তিনিএরপরেও দর্শক তাকে প্রায়ত নায়ক সালমানের নায়িকা হিসেবে মনে রেখেছেনসালমান শাহ অভিনীত প্রিয়জনসিনেমার নায়িকা হিসেকে শিল্পীকে দর্শকের কাছে দারুণ জনপ্রিয় করে তোলেজানা যায়, সিনেমায় কখনও ফেরার ইচ্ছে নেই এ অভিনেত্রীরএকমাত্র ছেলে সানাত ইকবাল আর মেয়ে এ্যাঞ্জেলিনা ইকবালই নিয়ে এখন তার গোটা ভুবন২০১১ সালে ব্যবসায়ী আলমগীর ইকবালকে ভালবেসে বিয়ে করেন তিনি২০১২ সালের প্রথম সন্তান জন্মের সময় চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে২০১৪ সালে দ্বিতীয় সন্তান জন্মের পর আর মিডিয়ামুখো হননি