ঢাকা, বাংলাদেশ   মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১

ইউল্যাবে ১০ম ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের পর্দা উঠল

প্রকাশিত: ১৭:৫৩, ৩ মার্চ ২০২৪

ইউল্যাবে ১০ম ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের পর্দা উঠল

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল।

ইউনিভার্সিটি অফ লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ (ইউল্যাব) এর স্থায়ী ক্যাম্পাসে ১০ম ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল-২০২৪ এর পর্দা উঠল। শনিবার (২ মার্চ) তারা মোবাইল দিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণের এক দশক উদযাপন করেছে।   

প্রফেসর ড. জুড উইলিয়াম হেনিলো- ইউল্যাবের প্রো ভাইস-চ্যান্সেলর, 'ব্ল্যাক মারিয়া'-তে স্ক্রীনিং সেশনের উদ্বোধন করেন। দিনের আলোতে চলচ্চিত্র প্রদর্শনের জন্য ইউল্যাবের খোলা মাঠে স্থাপন করা হয়েছে এই 'ব্ল্যাক মারিয়া'।  

প্রফেসর জুড বলেন, ‘তরুণ প্রজন্মের কাছে এই বার্তাটি কোনো খরচ ছাড়াই আপনার ফোন দিয়ে একটি ফিল্ম তৈরি করা সম্ভব এবং ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য ডিআইএমএফএফ অন্যতম সেরা প্ল্যাটফর্ম।’ 

ফেস্টিভ্যাল ডিরেক্টর জুবায়দা জাহান সজলিন বলেন, ‘আমি আমার টিমের কাছে অত্যন্ত কৃতজ্ঞ যারা এই ইভেন্টটি সম্ভব করার জন্য সারা বছর ধরে কঠোর পরিশ্রম করেছে।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন খ্যাতনামা চলচ্চিত্র প্রযোজক হাবিবুর রহমান খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন বিশিষ্ট নাট্যকার, চিত্রনাট্য লেখক ও নাট্য পরিচালক মাসুম রেজা। এই বছরের নির্ধারিত তিনটি স্ক্রিনিংয়ের মধ্যে দুটি প্রথম দিনে করা হয়েছে।   

প্রধান অতিথি হাবিব খান তরুণ চলচ্চিত্র নির্মাতাদের জন্য এমন একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করার জন্য ডিআইএমএফকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ‘চলচ্চিত্র তৈরির মূল উদ্দেশ্য হল চলচ্চিত্রের মাধ্যমে আপনার অনুভূতি প্রকাশ করতে সক্ষম হওয়া।’

বিশেষ অতিথি বলেন, ‘মোবাইল ফোন দিয়ে চলচ্চিত্র তৈরি করা টেকনিক আমাদের পরবর্তী প্রজন্মকে রপ্ত করতে হবে।’ এরপর উপস্থিত সুধীজনদের সবাই একত্রে কেক কেটে ডিআইএমএফএফ-এর দশকব্যাপী যাত্রার শুভ উদ্বোধন করেন।

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের উপদেষ্টা এবং ইউল্যাবের মিডিয়া স্টাডিজ অ্যান্ড জার্নালিজম বিভাগের সিনিয়র লেকচারার সৈয়দা সাদিয়া মাহজাবিন উদ্বোধনী দিনের দ্বিতীয় স্ক্রিনিংয়ের উদ্বোধন করেন। 

দ্বিতীয় স্ক্রীনিংয়ে ইউএনএইচসিআর কর্তৃক "ফোর্সড টু ফ্লী" শিরোনামে চালু করা একটি নতুন বিভাগে অন্তর্ভুক্ত তিনটি চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হয়। দ্বিতীয় স্ক্রিনিংয়ের প্রধান অতিথি শাহিরা মজুমদার - ইউএনএইচসিআর-এর বহিরাগত সম্পর্ক বিভাগের কর্মকর্তা আগামী দিনের চলচ্চিত্র নির্মাণে মোবাইল ফোন কতোটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে – সে সম্পর্কে আলোকপাত করেন। তিনি উদ্বাস্তু সংকট সমাধানে এবং মানবিক জায়গা থেকে উদ্বাস্তুদের জীবনের গল্প উপস্থাপন করতে তরুণ নির্মাতাদের আহ্বান জানান। মোবাইল ফোন দিয়ে নির্মিত "ফোর্সড টু ফ্লী" শিরোনামের চলচ্চিত্রগুলি দেখে তিনি উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন।  

অতিথিদের বক্তৃতার পর শুরু হয় চলচ্চিত্র প্রদর্শন। দ্বিতীয় অধিবেশনে একটি ইন্টারেক্টিভ প্রশ্নোত্তর পর্বও অনুষ্ঠিত হয় যাতে উপস্থিত দর্শকরা খুব আগ্রহ নিয়ে আংশগ্রহণ করে। ডিআইএমএফএফ এর সহ-উপদেষ্টা আন্দালিব রুবায়েত এবং ইন্সট্রাক্টর হুমায়ূন ফরিদের ধন্যবাদ ভাষণের মাধ্যমে দ্বিতীয় অধিবেশনটি শেষ হয়। 

রবিবার (৩ মার্চ) উৎসবের দ্বিতীয় ও শেষ দিনটি পান্থপথের বসুন্ধরা শপিং মলের স্টার সিনেপ্লেক্সে অনুষ্ঠিত হয়। এতে নন্দিত চিত্রনাট্যকার এবং চলচ্চিত্র প্রযোজক আবদুল আজিজ যিনি জ্যাজ মাল্টিমিডিয়ার চেয়ারম্যান প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন। 

এম হাসান

×