ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১

অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য ৮ স্কলারশিপ

অনলাইন ডেস্ক 

প্রকাশিত: ১০:২৯, ২২ ডিসেম্বর ২০২৩; আপডেট: ১৫:৪৪, ২২ ডিসেম্বর ২০২৩

অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য ৮ স্কলারশিপ

শিক্ষার্থীদের জন্য ৮ স্কলারশিপ

সারাবিশ্ব থেকেই প্রতিবছর হাজারও শিক্ষার্থী পড়ালেখার জন্য অস্ট্রেলিয়াতে যাচ্ছেন। বিশ্বমানের শিক্ষা অর্জনে দেশটির বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রতি দিনদিন আগ্রহ বাড়ছে শিক্ষার্থীদের। সেই তালিকায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের সংখ্যাও ধীরে ধীরে বাড়ছে। ইন্টারন্যাশনাল শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি, আবাসন খরচসহ অন্যান্য ব্যয় বহন করতে দেশটির সরকার ও বিশ্ববিদ্যালয় বিভিন্ন স্কলারশিপের সুবিধা দিচ্ছে।

বিশ্বমানের শিক্ষা অর্জনে অস্ট্রেলিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রতি আগ্রহ বাড়ছে শিক্ষার্থীদের। সেই তালিকায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের সংখ্যাও ধীরে ধীরে বাড়ছে। ইন্টারন্যাশনাল শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি, আবাসন খরচসহ অন্যান্য ব্যয় বহন করতে দেশটির সরকার ও বিশ্ববিদ্যালয় বিভিন্ন স্কলারশিপের সুবিধা দিচ্ছে।

জেনে নিন সেসব স্কলারশিপের সুবিধা ও যোগ্যতা সম্পর্কে। 

অস্ট্রেলিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধা-ভিত্তিক স্কলারশিপ পেতে অসাধারণ একাডেমিক ফলাফল থাকতে হয়। তবে ভালো ফলাফল ছাড়াও নেতৃত্ব দক্ষতার মতো অন্যান্য গুণাবলীর অধিকারী হতে হয়। এ ছাড়া, সংগীত, প্রকৌশল, সামাজিক অধ্যয়ন, থিয়েটার, ভাষা বিষয়ে আগ্রহ থাকলে অনুষদ ও বিভাগীয় স্কলারশিপ পাওয়া যায়। 

ইন্টারন্যাশনাল শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার খরচ সাশ্রয়ে আবাসন স্কলারশিপ দেয় অস্ট্রেলিয়া। খেলাধুলায় ভালো হলে দেওয়া হয় স্পোর্টস স্কলারশিপ। শারীরিক অক্ষমতা ও চিকিৎসাসেবার প্রয়োজনে পাওয়া যায় ইকুইটি স্কলারশিপ। এ ছাড়া, অস্ট্রেলিয়ার সরকার যোগ্য ইন্টারন্যাশনাল শিক্ষার্থীদের প্রদান করে সরকারি বৃত্তি।

শুধু তাই নয়, বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের আরও বেশ কয়েকটি স্কলারশিপ দিয়ে থাকে অস্ট্রেলিয়া। যার মধ্যে রয়েছে:

অস্ট্রেলিয়ান গভর্নমেন্ট রিসার্চ অ্যান্ড ট্রেনিং প্রোগ্রাম (আরটিপি)

আরটিপি গবেষণা ডক্টরেট বা গবেষণা মাস্টার্স প্রোগ্রামে স্থানীয় বা ইন্টারন্যাশনাল শিক্ষার্থীদের প্রতি বছর প্রায় ২৯ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলার অনুদান দেয়। এই প্রোগ্রামের অধীনে শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি, জীবনযাত্রার খরচ, গবেষণার আনুষঙ্গিক খরচ বহন করা হয়। এ ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ার একটি স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার মাস্টার্স বা গবেষণা ডক্টরেট কোর্সে নথিভুক্ত দেশিয় বা বিদেশি শিক্ষার্থী হতে হবে। কোর্স করার সময় জীবনযাত্রার খরচ মেটানোর জন্য অন্য কোনো উৎস থেকে তহবিল গ্রহণ করা যাবে না বা গ্রহণকৃত অর্থ আরটিপির বার্ষিক উপবৃত্তির ৭৫ শতাংশের বেশি হওয়া যাবে না। আরটিপি উপবৃত্তি পাওয়ার সময় অন্যান্য বৃত্তি প্রোগ্রাম থেকে সুবিধা গ্রহণ করা যাবে না।

অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডস স্কলারশিপ 

অস্ট্রেলিয়া অ্যাওয়ার্ডস স্কলারশিপ পেলে নানা সুবিধা পাওয়া যায়। এটির আওতায় সম্পূর্ণ টিউশন ফি, স্বাস্থ্য বীমা, ভ্রমণ ভাতা, ফিল্ডওয়ার্ক ভাতা, জীবনযাত্রার খরচের জন্য তহবিল, অতিরিক্ত বা পরিচায়ক একাডেমিক প্রোগ্রামের জন্য তহবিল দেওয়া হয়। এজন্য শিক্ষার্থীকে বাংলাদেশের একজন অবিবাহিত নাগরিক হতে হবে এবং অস্ট্রেলিয়ার স্নাতক ডিগ্রির সমতুল্য ডিগ্রি থাকতে হবে। অন্য অস্ট্রেলিয়ান স্কলারশিপ প্রোগ্রামে আবেদন করা যাবে না এবং অস্ট্রেলিয়ান একাডেমিক প্রতিষ্ঠানের ভর্তির প্রয়োজনীয়তা পূরণ করতে হবে। স্বরাষ্ট্র দপ্তরের মানদণ্ড পূরণ করা ছাড়াও ৬.৫ ব্যান্ড স্কোরসহ আইইএলটিএস স্কোরকার্ড থাকতে হবে বা সমতুল্য স্কোরের অন্যান্য ইংরেজি ভাষার দক্ষতা পরীক্ষার স্কোরকার্ড থাকতে হবে। অধ্যয়নের ক্ষেত্রের সঙ্গে প্রাসঙ্গিক তিন বছরের কাজের অভিজ্ঞতা প্রদর্শন করতে হবে। পড়াশোনা শেষে কমপক্ষে দুই বছরের জন্য বাংলাদেশে ফেরত আসতে হবে। 

ইউনিভার্সিটি অব সিডনি ইন্টারন্যাশনাল স্কলারশিপ

ইন্টারন্যাশনাল শিক্ষার্থীদের জন্য ইউনিভার্সিটি অব সিডনি এই স্কলারশিপ দেয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর কোর্স করার জন্য স্কলারশিপ পেতে চাইলে প্রথমে যেকোনো কোর্সে এনরোল করতে হবে। সেজন্য একাডেমিক সাফল্য এবং গবেষণায় আগ্রহ থাকতে হবে। একটি শর্তহীন অফার লেটার থাকা আবশ্যক। এটি পেলে টিউশন ফি সম্পূর্ণ মওকুফ করা হয়। 

গ্রিফিথ ইউনিভার্সিটি স্কলারশিপ 

গ্রিফিথ ইউনিভার্সিটি শিক্ষার্থীদের জন্য সব মিলিয়ে ৬০০টিরও বেশি স্কলারশিপ প্রোগ্রাম অফার করে, যার কারণে স্বল্প থেকে বিনা খরচে পড়াশোনা শেষ করা যায়। এখানে মেধা, ইকুইটি, খেলাধুলাসহ নানা ক্ষেত্রে স্কলারশিপ পাওয়া যায়। তাই অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করতে চাইলে গ্রিফিথ ইউনিভার্সিটি হতে পারে পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয়। এখানে একাডেমিক এক্সিলেন্স স্কলারশিপ পেলে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর প্রোগ্রামে ২৫ শতাংশ টিউশন ফি মওকুফ করা হয়। এজন্য ন্যূনতম ৫.৫ বা সমতুল্য জিপিএ থাকতে হবে।
  
কোর্সের জন্য ভর্তি এবং ইংরেজি ভাষার প্রয়োজনীয়তা পূরণ করতে হবে। পূর্ণকালীন শিক্ষার্থী হিসেবে আবেদন করতে হবে। আর একাডেমিক মেরিট স্কলারশিপের ক্ষেত্রে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর প্রোগ্রামের জন্য ২০ শতাংশ টিউশন ফি মওকুফ করা হয়। এজন্য ন্যূনতম জিপিএ ৫ থাকতে হবে। কোর্সের জন্য ভর্তি এবং ইংরেজি ভাষার প্রয়োজনীয়তা পূরণ করতে হবে। 

মেলবোর্ন রিসার্চ স্কলারশিপ

মেলবোর্ন ইউনিভার্সিটি গবেষণা ডিগ্রি বা ডক্টরাল ডিগ্রির ক্ষেত্রে ইন্টারন্যাশনাল শিক্ষার্থীদের ফুল ফান্ড স্কলারশিপ দেয়। টিউশন ফি মওকুফ করার পাশাপাশি জীবন-ভাতার জন্য বছরে ৩৪ হাজার ৪০০ অস্ট্রেলিয়ান ডলার, ২ হাজার থেকে ৩ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলার স্থানান্তর ভাতা, ওভারসিজ স্টুডেন্ট হেলথ কভার (ওএসএইচসি) প্রদান করে। 

ডেকিন ভাইস-চ্যান্সেলরস ইন্টারন্যাশনাল স্কলারশিপ 

ডেকিন ইউনিভার্সিটি কর্তৃক এ জনপ্রিয় স্কলারশিপ প্রোগ্রামটি যেকোনো কোর্স করা শিক্ষার্থীর জন্য উন্মুক্ত। যোগ্য শিক্ষার্থীরা সম্পূর্ণ বা ৫০ শতাংশ টিউশন ফি মওকুফ পায়। এজন্য ডেকিন ইউনিভার্সিটিতে পড়ার জন্য প্রয়োজনীয় শর্ত পূরণ করতে হবে এবং পূর্ববর্তী গবেষণায় ৮৫ শতাংশ স্কোর অর্জন করতে হবে। 

এন্টারপ্রাইজ রিসার্চ স্কলারশিপ (ইআরএস)

ইন্টারন্যাশনাল শিক্ষার্থীদের জন্য ইআরএস বেশ লাভজনক স্কলারশিপ, যা পেতে একাডেমিক ফলাফল এবং গবেষণার সম্ভাবনা থাকতে হবে। ইউনিভার্সিটি অব সাউথ অস্ট্রেলিয়া ও অন্যান্য অংশীদার বিশ্ববিদ্যালয় এই স্কলারশিপ প্রোগ্রামটি পরিচালনা করে। এতে সর্বোচ্চ দুই বছরের মাস্টার অব রিসার্চ এবং চার বছরের পিএইচডির জন্য বার্ষিক ২৮ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলার পাওয়া যায়।

মোনাশ ইউনিভার্সিটি ইন্টারন্যাশনাল মেরিট স্কলারশিপ 

মোনাশ ইউনিভার্সিটি স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীদের প্রতিবছর ১০ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলার স্কলারশিপ দেয়। এজন্য শিক্ষার্থীকে সব শর্তের পাশাপাশি মোনাশ অ্যাম্বাসেডর হতে হবে। এজন্য প্রথমেই পূর্ণকালীন শিক্ষার্থী হিসেবে আবেদন করতে হবে। 

এবি

সম্পর্কিত বিষয়:

×