ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ২৪ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১

এক বছরে বেড়েছে ৩ হাজার ৮০৪ কোটি

৮৫ শতাংশ খেলাপি ঋণ ছয় আর্থিক প্রতিষ্ঠানে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার

প্রকাশিত: ০০:৫৬, ৬ জুন ২০২৩

৮৫ শতাংশ খেলাপি ঋণ ছয় আর্থিক প্রতিষ্ঠানে

নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর (এনবিএফআই) খেলাপি ঋণ লাগামহীন হয়ে পড়েছে

নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর (এনবিএফআই) খেলাপি ঋণ লাগামহীন হয়ে পড়েছে। মূলত নামে-বেনামে যাচাই ছাড়া ঋণ বিতরণে খেলাপি হুহু করে বাড়ছে। মাত্র ১ বছরের ব্যবধানেই খেলাপি বেড়েছে ৩ হাজার ৮০৪ কোটি টাকা। গত ডিসেম্বর শেষে খেলাপির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৬ হাজার ৮২১ কোটি টাকা। যা মোট ঋণের ২৩ দশমিক ৮৮ শতাংশ। তার মধ্যে ৬ টি প্রতিষ্ঠানের খেলাপি ৮৫ শতাংশ ছাড়িয়েছে। আর ৯৯ দশমিক ৪৪ শতাংশ খেলাপির হার নিয়ে পিপলস লিজিং ৩৫টি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শীর্ষে রয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও অর্থনৈতিক সমীক্ষা প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।  

হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের ডিসেম্বর শেষে ৩৫টি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মাট ঋণ ও বিনিয়োগ দাঁড়িয়েছে ৭০ হাজার ৪৩৫ কোটি টাকা। খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১৬ হাজার ৮২১ কোটি টাকা। শতকরা হিসাবে ২৩ দশমিক ৮৮ শতাংশ। যদিও ২০২১ সালের ডিসেম্বর শেষে খেলাপি ঋণ ছিল ১৩ হাজার ১৭ কোটি টাকা। সেই হিসাবে এক বছরের ব্যবধানে খেলাপি বেড়েছে ৩ হাজার ৮০৪ কোটি টাকা।
সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, জালিয়াতির মাধ্যমে যথাযথ যাচাই ছাড়া নামে-বেনামে ঋণ বিতরণ করায় খেরাপি লাগামহীন হয়ে পড়েছে। অনেক প্রতিষ্ঠান আমানত ফেরত দিতে পারছে না। এতে গ্রাহকদের আস্থা কমছে। যা অর্থনীতির জন্য একটি অশনিসংকেত।
প্রতিবেদন বলছে, দেশে কাযরত ৩৫টি ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২৩টি প্রতিষ্ঠানের খেলাপি ঋণ ১০ শতাংশের বেশি। আর ১৫টিতে ২৫ শতাংশের বেশি আছে। তার মধ্যে ৯টার খেলাপি ৫০ শতাংশের বেশি। আর ৬টির খেলাপি ৮৫ শতাংশ ছাড়িয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৯৯ দশমিক ৪৪ শতাংশ নিয়ে পিপলস লিজিংয়ের শীর্ষে রয়েছে। আর ৯৬ দশমিক ২৭ শতাংশ নিয়ে বিআইএফসি দ্বিতীয় অবস্থানে এবং ৯৪ দশমিক ৩৪ শতাংশ নিয়ে খেলাপির তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ফারইস্ট ফাইন্যান্স। আর এফএএস ফাইন্যান্সের ৯০ দশমিক ৪০ শতাংশ খেলাপির হার নিয়ে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে, ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের ৮৭ দশমিক ৩২ শতাংশ নিয়ে পঞ্চম অবস্থানে এবং ৮৫ দশমিক ৯৬ শতাংশ নিয়ে ফাস্ট ফাইন্যান্স ৬ষ্ঠ অবস্থানে রয়েছে।  
এদিকে ইউনিয়ন ক্যাপিটালের ৫২ দশমিক ৯০ শতাংশ, প্রিমিয়ার লিজিংয়ের ৫২ দশমিক ৮৭ শতাংশ এবং উত্তরা ফাইন্যান্সের খেলাপির পরিমাণ ৫০ দশমিক ৪০ শতাংশ। এছাড়া এ খাতের ৭টি প্রতিষ্ঠানের প্রভিশন ঘাটতি রয়েছে এক হাজার ১৭১ কোটি টাকা। তবে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান অতিরিক্ত প্রভিশন সংরক্ষণ করায় পুরো খাতের সমন্বিত প্রভিশন ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৫৩ কোটি টাকা।
বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংক কিছু অবাস্তব সিদ্ধান্ত দিচ্ছে। এতে ঋণখেলাপিদের বাড়তি উৎসাহ সৃষ্টি হচ্ছে। অন্যদিকে নিরুৎসাহিত হচ্ছেন ভালো গ্রাহক। তারা মনে করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ছাড় তো পাবই। এছাড়া ব্যাংকগুলোও খেলাপি ঋণ আদায়ে বিমুখ হয়ে পড়েছে। কারণ এর জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে তাদের জবাবদিহিতা করতে হয় না। তবে হঠাৎ করে সিদ্ধান্ত নেওয়া কোনো কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাজ নয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাজ বা নীতিগুলো হতে হবে দীর্ঘস্থায়ী এবং ব্যাংকের জন্য কল্যাণকর। যাতে করে খেলাপি ঋণ, পুনঃতফসিল, প্রভিশন ঘাটতি কমে আসে। এসব সমস্যা সমাধানে একটি ব্যাংকিং কমিশন গঠন করা উচিত। এর আগেও খেলাপি সমস্যার সমাধান হয়েছে ব্যাংকিং কমিশনের মাধ্যমে।’

×