ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০

ভাষা গবেষকের চিন্তায় ও কর্মে অনুসৃত হবেন আবদুল হাই

​​​​​​​সংস্কৃতি প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২২:৫৬, ২৬ নভেম্বর ২০২৩

ভাষা গবেষকের চিন্তায় ও  কর্মে অনুসৃত হবেন  আবদুল হাই

ভাষাবিজ্ঞানী মুহম্মদ আবদুল হাই স্মরণে বাংলা একাডেমি আয়োজিত আলোচনাসভায় একক বক্তৃতা করেন অধ্যাপক সৈয়দ শাহরিয়ার রহমান

বহুমাত্রিক প্রতিভায় উজ্জ্বল এক ব্যক্তিত্ব মুহম্মদ আবদুল হাই। বর্ণাঢ্য সেই জীবনে তিনি ছিলেন একাধারে ধ্বনিবিজ্ঞানী, সাহিত্যিক শিক্ষাবিদ। রবিবার ছিল একুশে পদকজয়ী এই ভাষাবিজ্ঞানীর ১০৪তম জন্মবার্ষিকী। এই কীর্তিমানের জন্মদিন স্মরণে তার কর্মের মূল্যায়নধর্মী আলোচনাসভার আয়োজন করে বাংল্ াএকাডেমি। আলোচনায় বক্তারা বলেন, ভাষা গবেষকের চিন্তায় কর্মে অনুসৃত হবেন আবদুল হাই। বাংলা ভাষা চর্চায় অনিবার্যভাবে স্মরণে আসেন তিনি। বাংলা ধ্বনিতত্ত্ব গবেষণায় সব সময় অগ্রগণ্য হবেন আবদুল হাই।   

হেমন্ত সকালে একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে এই বক্তৃতানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে একক বক্তৃতা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষাবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ শাহরিয়ার রহমান। সম্মানিত অতিথির বক্তব্য প্রদান  দেন  সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপসচিব শিল্পী রানী রায়। সভাপতিত্ব করেন একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন একাডেমির সচিব . মো. হাসান কবীর। স্বাগত বক্তব্য দেন একাডেমির পরিচালক  . সরকার আমিন।

একক বক্তৃতায় অধ্যাপক সৈয়দ শাহরিয়ার রহমান বলেন, মুহম্মদ আবদুল হাই বাঙালির কাছে এবং বৈশ্বিক জ্ঞানসাধনায় শেষ পর্যন্ত একজন ধ্বনিবিজ্ঞানী হিসেবেই অমরত্ব লাভ করবেন। তার সমকালীন ভাবনা অধ্যয়নে ব্যক্তি মুহম্মদ আবদুল হাই-এর মনস্তত্ত্বের কিছুটা নাগাল হয়তো পাওয়া সম্ভব হবে। ভাষা-গবেষকের চিন্তায় কর্মে অনুসৃত হবেন মুহম্মদ আবদুল হাই। ভ্রমণ-আখ্যান লেখক কিংবা সমাজ সংস্কৃতি চিন্তক পরিচয় ম্লান করে দিয়ে বাংলা ধ্বনিতত্ত্ব গবেষণায় তিনি সবসময় অগ্রগণ্য হবেন।

সভাপতির বক্তব্যে মুহম্মদ নূরুল হুদা বলেন, মুহম্মদ আবদুল হাই ছিলেন জাতির শিক্ষক। তিনি ধ্বনিবিজ্ঞান ধ্বনিতত্ত্বের জটিল প্রসঙ্গ-অনুষঙ্গের পাশাপাশি বিলাতে সাড়ে সাতশত দিন বই লিখে বাংলা ভ্রমণসাহিত্যেও তার আসন পাকা করে নিয়েছেন। সেই সুবাদে  লেখক হিসেবেও কীর্তির স্বাক্ষর রেখেছেন। 

শিল্পী রানী রায় বলেন, গবেষকদের কাছে তো বটেই, সাধারণ বাঙালির কাছেও মুহম্মদ আবদুল হাই নামটি কৃতজ্ঞতার সঙ্গে উচ্চারিত। কারণ তিনি আমাদের মাঝে ভাষা ব্যাকরণ-সচেতনতা তৈরি করেছেন। . সরকার আমিন বলেন, বাংলা ভাষা গবেষণায় মুহম্মদ আবদুল হাই এক শ্রদ্ধেয় নাম। আমরা যখনই বাংলা ভাষা চর্চা করি তখনই তিনি অনিবার্যভাবে আমাদের স্মরণে আসেন। 

. মো. হাসান কবীর বলেন, মুহম্মদ আবদুল হাই বাংলা ধ্বনিবিজ্ঞান ধ্বনিতত্ত্ব গবেষণায় এক অবিস্মরণীয় নাম। বাঙালি জাতি চিরকাল তাকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বাংলা একাডেমির উপপরিচালক . সাইমন জাকারিয়া।

×