বুধবার ৭ মাঘ ১৪২৭, ২০ জানুয়ারী ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

সরকারের ব্যাংক ঋণ এক লাখ ৭৮ হাজার কোটি টাকা

সরকারের ব্যাংক ঋণ এক লাখ ৭৮ হাজার কোটি টাকা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাস শেষে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে সরকারের নেওয়া মোট ঋণের পরিমাণ কিছুটা বেড়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, অক্টোবর শেষে মোট ব্যাংক ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৭৮ হাজার ৭৬৮ কোটি টাকা, যা ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে ছিল এক লাখ ৭৭ হাজার ৮২৩ কোটি টাকা। এ হিসাবে দেখা যাচ্ছে, অর্থবছরের প্রথম চার মাসে (জুলাই-অক্টোবর) ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে সরকার আরও ৯৪৫ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছে।

করোনাভাইরাস মহামারী মোকাবেলায় বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থার কাছ থেকে ঋণ পাওয়ায় প্রয়োজনীয় খরচ মেটাতে সরকারকে আগের চেয়ে ব্যাংকের দারস্থ কম হতে হচ্ছে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন। তার সঙ্গে উন্নয়ন কর্মকান্ডে ধীরগতি, সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ বৃদ্ধি এবং রাজস্ব আয়ে কিছুটা গতি আসায় ব্যাংক থেকে সরকারের ঋণ নেওয়ার পরিমাণ কমেছে।

করোনাভাইরাস মহামারীর এই কঠিন সময়ে রাজস্ব আদায় কমার আশঙ্কাসহ নানা কারণে চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ৮৪ হাজার ৯৮০ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরে সরকার।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম চার মাসে (জুলাই-অক্টোবর) ৬৬ হাজার ৫৫৫ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছে, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১ দশমিক ১৪ শতাংশ বেশি। অপর দিকে অর্থবছরের তিন মাসের (জুলাই-সেপ্টেম্বর) বিদেশি ঋণ সহায়তার তথ্য প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তাতে দেখা যায়, এই তিন মাসে ১৩৮ কোটি ৫০ লাখ ডলারের বিদেশি ঋণ সহায়তা পেয়েছে বাংলাদেশ, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে প্রায় ৫৪ শতাংশ বেশি। এ সময়ে বিশ্ব ব্যাংক, আইএমএফ, এডিবিসহ বিভিন্ন দাতা সংস্থার কাছ থেকে এই ঋণ সহায়তা পাওয়া গেছে। কোভিড-১৯ এর ক্ষতি মোকাবেলায় সরকারের অনুরোধে সাড়া দিয়ে এ সব সহায়তা দিচ্ছে দাতারা। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরেও ৭ দশমিক ২৭ বিলিয়ন ডলার দিয়েছিল বিভিন্ন দাতা দেশ ও সংস্থা; যা ছিল বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ঋণ সহায়তা। আবার বেসরকারি খাতে নেওয়া স্বল্পমেয়াদি বিদেশি ঋণ পরিশোধের সময়সীমা বাড়ানোর কারণে অনেকে এখন ঋণ পরিশোধ করছেন না।

পলিসি রিসার্চ ইন্সটিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান মনসুর বলেন, সামনে দাতাদের ঋণ দেওয়া যেতে পারে। তখন সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড বেড়ে গেলে বাধ্য হয়েই ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে হবে সরকারকে।

এদিকে এই মহামারীর মধ্যেও সঞ্চয়পত্র বিক্রি বেড়েই চলেছে। জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তর সর্বশেষ যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যায়, অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ১১ হাজার ৬৬২ কোটি ৩১ লাখ টাকা টাকার নিট সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছে। এই অংক গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে আড়াই গুণ বেশি। গত ২০১৯-২০ অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে ৪ হাজার ৬৯৮ কোটি ৭ লাখ টাকার নিট সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়েছিল।

শীর্ষ সংবাদ:
করোনা : গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৮, নতুন শনাক্ত ৬৫৬         আরও ১৫ লাখ ভ্যাকসিন বেসরকারিভাবে আসছে বৃহস্পতিবার : পররাষ্ট্রমন্ত্রী         সাকিব-হাসানে উইন্ডিজকে বিপর্যস্ত করল বাংলাদেশ         যুবলীগ চেয়ারম্যান করোনায় আক্রান্ত         বিদ্রোহীদের কোনো প্রকার ছাড় দেওয়া হবে না ॥ সেতুমন্ত্রী         চাইলে বিএনপিকে আগে ভ্যাকসিন দিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ করব ॥ তথ্যমন্ত্রী         আওয়ামী লীগ বাংলাদেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে ॥ প্রধানমন্ত্রী         করোনা মহামারীর মধ্যেও থেমে নেই অর্থনৈতিক উন্নয়নের গতি         সংসদে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবি         পিকে হালদারের ৮৩ সহযোগীর ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ         প্রত্যাবর্তনে সাকিবের চমক         টেকনাফে অস্ত্রসহ পাঁচ সন্ত্রাসী রোহিঙ্গা আটক         ভারতে পাথর বোঝাই ডাম্পারের নিচে চাপা পড়ে ১৪ জনের মৃত্যু         দায়িত্বের চেয়েও বেশি কাজ করেছি ॥ বিদায়ী ভাষণে ট্রাম্প         ৪৬ তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে আজ শপথ নিচ্ছেন বাইডেন         নদী দখলের থাবা ॥ ৬৪ জেলায় দখলদার ৬৩ হাজার         প্রেসিডেন্ট হিসেবে আজ বাইডেনের অভিষেক         রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু এপ্রিল-মে মাসে         ভারতের উপহার ২০ লাখ ডোজ টিকা আসছে কাল