সোমবার ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা

বাউফলে পুকুরে ডুবে তিন বোনের মৃত্যু

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাউফল, ৪ আগস্ট ॥ পুকুরে ডুবে তিন বোনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। বাউফলের কালাইয়া ইউনিয়নের কপুরকাঠি গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। সোমবার সন্ধ্যায় তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। জানা গেছে, ঈদ-উল-আজাহা উপলক্ষে মরিয়ম বেগম (১৪) ও তার বোন মারিয়া বেগম (১২) বাবা মায়ের সঙ্গে গ্রামের বাড়ি যায়। ঘটনার দিন সোমবার বিকেল তিনটার দিকে চাচাত বোন মাকসুদা বেগমকে নিয়ে বাড়ির পুকুরে গোসল করতে যায়। সন্ধ্যার পরেও তারা ঘরে ফিরে না আসায় বাবা-মা ও আত্মীয়-স্বজনরা তাদের খুঁজতে বের হয়। এ পর্যায়ে পুকুরের ঘাটলায় তাদের স্যান্ডেল পরে থাকতে দেখে সন্দেহ হয়। এরপর লোকজন পুকুরে খোঁজাখুঁজি করে ঘাটলা থেকে ৫০ ফুট দূরে তাদের লাশ উদ্ধার করে।

সাভারে শিক্ষার্থীসহ তিনজন

নিজস্ব সংবাদদাতা সাভার থেকে জানান, ধামরাইয়ে পৃথক দুটি স্থানে পানিতে ডুবে শিক্ষার্থীসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার বিকেলে বন্যার পানিতে পড়ে সোহাগ নামে তিন বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়। সোহাগ উপজেলার সুয়াপুর ইউনিয়নের কুটিরচর গ্রামের জহিরুল ইসলামের ছেলে। জানা গেছে, এদিন বিকেলে নিজ বাড়ির পাশে খেলতে গিয়ে বন্যার পানিতে পড়ে যায় সোহাগ। এ সময় তাকে জীবিত উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সোহাগকে মৃত ঘোষণা করেন। অন্যদিকে শনিবার বিকেলে কোরবানির ঈদ উপলক্ষে নৌকা ভ্রমণে গিয়ে ধামরাইয়ের বংশী নদীতে নৌকা উল্টে উপজেলার ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের মান্দারচাপ গ্রামের শিখা (১২) ও মীম (১২) নামে ষষ্ঠ শ্রেণীর দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আরও দুই শিক্ষার্থীকে জীবিত উদ্ধার করা হয়।

মীরসরাইয়ে দুই শিশু

নিজস্ব সংবাদদাতা মীরসরাই থেকে জানান, মীরসরাইয়ে পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। রবিবার উপজেলার ৭ কাটাছরা ইউনিয়নের তেতৈয়া এলাকার সিদ্দিকুর রহমান মাস্টার বাড়িতে এই ঘটনা ঘটেছে। নিহতরা হলেন- তাসফিয়া তাবাচ্ছুম (৬) ও তাসফীন আক্তার মারিয়া (৬)। নিহত দুই শিশু সম্পর্কে চাচাতো বোন। তারা ওই বাড়ির শাজাহাজান খানসাব ও মোশারফ হোসেন সুমন হোরামিয়ার কন্যা। জানা যায়, দুপুরে খেলতে গিয়ে বাড়ির পাশের পুকুরে পড়ে যায় দুই বোন। পরে তাদের না দেখে চারদিকে খোঁজ করেও তাদের সন্ধান মেলেনি। পরে পুকুরে তাদের লাশ ভাসতে দেখা যায়।

কিশোরগঞ্জে ৫ শিশুসহ ৮ জন

নিজস্ব সংবাদদাতা কিশোরগঞ্জ থেকে জানান, কিশোরগঞ্জে গত ২৪ ঘণ্টায় পৃথক পানিতে ডুবির ঘটনায় ৫ শিশুসহ ৮ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে ইটনায় চারজন, পাকুন্দিয়ায় দুজন এবং নিকলী ও মিঠামইন উপজেলায় একজন করে নিহত হয়েছে। পানিতে ডুবে মারা যাওয়া ৮ জনের মধ্যে নৌকাডুবিতে নিহত তিনজন হচ্ছে একজন নববধূ, একজন বৃদ্ধ এবং একজন এইচএসসি পরীক্ষার্থী রয়েছে। বাকি পাঁচজন পৃথক ঘটনায় পানিতে ডুবে মারা গেছে। জানা যায়, রবিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পাকুন্দিয়া উপজেলার বুরুদিয়া কন্দরপদী গ্রামে বৃষ্টির পানি জমে থাকা গর্তে পড়ে লামিম (৫) নামে এক শিশু মারা যায়। সে কন্দরপদী গ্রামের প্রবাসী কাজল মিয়ার একমাত্র ছেলে।

একইদিন বিকেলে হাওড় উপজেলা ইটনার রায়টুটিতে রাস্তার পাশে ছবি তুলতে গিয়ে বর্ষার পানিতে ডুবে মিজানুর রহমান নামে এক এইচএসসি পরীক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। একই সময় ইটনার পার্শ্ববর্তী চৌগাঙ্গার মাগুরী ধনু নদীতে নৌকাডুবির ঘটনায় তিনজন নিখোঁজ হয়। পরদিন সকালে উপজেলার চৌগাঙ্গার মাওরা গ্রামের নিখোঁজ নিহত হাসান আলী (৭০) ও তার নাতবৌ নববধূ সুমাইয়া (১৮) ও নাতনী হীরামনি (৫) এর ভাসমান লাশ উদ্ধার করা হয়।

অপরদিকে সোমবার সকালে নিকলী উপজেলার দামপাড়া মজলিশপুর নরসুন্দা নদীতে চাঁদনী আক্তার (৫) নামে এক শিশু পানিতে ডুবে মারা যায়। সে মজলিশপুর গ্রামের বাসিন্দা সাদ্দাম হোসেনের মেয়ে। একইদিন দুপুরে জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার চণ্ডিপাশায় বাড়ির পাশে ফিশারির পানিতে খেলতে নেমে সাঁতার কাটা ও লাফালাফি করতে গিয়ে মারুফ (৭) নামে এক শিশু মারা যায়। সে আবির হাজী বাড়ির পশ্চিমের বাড়ির ফারুক মিয়ার ছেলে। একই সময় জেলার হাওড় উপজেলা মিঠামইনের গোপদিঘী শরীফপুর মডেলপাড়া গ্রামের নানাবাড়িতে মায়ের সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে ঘাটেবাঁধা নৌকা থেকে পা পিছলে পড়ে বর্ষার পানিতে ডুবে হাসান (৯) নামে এক শিশু মারা যায়। সে গোপদিঘী তেলিহাটি গ্রামের নান্নু মিয়ার ছেলে।

ফরিদপুরে শিশু

নিজস্ব সংবাদদাতা ফরিদপুর থেকে জানান, ভাঙ্গায় পানিতে ডুবে মারা গেছে লোভা আক্তার (৫) নামে এক শিশু। এছাড়া পানিতে ডুবে নিখোঁজ রয়েছে রাখি মালো (৩) নামে আরেক শিশু। এছাড়া সদরের পদ্মা নদীতে ডুবে নিখোজ রয়েছে বাচ্চু শেখ (৫০) নামে আরেকজন। শনিবার দুপুরে ভাঙ্গা উপজেলার আলগী ইউনিয়নের চরকান্দা গ্রামে এবং মধ্যপাড়া হাসামদিয়া গ্রামে এ ঘটনা দুটি ঘটে। সদরের ঘটনাটি ঘটে শনিবার সন্ধ্যায়। লোভা আক্তার আলগী ইউনিয়নের চরকান্দা গ্রামের রনি মোল্লার মেয়ে। ঈদের দিন সাঁকো পাড় হওয়ার সময় বর্ষার পানিতে পড়ে যায়। পরে দুই ঘণ্টা পর তার লাশ উদ্ধার করা করা হয়।

ঘাটাইলে নববধূ

নিজস্ব সংবাদদাতা টাঙ্গাইল থেকে জানান, ঘাটাইলে পুকুরে ডুবে নববধূর মৃত্যু হয়েছে। রবিবার বিকেল ৫টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের একটি ডুবুরি দল তার লাশ পুকুর থেকে উদ্ধার করে। জানা যায়, ঘাটাইল উপজেলার পেঁচারআটা সাত্তার বাইদ গ্রামে দুপুরে পুকুরে গোসল করতে নামে ইদ্রিস আলীর নববধূ রিপা আক্তার (১৯)। পরে সে পানিতে ডুবে নিখোঁজ হয়। এ সংবাদ পেয়ে টাঙ্গাইল ফায়ার স্টেশনের একটি ডুবুরি দল পুকুরে নেমে পানির নিচ থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

আত্রাইয়ে শিশু

নিজস্ব সংবাদদাতা নওগাঁ থেকে জানান, নওগাঁর আত্রাইয়ে পানিতে ডুবে নাফিস হোসেন (১২) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। নিহত নাফিস হোসেন উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের গণ্ডগোহালী গ্রামের লিটন আব্বাসীর ছেলে। সোমবার দুপুর ১২টার দিকে সহপাঠীদের সঙ্গে বাড়ির পাশে বন্যার জলাবদ্ধ পানিতে গোসল করতে গিয়ে পানিতে ডুবে তার মৃত্যু হয়।

শীর্ষ সংবাদ: