শনিবার ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৩০ মে ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

লকডাউন, হার্ড ইমিউনিটি ও বাংলাদেশ

লকডাউন, হার্ড ইমিউনিটি ও বাংলাদেশ

দেশের অনেক মানুষ লকডাউন খুলে দেবার পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন অনেকে বিপক্ষে। আসলে এই অচলাবস্থার অবসান আমরা সবাই চাই। কিন্তু কিভাবে? আসুন সহজভাবে জেনে নেই-

আসলে লকডাউন কি?

একটু সহজভাবে যদি চিন্তা করি; আমরা নিশ্চয়ই চিড়িয়াখানা দেখেছি। ওখানে কি হয়? ভয়ঙ্কর সব জন্তুদের খাঁচায় ভরে রেখে বাইরে থেকে তা আমরা দেখি। আবার চিন্তা করুন সাফারি পার্কগুলোর কথা। এখানে জন্তুরা বাইরে ঘুরে বেড়ায় আর আমরা গাড়ির খাঁচায় থেকে ঘুরে ঘুরে ওদের দেখি।

লকডাউন হলো সাফারি টেকনিক। করোনাভাইরাসকে বাইরে ছেড়ে দিয়ে আমরা এখন ঘরে আটকা।

লকডাউন খুলে দেয়ার কি কি পদ্ধতি থাকতে পারে?

পদ্ধতি-১

এখন যদি সাফারি থেকে চিড়িয়াখানা টেকনিকে আমাদের যেতে হয় বা লকডাউন খুলে দিতে হয় তবে করোনাভাইরাসকে খাঁচায় আটকাতে হবে। কিন্তু ভাইরাস তো দেখা যায় না, একে আটকাবেন কিভাবে? আসলে আটকে দিতে হবে এই ভাইরাস বহনকারীকে। এই বহনকারী চিহ্নিত করতে আমাদের প্রচুর টেস্ট করতে হবে। পজেটিভ সব রোগীকে এবং তাদের সংস্পর্শে যারা এসেছিলেন সবাইকে আলাদা করে ফেলতে হবে। যখন এই কাজটি সমাপ্ত হবে তখন আমার কিছু সময় নেব আর পর্যবেক্ষণ করব। এভাবেই একসময় সম্ভব লকডাউন খুলে দেয়া।

পদ্ধতি -২

এটি হাজার বছরের পুরনো পদ্ধতি। ডারউইনের ঝঁৎারাব ঃযব ভরঃঃবং থিউরি এটি। সামনে এসে রোগ মোকাবেলা পদ্ধতিও বলা যায় একে। এই পদ্ধতিতে আপনি যখন তখন লকডাউন খুলে দিতে পারেন। এতে প্রচুর মানুষ আক্রান্ত হবে। কেউ মারা যাবে, বাকিরা সুস্থ হয়ে যাবেন। যারা সুস্থ হবেন তারা প্রাকৃতিক করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ক্ষমতা পেয়ে যেতে পারেন। এই পদ্ধতিতে দুর্বলরা ঝরে পড়ে করোনা প্রতিরোধী সবল সমাজ গঠিত হবে।

পদ্ধতি -৩

এটি ধীরে চলো নীতি। লকডাউন সামান্য শিথিল করে দেখা এর কি প্রভাব। সঙ্গে পরীক্ষা আর রোগী শনাক্ত অব্যাহত রাখা। প্রান্তিক জনগণকে পর্যাপ্ত খাদ্য সরবরাহ নিশ্চিত করা, ছোট ব্যবসাকে ভর্তুকির আওতায় আনা। প্রচুর প্রচারণার মাধ্যমে জনগণকে এই ভাইরাস কিভাবে ছড়ায় আর তা থেকে কিভাবে বাঁচা যায় তার কার্যকরী অনলাইন, টেলিভিশন বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম দিয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া।

কোনটার কি সুবিধা-অসুবিধা?

চিড়িয়াখানা টেকনিকের জন্য দরকার খুব শক্তিশালী পরিকল্পনা, আধুনিক ব্যবস্থা। র‌্যাপিড টেস্টিং। তবে এর সফলতায় ঝুঁকি কম, প্রাণহানির আশঙ্কা খুবই কম। তবে এই কাজ সময়সাপেক্ষ তাই লকডাউন তুলতে সময় লাগবে এবং অর্থনৈতিক ক্ষতি হবে। ডারউইন পদ্ধতি সহজ, আদিম। তবে এতে ব্যাপকভাবে প্রাণহানি হতে পারে, ছড়িয়ে পড়তে পারে আতঙ্ক। স্বাস্থ্য ও প্রশাসনিক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়তে পারে। ফলে এখানে আরও বড় আর্থিক ক্ষতিতে পড়তে পারে দেশ।

পরিশেষে বলা যায় লকডাউন তোলা না তোলা বিষয়ে বাংলাদেশ খুব বড় সঙ্কট আর সিদ্ধান্তহীনতায় পড়তে পারে। ভুল সিদ্ধান্তের বড় খেসারত দিতে হতে পারে। তাই এক্ষেত্রে ধীরে চলো নীতি সর্বোত্তম।

ডাঃ মোহাম্মদ আলী

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও গবেষক

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস

মিরপুর ক্যান্টনমেন্ট, ঢাকা।

শীর্ষ সংবাদ:
করোনা ভাইরাসে মৃত্যু ৬০০ ছাড়ালো, নতুন আক্রান্ত ১৭৬৪         বঙ্গবন্ধুর ছবিযুক্ত ডাকটিকিট অবমুক্ত করল জাতিসংঘ         বাস ভাড়া ৮০ শতাংশ বাড়ানোর সুপারিশ         ভাড়া বাড়ছে না ট্রেনে ॥ সব টিকিট পাওয়া যাবে অনলাইনে         শান্তিরক্ষী দিবসে প্রধানমন্ত্রীকে জাতিসংঘ মহাসচিবের ফোন         পদ্মাসেতুর ৩০তম স্প্যান বসে গেছে         জর্জ ফ্লয়েডকে হত্যার ঘটনায় বিক্ষোভে উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র         সুন্দরবন কুরিয়ারের প্রতিষ্ঠাতার করোনায় মৃত্যু         চীনের ৬ শহরে ফ্লাইট শুরু করছে সিঙ্গাপুর         লকডাউন খুলে জনগণকে মৃত্যুকূপে ঠেলে দিয়েছে সরকার ॥ রিজভী         সিলেটে করোনা ভাইরাসে নার্সিং কর্মকর্তার মৃত্যু         করোনায় প্ল্যাজমা থেরাপির ব্যবহারে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার না         বিশ্বজুড়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬০ লাখ ছাড়াল         শূন্যে নামার পর চীনে ফের করোনা ভাইরাসের রোগী শনাক্ত         হংকংয়ের বিশেষ সুবিধা বাতিল করল যুক্তরাষ্ট্র         ভারতে একদিনেই করোনায় আক্রান্ত প্রায় ৮ হাজার !         এবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে সম্পর্কও শেষ করল যুক্তরাষ্ট্র         সারাদেশেই আজ ঝড়-বৃষ্টির আভাস         আগামীকাল খুলছে মসজিদে নববী         মৃত্যুতে এবার স্পেনকেও ছাড়িয়ে গেল ব্রাজিল        
//--BID Records