সোমবার ৬ আশ্বিন ১৪২৭, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

নাটকের বিশেষ দিনে মিলনমেলা, আনন্দঘন উদ্যাপন

নাটকের বিশেষ দিনে মিলনমেলা, আনন্দঘন উদ্যাপন
  • হাত ধরাধরি করে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়

মোরসালিন মিজান ॥ নাটকের মানুষের মঞ্চে কাজ। দর্শকের সামনে চরিত্র ফুটিয়ে তোলার দায়। প্রতিনিয়ত এ দায় মেটাতে হয়। তবে বুধবারের বিষয়ে একটু আলাদা ছিল। মঞ্চের মানুষেরা এদিন বাইরে এসেছিলেন। ঢাকার রাস্তা ধরে হেঁটেছেন। নেচেছেন। গেয়েছেন। অগ্রজ অনুজ সকলেই মেতেছিলেন উৎসবে। উপলক্ষ- বিশ্বনাট্য দিবস। এদিন হাসিরাশি আনন্দ যেমন হলো, তেমনি হলো গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা। বাংলা নাটকের অভিযাত্রা, পাওয়া না পাওয়ার গল্প শোনা গেল। সেইসঙ্গে ছিল প্রত্যয়। বাংলা নাটক নিয়ে বিশ্বদরবারে পৌঁছার প্রত্যয় পুনর্ব্যক্ত করলেন বিশিষ্ট নাট্যজনেরা।

প্রতি বছর ২৭ মার্চ বিশ্বনাট্য দিবস হিসেবে উদ্যাপিত হয়। ১৯৬২ সাল থেকে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে দিবসটি উদ্যাপিত হয়ে আসছে। বাংলাদেশের নাট্যকর্মীরা উদ্যাপন করছেন গত প্রায় ১৮ বছর ধরে। সেই ধারাবাহিকতায় বুধবার বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ইন্টারন্যাশনাল থিয়েটার ইনস্টিটিউট, গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন ও পথনাটক পরিষদ। আয়োজনের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিল শিল্পকলা একাডেমিও।

বিকেলে টিএসসিতে বিশেষ অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করে পথনাটক পরিষদ। খোলা চত্বরে পালাগানের আসর উপভোগ্য হয়ে উঠেছিল। এখানে পালাগান পরিবেশন করেন শিল্পী সাঈদ সিদ্দিক। আরণ্যকের সদস্যদের কণ্ঠে ছিল নাটকের গান। উল্লেখযোগ্য চারটি নাটক থেকে চারটি গান পরিবেশন করেন অভিনেতা অভিনেত্রীরা।

এর আগে বিশ্বনাট্য দিবসের আলোচনায় অংশ নেন ঝুনা চৌধুরী, গোলাম কুদ্দুছ, আহাম্মদ গিয়াস প্রমুখ। আয়োজনের স্লোগান ছিল ‘বিশ্বজুড়ে নাট্যজন : এক সুর এক প্রাণ’। বক্তারা এই স্লোগানের প্রতিধ্বনি করে বলেন, নাটক নিয়ে সারা বিশ্বের সঙ্গে যুক্ত হতে হবে। পরে টিএসসি থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। এতে তরুণ নাট্যকর্মীরা অংশ নেন। অগ্রভাগে ছিলেন সিনিয়ররাও। শোভাযাত্রাটি শিল্পকলা একাডেমিতে গিয়ে শেষ হয়। অবশ্য শেষ না বলে মিলিত হয় বলা যায়। কারণ আগে থেকেই সেখানে সমবেত হয়েছিলেন আরেকদল নাট্যকর্মী। শিল্পকলা একাডেমি ও গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের উদ্যোগে এখানেও অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ছিল সাংস্কৃতিক পরিবেশনাও। সন্ধ্যায় জাতীয় নাট্যশালায় দিবসটি ঘিরে বিশেষ আলোচনার আয়োজন করা হয়। এখানে মূল বক্তৃতা করেন শিমুল ইউসুফ। আলোচনা করেন আতাউর রহমান, নাসির উদ্দীন ইউসুফ, লাকী ইনাম প্রমুখ। সভাপতিত্ব করেন ইন্টারন্যাশনাল থিয়েটার ইনস্টিটিউটের সম্মানিক সভাপতি রামেন্দু মজুমদার।

এখান থেকে নাটকের ভাষায় সংগ্রাম অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেয়া হয়। অন্ধকারের শক্তির বিরুদ্ধে মঞ্চের আলো জ্বালিয়ে রাখার কথা বলা হয়। নাটকের মান আরও বাড়ানোর ওপরও জোর দেন বিশিষ্ট নাট্যজনেরা।

শীর্ষ সংবাদ:
করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রীর দুই অনুশাসন         ডাকসু ভিপি নুরের বিরুদ্ধে ঢাবি ছাত্রীর ধর্ষণ মামলা         বিজিবির ১৯১ জনের মুক্তিযোদ্ধা গেজেট বাতিল স্থগিত         দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখেই প্রস্তুতি নিচ্ছে জাতীয় পার্টি         সফটওয়্যার আপগ্রেড হলেই প্রাথমিক শিক্ষকদের উচ্চধাপে বেতন         তিতাসের ৮ কর্মকর্তা-কর্মচারী জামিনে মুক্ত         ঢাকা উত্তরের ৯টি ওয়ার্ড ডেঙ্গুর ঝুঁকিতে         ভ্যাকসিনের ট্রায়াল শুরুর বিষয়ে ২ দিনের মধ্যে চিঠি দেবে চীন         চাকরির নামে প্রতারণা, তিন প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রেফতার ১৪         স্বাস্থ্যের গাড়িচালক আব্দুল মালেক ১৪ দিনের রিমান্ডে         শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে যা জানালেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব         করোনা ভাইরাসে আরও ৪০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত সাড়ে তিন লাখ ছাড়াল         বাংলাদেশ ও ভারতের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বহুমাত্রিক ॥ কাদের         ১৮ বছর পর মুক্তিযোদ্ধা হত্যা মামলায় দুই আসামীর ফাঁসি         ঢাকায় নির্মাণ হচ্ছে ১১১ তলা ‘বঙ্গবন্ধু ট্রাই টাওয়ার’         মানবপাচার ॥ নৃত্যশিল্পী ইভান ৭ দিনের রিমান্ডে         দুদকের মামলায় খালিদীর জামিন আপিলে বহাল         করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের শঙ্কা বাংলাদেশে         ভিয়েতনাম-কাতার ফেরত ৮৩ শ্রমিককে মুক্তি দেওয়া নিয়ে রুল জারি