ঢাকা, বাংলাদেশ   রোববার ০৩ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০

সংস্কৃতি সংবাদ

মাতৃভাষা দিবসের আয়োজন ‘ভাষার গান, দেশের গান’

প্রকাশিত: ১০:২৯, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

 মাতৃভাষা দিবসের আয়োজন ‘ভাষার গান, দেশের গান’

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ফাগুনের ঝলমলে রোদ ঝরছে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। সেই চিকচিকে রোদ্দুরে সুরের পথরেখায় বর্ণিত হয় মাতৃভাষার অহঙ্কার। প্রাণের গহীনে আলোড়ন তোলে সেই গান- অপমানে তুমি জ্বলে উঠেছিলে সেদিন বর্ণমালা/সেই থেকে শুরু/সেই শুরু দিন বদলের পালা ...। ভাষাশহীদদের প্রতি ভালবাসা জানিয়ে গানটি গাইছিলেন তরুণ কণ্ঠশিল্পী অভিজিৎ। রবিবার দুপুর থেকে রাত অবধি দেশের মাটির গন্ধমাখা এমন নানা গানের বাণী ভেসে বেড়িয়েছে স্মৃতির মিনারে। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা উদ্যাপনে অনুষ্ঠিত হয়েছে ‘ভাষার গান, দেশের গান’ শীর্ষক পরিবেশনা। শনিবার থেকে শুরু হওয়া দুই দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করে বাংলাদেশ সঙ্গীত সংগঠন সমন্বয় পরিষদ। রবিবার অনুষ্ঠানের সমাপনী দিনে ছিল নৃত্য-গীতের সাংস্কৃতিক উপস্থাপনা। দুপুরে অল্প কিছু শ্রোতা থাকলেও বিকেল গড়ানো সন্ধ্যায় দেখা মিলেছে শ্রোতা-দর্শকের স্বতঃস্ফূর্ততা। স্বদেশের গানে গানে সিক্ত হয়েছে তাদের তৃষিত হৃদয়। দিনের প্রথম পরিবেশনাটি উপস্থাপন করে সঙ্গীতদল অক্টেভ। অনেকগুলো কণ্ঠ মিলে এক সুরে। গেয়ে শোনায় ডিএল রায়ের গান- ধন ধান্য পুষ্পভরা/আমাদের এই বসুন্ধরা/তাহার মাঝে আছে দেশ এক/সকল দেশের সেরা ...। গানের দল সপ্তরেখা আসর পরিবেশন করে ‘একশ তুমি বছর’ ও ‘সোনায় মোড়ানো বাংলা মোড়ের শ্মশান করেছে কে/ইয়াহিয়া তোমায় আসামির মতো জবাব দিতেই হবে’। গানের খেয়া পরিবেশিত দুটি গানের শিরোনাম ছিল ‘মোদের গরব মোদের আশা’ ও ‘আমার দেশের মাটির গন্ধে’। নির্ঝরিনীর শিল্পীবৃন্দ সম্মেলক কণ্ঠে গেয়েছেন ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ ও ‘সালাম সালাম হাজার সালাম’। গানের দল নিবেদন পরিবেশন করে ‘মিলিত প্রাণের কলরব’ ও ‘সেদিন বারুদের মতো’ শীর্ষক দুটি সঙ্গীত। ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয়ের সঙ্গীত বিভাগের শিল্পীরা শুনিয়েছে ‘রক্ত শিমুল তপ্ত পলাশ’ ও ‘রক্তে আমার আবার প্রলয় দোলা’। রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী সংস্থা পরিবেশিত গানের শিরোনাম ছিল ‘ও আমার দেশের মাটি’ এবং ‘সংকোচের বিহ্বলতা নিজেরে অপমান’। এছাড়াও দলীয় সঙ্গীত পরিবেশন করে গীতাঞ্জলি, রবিরশ্মি ও অভ্যুদয়ের শিল্পীদল। মুদ্রার সঙ্গে অভিব্যক্তির সম্মিলনে নৃত্য পরিবেশন করে বুলবুল একাডেমির অব ফাইন আর্টসের (বাফা) শিল্পীরা। একক কণ্ঠের গানে গানে শ্রোতার হৃদয় রাঙিয়েছেন রফিকুল আলম, ইয়াসমিন মুশতারী, অনিমা মুক্তি, সন্দীপন, বিমান চন্দ্র বিশ্বাস, লীনা দাস, তাসলিমা বেগম নীতা, রজত দত্ত, ঐশ্বর্য বসাক, তন্বী সাহা, তন্ময়, সালমা আকবর, সাজেদ আকবর, পীযূষ বড়ুয়া, মহাদেব ঘোষ, রোকাইয়া ও আজিজুর রহমান তুহিন।
×