মঙ্গলবার ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

জামায়াত ক্ষমা চাইবে না, সংস্কারও নয়

  • সংস্কারপন্থীরা বলছেন কমিটি লোক দেখানো

বিভাষ বাড়ৈ ॥ একাত্তরের ভূমিকার জন্য ক্ষমা চাওয়া ও সংস্কার ইস্যুতে দলে ব্যাপক অস্থিরতা হলেও আপাতত ক্ষমা চাওয়ার পথে হাঁটছে না দলগতভাবে যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত দল জামায়াত। সংস্কারের দাবিতে প্রভাবশালী নেতাদের পদত্যাগ,বহিষ্কারসহ নানা জটিলতা সামনে আসলেও সংস্কার ও নাম পরিবর্তন আপাতত হচ্ছে না। সংস্কারের দাবিতে জামায়াত-শিবিরের একটি গ্রুপ শক্তিশালী হয়ে ওঠার প্রেক্ষাপটে পরিস্থিতি সামাল দেয়ার জন্যই তরিঘরি করে সংস্কারের নামে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে বলছেন নেতাকর্মীরা। উদ্যোগকে ‘লোক দেখানো’ বলেও অভিহিত করেছেন তারা। তবে এবার অতীতের মতো সংস্কার দাবি হারিয়ে যাবে না বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন সংস্কারপন্থী আন্দোলনকারীরা।

সংস্কারের দাবি তোলায় বহিষ্কৃত হলেও অবস্থাতে অটুট আছেন ছাত্র শিবিরের সাবেক সভাপতি জামায়াতের ঢাকা মহানগর মজলিশে শূরার অন্যতম সদস্য মজিবুর রহমান মঞ্জু। তিনি বলেছেন, জামায়াতের ভেতর নবীন-প্রবীণদের একটি বিশাল অংশই দলে সংস্কারের জন্য আজ উদগ্রীব। তাদের অনেকেই ১৯৭১ এ দলের বিতর্কিত ভূমিকা স্পষ্ট করে সামনে এগানোর পক্ষে। আমি সেটা সাহস করে বলেছি, অনেকে সেটা বলতে পারেন না। বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত আমি মেনে নিয়েছি। কিন্তু আমি আশাবাদী আমাদের এই দাবি দল অনুধাবন করবে, এটা হবেই।

গত কয়েকদিনে গণমাধ্যমে জামায়াতের দেয়ার তথ্য অনুসারে, নতুন নামে ও নতুন রাজনৈতিক দল হিসেবে আবির্ভাবের পথ খুঁজে বের করতে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছে দলটি। দলের নীতিমালায় পরিবর্তন এবং ১৯৭১ সালের স্বাধীনতাযুদ্ধে বিরোধিতার জন্যে ক্ষমা চাওয়াকে ঘিরে দলের মধ্যে বিরোধের খবর প্রকাশিত হওয়ায় এই কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। দলের সেক্রেটারি জেনারেল শফিকুর রহমানের নেতৃত্বে এই কমিটি গঠন করা হয়। এতে অন্য সদস্যরা হলেন সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের, হামিদুর রহমান আজাদ, মিয়া গোলাম পরওয়ার প্রমুখ।

জামায়াতকে ‘নতুন দল’ হিসেবে গড়ে তোলার পাশাপাশি দলটিকে ‘দেশের মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য’ করে তোলার জন্যে সংবিধান ও অন্যান্য কৌশল নির্ধারণে কমিটির সদস্যরা কাজ করবেন। তবে কমিটি কবে নাগাদ তাদের প্রতিবেদন প্রকাশ করবেন দলের পক্ষ থেকে তা জানানো হয়নি। নতুন দল হিসেবে ঘোষণার পর রাজনৈতিক দল হিসেবে জামায়াতের সব কর্মকা- বন্ধ করে দেয়া হবে বলেও গণমাধ্যমে তথ্য দিচ্ছেন জামায়াতের একাধিক উপদেষ্টা ও পরামর্শক। তারা বলছেন, তবে এর মাধ্যমে জামায়াতের অস্তিত্ব বিলুপ্ত করা হবে না। দলটি তখন সামাজিক কাজে নিয়োজিত থাকবে। দলটি দেশের বাইরে বিশেষ করে মিসর, তুরস্ক এবং তিউনিসিয়ার ইসলামী দলগুলোর আন্দোলনের ধরন থেকে শিক্ষা নেবে। ইতোমধ্যেই জামায়াতের এক পরামর্শকের বরাতে দলের সম্ভাব্য নামও প্রকাশ হয়েছে।

জামায়াতের অন্যতম পরামর্শক সাবেক সচিব শাহ আব্দুল হান্নান বলেছেন, জামায়াত নেতৃত্ব রাজনীতিকে আলাদা করে একটি নতুন দল গঠনের বিষয়ে সক্রিয়ভাবে কাজ করছে। এই পার্টির মূল লক্ষ্য থাকবে, একটা কল্যাণরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা। এই পার্টি আলাদা নামে হবে।

মনে করেন, এ রকম নাম হতে পারে, যেমন বাংলাদেশ ওয়েলফেয়ার পার্টি বা বাংলাদেশ জাস্টিস পার্টি, এরকম একটা নাম হবে। এই প্রস্তাব এসেছে। এই নামের সঙ্গে ‘ইসলাম’ শব্দ নাও থাকতে পারে। তিনি বলছেন, বিশ্বব্যাপী একটা নতুন চিন্তা এসেছে যে, রাজনীতি আর দাওয়াত বা রাজনীতি এবং প্রচারকে আলাদা করা। যেমন তিউনিসিয়া, মিসর এবং তুরস্ক করেছে। এটা নিয়ে চিন্তা হচ্ছিল এনাদের মধ্যে। সেই দিকটাকে সামনে রেখে তারা নতুন পার্টির চিন্তা করছে। আমি তাদের যতটুকু জানি বা বুঝি, তাতে তারা নতুন পার্টি করে ফেলবেন।

যদিও দলটিতে সংস্কারের দাবিতে সক্রিয় নেতাকর্মীরা বলছেন, সংস্কারের দাবিকে সামাল দিতেই এখন জামায়াতের বর্তমান শীর্ষ নেতারা লোক দেখানো কৌশল নিয়েছেন। সংস্কারের দাবিকে অগ্রাহ্য করে বর্তমান অবস্থান ধরে রাখার কারণেই ব্যারিস্টার রাজ্জাকের পদত্যাগ করতে হয়েছে। সংস্কারের দাবি তোলায় বহিষ্কার করা হয়েছে মজিবর রহমান মঞ্জুকে।

সংস্কারের দাবিতে সোচ্চার দলটির মজলিশে শূরার এক সদস্য শনিবার জনকণ্ঠকে বলেছেন, একটি কমিটি গঠন করে সংস্কারপন্থীদের শান্ত রাখার চেষ্টা করা হয়েছে মাত্র। কমিটি ও তাদের পরামর্শকরা চাচ্ছেন জামায়াতের বর্তমান নেতৃত্বকে টিকিয়ে রাখতে। কেন্দ্র ও জেলা উপজেলা পর্যন্ত পুরোনো নেতারা সক্রিয় থাকায় তরুণদের কথার কোন মূল্যায়ন দলে হয় না বলেও মত দেন এ জামায়াত নেতা। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি মজলিশে শূরার বৈঠকের কথা উল্লেখ করে বলেন, আমরা মজলিশে শূরার বৈঠকে যে ধরনের সংস্কারের কথা বলেছিলাম তার সঙ্গে এখনকার দেয়া তথ্যেরও মিল নেই। আমরা কেবল নাম পরিবর্তনের কথা বলিনি। আমরা চেয়েছিলাম দলটি যেন তার কর্মকা-েও পরিবর্তন আনে। একাত্তরে যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এসেছে তাদের কাউকে সারাদেশে কোন ইউনিটিতে শীর্ষ পদগুলোতে রাখা যাবে না। কিন্তু তার কিছুই মূল্যায়ন হচ্ছে না।

ঢাকা মহানগর জামায়াতের মজলিশে শূরারর এক সদস্য অভিযোগ করেছেন, সংস্কারের দাবি তোলা নেতাদের সতর্ক করা হচ্ছে। মজিবুর রহমান মঞ্জুর ভাগ্যবরণ করতে হবে বলেও সতর্ক করা হচ্ছে। জামায়াত সংগঠনের বাইরে গিয়ে প্রকাশ্যে সংস্কার চাওয়ার ফল ভাল হয় না বলেও জানিয়ে দেয়া হচ্ছে। বলা হচ্ছে, সংস্কার চেয়ে আজ পর্যন্ত কেউ লাভবান হয়নি। মজলিশে শূরার সদস্যরা বলছেন, সংস্কার নিয়ে শীর্ষ নেতৃত্ব উল্টো পথে হাঁটছে তার প্রমাণ পাওয়া যায় অন্যতম পরামর্শক শাহ আব্দুল হান্নানের অবস্থানেও।

জানা গেছে, ইতোমধ্যেই শাহ আব্দুল হান্নান বলেছেন, জামায়াতের মধ্যে কোন সংস্কার হয়নি বলে ব্যারিস্টার আবদুর রাজ্জাক যে অভিযোগ করেছেন তা সঠিক নয়। বরং জামায়াতের কার্যক্রমে অনেক সংস্কার ও অগ্রগতি হয়েছে। জামায়াত নারীদের সংসদ সদস্য নির্বাচিত করে সংসদে পাঠিয়েছে। উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত করেছে অনেককে। জামায়াতের নারী সদস্যের সংখ্যা এখন অর্ধেকের কাছাকাছি পৌঁছেছে। মেয়েদের রোকন করার বিষয়ে কড়াকড়ি শিথিল করা হয়েছে। দলের সংখ্যালঘু সদস্য করা হয়েছে ৮০ হাজারের কাছাকাছি। সামনে এ সংখ্যা আরও বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

পাকিস্তানের জামায়াতে ইসলামী আর বাংলাদেশ জামায়াত এক নয় বলে উল্লেখ করে বলেছেন, বর্তমান জামায়াতে ইসলামী ১৯৭৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। স্বাধীনতার সময়ের ভূমিকার জন্য তাদের ক্ষমা চাওয়ার বিষয়টি প্রাসঙ্গিক নয়। ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাকের পদত্যাগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি এই সিদ্ধান্তটিকে সঠিক বলে মনে করি না। কোন সংগঠন বা ফোরামে সবার সব পরামর্শ গৃহীত হবে এমনটি বাস্তবসম্মত নয়।

এদিকে বহিষ্কৃত নেতা মজিবুর রহমান মঞ্জু বলেছেন, আমরা অনেক আগে থেকেই উদ্যোগ নেয়ার কথা বলেছি। অনেক ওয়ার্ক করা হয়েছে, তৃণমূল থেকে মতামত নেয়া হয়েছে। আমাদের জানানো হয়েছে, যে আমরা অনেকদূর অগ্রসর হয়েছি। তবে এখন এসে বলা হচ্ছে, আমরা ৫ সদস্যের কমিটি করেছি। আমার কাছে বিষয়টি মনে হয়েছে, বর্তমানে পরিবর্তনের যে দাবি উঠেছে, তা জাস্ট ফেস করার একটি চেষ্টা।

মঞ্জুর পর্যবেক্ষণ, নতুন উদ্যোগের বিষয়ে জানুয়ারিতে সিদ্ধান্ত হলো। ৫ সদস্যের একটি কমিটি করা হয়েছে। জানানো হলো অধস্তনদেরকে, প্রেসকে জানানো হয়নি। কারণ কী, মানে হচ্ছে অধনস্তনদের শান্ত রাখতে চাচ্ছে। তথ্যের লুকোচুরি করা হয়েছে।

শিবিরের সাবেক এই সভাপতি ব্যাখ্যা করেন, পার্টির মধ্যে এখন বিরাট প্রশ্ন, আমরা যদি ক্ষমা চাই তাহলে আমাদের নেতারা যারা শহীদ হয়েছেন, যারা নিহত হয়েছেন, তাদেরকে ব্লেম করা হয়। কথাটা কিন্তু যুক্তিপূর্ণ, আবেগ জড়িত। আমি এটাই বলেছি যে, পার্টিকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে আগে যে, আগে ভুল করেছে নাকি সঠিক করেছে। যদি সঠিক হয়, তাহলে ক্ষমা চাইবেন কী না। যদি ভুল করে তাহলে প্রশ্ন হবে, আদর্শিক সংগঠন হিসেবে সেই ভুল নিয়ে আপনি চলবেন কী না। হ্যাঁ ভুল করেছেন, জাস্টিফাই করেননি। জাস্টিফাই করা হলে ফলাফল ভয়ঙ্কর হবে, তাহলে পার্টি বিলুপ্তি করে দিন। রাজ্জাক সাহেব তো এ কথাই বলেছেন।

মজিবুর রহমান মঞ্জু জনকণ্ঠকে বলেছেন, ‘সংস্কারের দাবি কিন্তু নতুন নয়। আমাদের সিনিয়র নেতারা বহু আগেই একথা বলেছেন। কিন্তু হয়নি। আমাকে বলা হলো আমি নাকি দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ করছি। মেনে নিলাম শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য আমাকে বহিষ্কার করলেন। কিন্তু আমি যেটা বলেছি সেই সংস্কারের দাবি সঠিক কিনা সেটার উত্তর কি? আমি মনে করি সংস্কারের দাবিকে দলে বিপুল জনসমর্থন আছে। আজ না হয় সংস্কার করলেন না। কিন্তু পরবর্তীতে যখন এটা করতে বাধ্য হবে দল তখন সেটা আর ভালভাবে হবে না। তখন দল উপকৃতও হবে না।

শীর্ষ সংবাদ:
বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত হত্যা বন্ধে একমত বাংলাদেশ-ভারত         এমসি কলেজের ওই ছাত্রাবাসে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি         কুয়েতের আমির শেখ সাবাহ আর নেই         সারাদেশে কলেজগুলোতে বহিরাগত প্রবেশ নিষেধ         করোনা ভ্যাকসিন কিনতে বাংলাদেশকে ৩ মিলিয়ন ডলার অনুদান এডিবির         বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করছেন শেখ হাসিনা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী         শিল্প এলাকায় শিল্পকারখানা স্থাপনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর         চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে বিকল্প দেশের পেঁয়াজ আমদানি শুরু         সমন্বিত উন্নয়নের জন্য জনবান্ধব পুলিশিংয়ের কোনো বিকল্প নেই : পুলিশ মহাপরিদর্শক         করোনা ভাইরাসে আরও ২৬ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৪৮৮         দেশ দুঃসময় পার করছে না, বিএনপির চরম দুঃসময় চলছে ॥ কাদের         ভারতে দৈনিক করোনাভাইরাস সংক্রমণে বড়সড় পতন ঘটেছে         এমসি’তে গণধর্ষণ ॥ কলেজ কর্তৃপক্ষের ব্যর্থতা চ্যালেঞ্জ করে রিট         নুর-মামুনদের গ্রেফতারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে স্মারকলিপি         নকল মাস্ক সরবরাহ ॥ জেএমআই চেয়ারম্যান গ্রেফতার         এমসি কলেজে গণধর্ষণ ॥ আরও ৩ জন রিমান্ডে         সুনির্দিষ্ট আশ্বাস না পেলে রাজপথ ছাড়বেন না সৌদি প্রবাসীরা         এইচএসসি পরীক্ষা গ্রহণে বোর্ডের তিন প্রস্তাব         দুই আসামির জামিন বাতিলে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট         জাহালমের ক্ষতিপূরণের রায় পিছিয়ে বুধবার