মঙ্গলবার ১০ কার্তিক ১৪২৮, ২৬ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

চুয়াডাঙ্গায় মাথাভাঙ্গা নদী থেকে বালু উত্তোলন

  • হুমকিতে বসতি

নিজস্ব সংবাদদাতা, চুয়াডাঙ্গা, ২৩ জানুয়ারি ॥ দামুড়হুদা উপজেলার উজিরপুর গ্রামের দমদমা মাঠ এলাকায় অবৈধভাবে মাথাভাঙ্গা নদী খনন করে মাটি তুলে ইটভাঁটিতে বিক্রি করছে সমাজ বিরোধীরা। যেখানে সেখানে ড্রেজার দিয়ে মাটি তোলার কারণে নদী ভরাট হয়ে এবং ওপরের ব্যক্তি মালিকনা জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। এরপরেও ভয়ে সমাজ বিরোধীদের এ অপকর্মের ব্যাপারে কেউ মুখ খুলছে না। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ৫টি ট্রাক্টর মাটি নেয়ার জন্য দাঁড়িয়ে আছে আর মাথাভাঙ্গা নদীর পাড়ের অংশে ড্রেজার দিয়ে মাটি কেটে ট্রাক্টরের ডালায় ঢালছে শ্রমিকরা। উজিরপুর দমদমা মাঠ এলাকার নদীর ধারে অনেক দিন থেকে বসবাস করে আসছে জবেদের দুছেলে মহব্বত ও সানোয়ার। এরা দুভাই মাঠেঘাটে শ্রম বিকিয়ে জিবিকা নির্বাহ করে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বৃদ্ধা জানায়, গত ১০ দিন ধরে প্রতিদিন কয়েকশ গাড়ি মাটি নদীর পাড় থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

ইটভাঁটির মালিকরা প্রতি সেপটি মাটি ৫ অথবা ৬ টাকা দরে কিনছে। এতে করে ট্রাক্টরের প্রতি ডালা মটির দাম পড়ছে ১ হাজার টাকা করে। সমাজ বিরোধীদের দেখিয়ে দেয়া স্থান থেকে ড্রেজার দিয়ে মাটি কেটে তুলে নিয়ে যাচ্ছে ইটভাঁটি মালিকরা। সে কারণে সমাজ বিরোধীদের কোন খরচ না থাকায় তাদের পুরো টাকাটাই লাভ। এর ফলে ইটভাটার মালিকরা মাটি সংগ্রহের কাজে তাদের কাজে লাগাচ্ছে। সেখানকার কয়েকজন অভিযোগ করেন, দামুড়হুদা উপজেলার উজিরপুর গাঙপাড়ার মরহুম আকবারের ছেলে ও দামুড়হুদা ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একরামুল, ওই গ্রামের মোল্লাপাড়ার মরহুম মকছেদের ছেলে আকুব্বার আকু, স্কুলপাড়ার মরহুম লোকমান বিশ্বাসের ছেলে মতিসহ যুবলীগের বেশ কয়েকজন নেতা এই অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে নদী থেকে মাটি কাটা কাজের সঙ্গে জড়িত। এদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ না করার কারণে এরা তাদের অপকর্ম নির্বিঘেœ চালিয়ে যাচ্ছে।

চুয়াডাঙ্গার একজন প্রতিষ্ঠিত ঠিকাদার ৩টি ইটভাঁটির মালিক ইকবাল মাহমুদ টিটু বলেন, ইট তৈরির কাজে মাটি প্রয়োজন। কিন্তু চুয়াডাঙ্গায় মাটি পাওয়া দুষ্কর হচ্ছে। সেকারণে মাটি সংগ্রহে বেশ সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। অনেক সরবরাহকারী ইটভাঁটির মাটি সরবরাহের সময় ব্যক্তি মালিকানা জমি থেকে মাটি কেটে সরবরাহ করা হচ্ছে বলে তাদের জানায়। কিন্তু সেটা কোথা থেকে আনা হয় তা দেখা সম্ভব হয় না। এছাড়া গেল জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ নদী খনন ও বালি উত্তোলন কাজে উৎসাহিত করত। সে সময় ইটভাঁটি মালিকরা মাথাভাঙ্গা ও চিত্রা নদী ও নবগঙ্গা খাল কেটে সেখান থেকে মাটি সংগ্রহ করত। বর্তমান জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাস যোগদানের পর নদী ও খাল থেকে মাটি না কাটার নির্দেশ জারি করেন।

শীর্ষ সংবাদ:
গার্মেন্টসে প্রচুর অর্ডার ॥ কর্মসংস্থানের বিরাট সুযোগ         দারিদ্র্য বিমোচনে দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোর কাজ করা উচিত         শেয়ারবাজারে বড় দরপতন বিনিয়োগকারীরা রাস্তায়         সাম্প্রদায়িক হামলায় জড়িতদের কঠোর শাস্তি দাবি         প্রশাসনে পদোন্নতি পেতে তদবিরের ছড়াছড়ি         ছোট অপারেশন হয়েছে খালেদা জিয়ার         সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধের বিকল্প নেই         রূপপুর পরমাণু বিদ্যুত কেন্দ্রের সঞ্চালন লাইন নিয়ে শঙ্কা         ইলিশ ধরতে জেলেরা আবার নদীতে ॥ উঠে গেল নিষেধাজ্ঞা         সিডিউলবিহীন বিমানেই চোরাচালান         রবির অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ         সিনহাকে হত্যা করতে ওসি প্রদীপের নির্দেশে সড়কে ব্যারিকেড         তুচ্ছ ঘটনায় টেকনাফে বৌদ্ধ বিহারে হামলা, অগ্নিসংযোগ         বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে আগ্রহী পাকিস্তান         করোনা : গত ২৪ ঘন্টায় ৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৮৯         আবাসিক এলাকায় নতুন গ্যাস সংযোগ কেন নয়, হাইকোর্টের রুল         বিতর্কিতদের নয়, ত্যাগীদের নাম কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দেশনা         অনিবন্ধিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান বন্ধ হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী         তদন্তের সময় অনৈতিক সুবিধা দাবি ॥ দুদকের কর্মকর্তাকে হাইকোর্টে তলব         বাংলাদেশকে স্বর্ণ চোরাচালানের রুট বানিয়েছে পার্শ্ববর্তী দেশ